শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরের হিলি সীমান্তে বহুরুপী তপন বোস ৩ জায়গার ভোটার

Taposhকুরবান আলী, দিনাজপুর : ল্যাগেজের সাথে মাদক ও এলসি জালিয়াতির মাধ্যমে হিলি স্থল বন্দর থেকে অবৈধ টাকা আয় করে টোকাই থেকে কোটি টাকার মালিক হয়েছে। অবৈধ টাকা দিয়ে নির্মান করেছেন আলীশান বাড়ী। চলে দামী কার ও মটরসাইকেলে। আছে তার নিজস্ব ড্রাইভার কাম বডিগার্ড। টাকা খরচ করেন দু-হাতে। তার অত্যাচারে হিলির ব্যবসায়ীমহল অতিষ্ঠ। এই মহা ক্ষমতাধর ব্যক্তির নাম তপন বোস। হিলি কাস্টমস এলাকার চোরাই পথে লাগেজ পারাপার করা সেই ফুটপাতের ছোকরা নারায়ন এখন নামি দামি তাপস বোস! নাম, বয়সা ও ঠিকানা পাল্টিয়ে, রূপ বদলীয়ে কখনো তাপস, কখনো তপন, কখনো বসু, আবার কখনো শুধুই বোস। এপার বাংলা ওপার বাংলা জয় করে এবার পুরোপুরি তাপস বোস। তিনি বাংলাদেশের বগুড়া ও হিলি এবং ভারতের ভোটার।

নাম প্রকাশ করার না শর্তে শিববাটি, বগুড়া এলাকায় সরেজমিনে তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, নারায়নের বাবা শ্রী মৃত্যুঞ্জয় বোস এর নামে মাঠে কোন জমি জমা নেই। শুধুমাত্র সম্বল বাড়ীর ৪ শতক জায়গা। ছিলেন টা্রকের ড্রাইভার। এরপর তেল চুরির ব্যবসা একসময় সেই ব্যবসাও ধরা পড়ে যায়। তারপর থেকে বাপ ছেলে সবাই বেকার। আরও জানা যায়, নারায়নের বাবা ভারতীয় সেনা বাহিনীর সদস্য হিসাবে কর্তরত থাকার সুবাদে কলকাতা শহরের মেদেনীপুর এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা শ্রীমতি রেবা বোস নামের জনৈক মহিলাকে বিয়ে করে সংসার ধর্ম পালন শুরু করেন। অজ্ঞাত কারণে শ্রী মৃত্যুঞ্জয় বোস ভারত থেকে বাংলাদেশের বগুড়া জেলায়, বগুড়া পৌরসভার জিজি রায় লেন, শিববাটি, কালিতলা এলাকায় স্থায়ী ভাবে বসবাস শুরু করেন। শ্রী মুত্যুঞ্জয় বোসের চার পুত্র সন্তানের মধ্যে দ্বিতীয় পুত্র উল্লে­খিত তাপস বোস। ১৯৯৬ ইংরেজি সালের বগুড়া সদর থানার শিববাটি মৌজার ভোটার তালিকা অনুযায়ী শ্রী তাপস বোস, পিতা শ্রী মৃত্যুঞ্জয় বোস, ভোটার নম্বর ৬৪২। তার বাকি তিন ভাই শ্রী সত্য বোস, ভোটার নম্বর ৬৪৩, শ্রী পার্থবোস ভোটার নম্বর ৬৪৪, শ্রী শংঙ্কর বোস ভোটার নম্বর ৬৪১ সকলের পিতা শ্রী মৃত্যুঞ্জয় বোস, পিতা মৃত্যু মোকন্দলাল বোস, ভোটার নম্বর ৬৪০ লিপিবন্ধ হয়। এপার বাংলার হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকেরা সচরাচর ভারত মুখী হলেও গঙ্গার জলে উল্টো স্রোতে ভাসা মৃত্যুঞ্জয় পরিবার বাংলাদেশে বসবাসের রহস্য খুজে পেতে খানিক সময় প্রয়োজন।

শ্রী মৃত্যুঞ্জয় বোসের দ্বিতীয় পুত্র শ্রী তাপস বোস পরিবার থেকে বিতাড়িত হয়ে ভাসতে ভাসতে চলে আসে দিনাজপুর জেলার সীমান্ত এলাকা হিলি এলাকায়। সেখানে হিলি কাস্টম্স এলাকায় জীবিকা নির্বাহের তাগিদে চোরাই পথে লাগেজ পারাপার ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ে। ১৯৯৮- ১৯৯৯ সালে হিলির স্থানীয় কিছু বখাটে নেশাখোর বন্ধু জুটিয়ে চোরাই পথে লাগেজ ব্যবস্থা করে ফায়দা লুটে একটু স্বাবলম্বী হয়ে চিন্তা ভাবনা পাল্টাতে থাকে সেই সময় সুকৌশলে বিনা পাসপোর্টে ভারতে যাওয়ার উপায় খুজে পেয়ে চোরাই পথে মাদকসহ বিভিন্ন প্রকার কাপড় ও কসমেটিক্স সামগ্রী বাংলাদেশে পাচার করে ভাগ্য পরিবর্তনের রাস্তা খুজে পায়। পিতা ভারতীয় সেনা বাহিনীর সদস্য সূত্র ধরে এক সময় ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থার সাথেও সখ্যতা গড়ে কৌশলে নিবিড় সর্ম্পক গড়ে তোলে। এক পর্যায়ে সংস্থার এজেন্ট হিসাবেও কাজ করে। পর্যায়ক্রমে বাংলাদেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থান সহ নানা রকম জানা অজানা তথ্য সরবরাহ করে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিএসএফ এর কাছে তার গুরুত্ব বাড়িয়ে তোলে। ফলে তার ব্যবসার স্বার্থে এপার ওপার হতে সমস্যায় বা ঝামেলায় পড়তে হয়নি। ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থার সাথে কাজ করেও সে আর্থিক সুবিধা ভোগ করেছিল বলে একাধিক সূত্রে জানা গেছে।

বর্তমানে তার ব্যবসায়ীক সুবিধার্থে সুকৌশলে হাকিমপুর পৌরসভার সীল স্বাক্ষর জাল করে প্রকৃত নাম বয়স ও ঠিকানা পরিবর্তন করে শ্রী তপন কুমার বোস, পিতা শ্রী খোকন বোস নাম ধারন করে দিনাজপুর থেকে বেনামে ও অস্থিত্বহীন ঠিকানায় আয়কর যাহার নম্বর ৪৫২-১১-৫৬৭৬ এবং আই আরসি যাহার নম্বর ব ১৪৬৩৬৭ তৈরী করে। উক্ত ঠিকানায় তাহার কোন বাড়ীঘর বা কোন কিছুই নাই। আবার ২০০৮ সালে হাকিমপুর পৌর এলাকার উত্তর বাসুদেবপুর গ্রামে শ্রী তাপস কুমার বসু পিতা-শ্রী খোকন বসু জন্ম তাং- ১৯/০২/১৯৭৮ ভোটার নং-১০৮ হিসাবে নিবন্ধন করে।

কালক্রমে আজকের এই তপন বোস লাগেজ ও মাদক ব্যবসায়ী থেকে হিলি স্থলবন্দরের একজন আমদানীকারক। তার বর্তমান আমদানীকারক প্রতিষ্ঠানের নাম বসু ওভারসীস। নাম ও বয়স পাল্টানোর অভিযোগের তদন্ত কমিটি গঠন করে এ ঘটনায় জড়িত ব্যক্তির শাস্তির দাবী করছেন এলাকাবাসী।