মঙ্গলবার ১১ মে ২০২১ ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরের লিচু ফলন বিপর্যের আশংকা

মো: আব্দুর রাজ্জাক ॥ একদিকে ফলন কম, অন্যদিকে বৈশ্বিক করোনা মহামারী পরিস্থিতি-এই দুই কারনে এবার পরিকল্পনা থাকা সত্বেও দিনাজপুর থেকে ইউরোপসহ বিভিন্ন দেশে লিচু রফতানীর সম্ভাবনা ক্ষীণ হয়ে পড়েছে। লিচুর ফলন প্রায় এক তৃতীয়াংশে নেমে আসায় চরম আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছে লিচুর বাগান মালিক ও আগাম বাগান কেনা লিচুর ব্যবসায়ীরা।

এদিকে দিনাজপুরের লিচু খ্যাত এলাকা বিরল, বীরগঞ্জ ও সদর উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে দেখা যায়, অধিকাংশ গাছে লিচু নেই। গাছে লিচুর গুটির পরিবর্তে শোভা পাচ্ছে নতুন পাতা। বাগান মালিকরা বলছেন, এবার লিচুর ফলন গতবছরের তুলনায় এক তৃতীয়াংশেরও কম হবে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর দিনাজপুরের উপ-পরিচালক তৌহিদুল ইকবাল জানান, দেশের অন্যান্য স্থানের চেয়ে দিনাজপুরের লিচুর বেশ খ্যাতি রয়েছে। লিচু আবাদ বেশ লাভভান হওয়ায় দিনাজপুরে দিন দিন লিচু বাগানের পরিধি বাড়ছে। তিনি বলেন, এই জেলার লিচু দিনাজপুরের চাহিদা মিটিয়ে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যায়। আর মান ভালো থাকায় এবার শুরুতেই দিনাজপুরের লিচু ইউরোপসহ বিভিন্ন দেশে রফতানীর পরিকল্পনা গ্রহন হয়েছিলো। সে লক্ষ্যে ইউরোপসহ কয়েকটি দেশে যোগাযোগও সম্পন্ন হয়েছিলো। কিন্তু বৈশ্বিক করোনা মহামারী পরিস্থিতির কারনে লিচু ফলনের প্রাক্কালে এসে সেটি আর সম্ভব হচ্ছে না। গত রোববার তিনি জানান, আমরা লিচু রফতানীর জন্য রফতানীকারকসহ চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সাথেও কথা বলেছি। যেহেতু এটি দ্রুত পচনশীল পণ্য সেহেতু করোনা মহামারী পরিস্থিতিতে লিচু রফতানী করা সম্ভব হচ্ছে। আগামী বছর এই পরিস্থিতি কেটে উঠলে হয়তো আগামী মৌসুমে দিনাজপুরের লিচু রফতানীতে আবার উদ্যোগ নেয়া হবে। উপ-পরিচালক তৌহিদুল ইকবাল স্বীকার করেন, তাছাড়া অন্যন্য বছরের তুলনায় এবার দিনাজপুরে লিচুর ফলন বেশ কম হয়েছে। গত বছরে অতিবৃষ্টি ও আবহাওয়া জনিত কারনে এই ফলন অনেকাংশে কম হয়েছে বলে জানান তিনি। বিদেশে দিনাজপুরের লিচু রফতানীতে এটিও একটি প্রতিবন্ধকতার কারন বলে জানান কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা।

সম্প্রতি লিচুর গ্রাম হিসেবে পরিচিত বিরল উপজেলার মাধববাটীতে গিয়ে দেখা হয় আগাম বাগান কেনা লিচু ব্যবসায়ী আনারুল ইসলামের সাথে। ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে আছেন লিচু গাছের দিকে। বছর জুড়ে বাগানের পরিচর্যা করার পরও গাছে কোন মুকুল নেই, আছে শুধু নতুন পাতা। তার গোটা বাগানেরই এই অবস্থা। আনারুল জানান, তিন বছরের জন্য আগাম ৫টি বাগান কিনেছেন তিনি। এই ৫টি বাগানে লিচুর গাছ আছে ১’শটিরও বেশী। অধিকাংশ গাছই বোম্বাই জাতের লিচুর। গতবছর করোনা পরিস্থিতিতেও এই ৫টি বাগান থেকে তিনি ৩০ লাখ টাকার লিচু বিক্রি করেন। এবার ৫ লাখ টাকা পাবেন কি-না সন্দেহ। কারন অধিকাংশ গাছেই মুকুল নেই। আছে শুধু কচি পাতা।

বীরগঞ্জ উপজেলার নিজপাড়া ইউনিয়নের শম্ভুগাও গ্রামের লিচু বাগান মালিক নুরিয়াস সাঈদ সরকার জানালেন, এবার অতিবর্ষনের কারনে মুকুলের পরিবর্তে নতুন পাতা ছেড়েছে লিচু গাছ। বিরূপ আবহাওয়ার কারনে এখন মুকুলের পরিবর্তে গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে নতুন পাতা। উপজেলার অন্যান্য বাগানের একই অবস্থা বলে তিনি জানান।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সুত্রে জানাযায়, লিচুখ্যাত দিনাজপুর জেলায় ৫ হাজার হেক্টর জমিতে লিচুর বাগান রয়েছে। এতে প্রায় ৪৫ হাজার মেট্রিক টন লিচু উৎপাদন হয়ে থাকে। কিন্তু এবার ফলন কতটুকু আসবে, তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email