সোমবার ২৩ মে ২০২২ ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরের স্মৃতিতে সুভাষদত্ত

Subas Dottoআমাদের দেশে প্রথম আন্তর্জাতিক পুরস্কার পাওয়া ছবি ‘সুতরাং’। আমরা অনেকেই এই চলচ্চিত্রটি দেখেছি। দিনাজপুর শহরের লিলি সিনেমা হলে সুভাষ দত্তের পরিচালনায় ১৯৬৪ সালে মুিক্ত পায়। এই সুভাষ দত্তের বাড়ি দিনাজপুর শহরে। এই কথাটি অনেকেরই অজানা। দিনাজপুর শহরের মুন্সিপাড়াস্থ বুটিবাবুর মোড়ে একটু পশ্চিমে ১৯৩০ সালে ৯ ফেব্রুয়ারি তার মামার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। দিনাজপুর একাডেমী স্কুল থেকে ৬ষ্ঠ শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করার পর ১৯৪০ সালে দিনাজপুরের মহারাজা গিরিজানাথ উচ্চ বিদ্যালয় ৭ম শ্রেণী ভর্তি হন। ১৯৪৮ সালে এই স্কুল থেকে মেট্টিক পাশ করেন। ১৯৪৮ সালের জুলাই মাসের সুভাষ দত্ত সুরেন্দ্র নাথ কলেজে আইএসসি ক্লাসে ভর্তি হন। বাংলা স্কুলের পার্শ্বে লাল রংয়ের বিল্ডিংটি ষাট দশকের যেটা মুসলিম হোস্টেল বলে পরিচিত ছিল সেটাই সুরেন্দ্র নাথ কলেজ ছিল। বর্তমান শহরের লিলিমোড়ে লিলি সিমেনা হল নামে একটি সিনেমা হল ছিল। সুভাষ দত্ত এই সিনেমা হলে পোস্টার আঁকার চাকুরি পান। অবসরে গেটে টিকিট চেক করার কাজ করতেন।
শৈশব থেকেই সুভাষ দত্তের অভিনয়ের প্রতি প্রচন্ড শখ ছিল। সিনেমা পোস্টার আঁকতে আঁকতে সিনেমার অভিনয় করার শখ তার ঘারে চেপে বসে। কিশোর বয়সে দিনাজপুরের একটি নাট্যদল তাঁকে সিরাজউদ্দল্লা নাটকে উম্মে জোহরার ভূমিকায় অভিনয় করার জন্য সুযোগ করে দেন। মেয়ে মানুষের ভূমিকায় অভিনয় করার জন্য তাকে দিনাজপুরের সহপাঠী ও বন্ধু-বান্ধবরা বিভিন্ন ভাবে ঠাট্টা করত। তার নির্দেশিত জয়-পরাজয় নাটকটি দিনাজপুরে নাট্যাঙ্গনে খ্যাতি এনে দেয়। তার শৈশব থেকে ইচ্ছা ছিল কোলকাতা আর্ট কলেজে পড়ার। কিন্তু আর্থিক দৈন্যতা ও পারিবারিক সহযোগিতা না থাকার কারণে সে আশা পূর্ণ হয়নি। ১৯৫৩ সালের প্রথম দিকে সুভাষ দত্ত ভারতবর্ষে মহারাষ্ট্রের রাজধানী ফিল্ম সিটি বোম্বে চলে যান। সেখানে কমার্শিয়াল আর্ট কারখানায় চাকুরি করার পর মাতৃভূমির টানে আবারও দিনাজপুরে ফিরে আসেন। পরে রাজধানী ঢাকায় গিয়ে সিনেমার পোষ্টার আঁকার মধ্যে যুক্ত হন বাংলা চলচ্চিত্রের অঙ্গনে। এ দেশের প্রথম সবাকচিত্র ‘মুখ ও মুখোশ’ এর পোষ্টার ডিজাইনার তিনি ছিলেন। পরবর্তী জীবনে তিনি বাংলা চলচ্চিত্রে অভিনয় পরিচালনা চিত্রনাট্য ও শিল্পী নির্দশনা হিসেবে সাফল্যের শীর্ষে আরোহন করেন। কালক্রমে সুভাষ দত্ত হয়ে যান চলচ্চিত্র হয়ে যান কিংবদন্তী। তার অভিনিত ও নির্দেশিত ও চলচ্চিত্র সুতরাং আন্তর্জাতিক পুরস্কারে সম্মান অর্জন করে। চলচ্চিত্রে তিনি নায়কের অভিনয় করেন। এছাড়াও তিনি অরুনাদ্বয়ের ‘অগ্নিসাক্ষী’, ডুমুরের ফুল, আয়না ও অবশিষ্ট, কাগজের নৌকা, বিনিময়, সকাল-সন্ধা সহ অসংখ্য চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন। তিনি ভারতীয় চলচ্চিত্র ক্যালকাটা ৭১ এ অভিনয় করেন। সুভাষ দত্তের পিতৃনিবাস ছিল বগুড়া জেলার সারিয়াকান্দি উপজেলায়। তার পিতার নাম শ্রী প্রভাষ চন্দ্র দপ্ত ও মাতা শ্রীমতি প্রফুল্ল নলীনি মিত্র।  তার সহধর্মিনীর নাম সীমা দত্ত। সুভাষ দত্তের ২ ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। সুভাষ দত্তরা ২ ভাই ও ২ বোন ছিলেন।
দিনাজপুরের মাটি যুগে যুগে কিছু ক্ষণজন্মা মানুষ লালন করেছেন। যার মধ্যে সুভাষ দত্ত অন্যতম। ২০১২ সালে ১৬ নভেম্বর শুক্রবার সকাল ৭টায় ৮৩ বছর বয়সে বার্ধক্যজনিত কারণে ঢাকার আরকে মিশন রোডস্থ নিজ বাস ভবনে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email