মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪ ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরের হোটেল গুলোতে অবাদে চলছে আস্বাস্থ্যকর বাসি খাবারের রমরমা ব্যবসা \ প্রশাসনের তত্পরতা নেই

দিনাজপুর থেকে রাজকুমার রায় : দিনাজপুরের হোটেল গুলোতে অবাদে চলছে আস্বাস্থ্যকর বাসি খাবারের রমরমা ব্যবসা এমন অভিযোগ দিনাজপুরবাসীর৷ গতকাল দিনাজপুর শহরের রেলবাজার হাট, চক বাজার, নিমতলা, সুইহারী, রামনগর মোড়, বালুয়াডাঙ্গা মোড় , বাহাদুর বাজার, হাসপাতাল মোড়, ফুলবাড়ী বাসষ্ট্যান্ড, মেডিক্যাল কলেজ মোড়, পুলহাট সহ বিভিন্ন এলাকার হোটেল গুলো ঘুরে এমন অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে৷ এসব এলাকার অধিকাংশ হোটেলের স্বাস্থ্যকর পরিবেশ নেই এবং খাবারের অনেক আইটেম দুই বা তিন সপ্তাহের বাসি, তাছাড়া অনেক হোটেল মালিক মৃত হাস,মুরগী ও খাসির মাংস অবাদে বিক্রি করে চলছে, এমন অভিযোগের সত্যতাও পাওয়া গেছে৷ গতকাল বাস টার্মিনাল এলাকার একটি হোটেল মালিক এক প্রশ্নোত্তরে বলেন “তিনি প্রতি পিচ মৃত হাস অথবা মুরগী বিশ হতে ত্রিশ টাকা দিয়ে কিনেন৷ তিনি আরও বলেন দিনাজপুরের প্রায় প্রতিটি হোটেলে মৃত হাস অথবা মুরগীর মাংস পাওয়া যায়৷ কোর্ট এলাকার সুলতান হোটেলের এক কর্মচারী বলেন তাদের হোটেলের খাবার আইটেম গুলো দুই সপ্তাহের বেশি বাসি নয় কিন্তু আশপাশের প্রতিটি হোটেলের খাবার আইটেম এক মাসের বেশি বাসি এবং অনেক হোটেলের স্বাস্থ্যকর পরিবেশ নেই৷ এদিকে দিনাজপুর জেলার তেরটি উপজেলার হাজার হাজার মানুষ প্রতিদিন বিভিন্ন কাজে শহরে আসছেন এবং প্রকৃতির টানে এসব হোটেলের খাবার খেয়ে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন৷ দিনাজপুর শহরের মহারাজা মোড় এলাকার “কনক প্রিন্টার্স এন্ড কম্পিউটার” এর সত্যাধিকারী কনক বলেন- আমি প্রতিদিন হোটেলের খাবার খাই আর হোটেলের খাওয়ার কারনে আমি গ্যাসটিক সহ বিভিন্ন রোগে ভুগছি৷এবিষয়ে চিরিরবন্দর উপজেলার স্কাইসেডো ফার্মেসীর মালিক ও চিকিত্সক আকাশ কুমার বলেন হোটেল গুলোর স্বাস্থ্যকর পরিবেশ না থাকায় ও বাসি খাবার পরিবেশন করায় আমাদের অনেকেই বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন৷

এ বিষয়ে দিনাজপুরের এক সমাজ সেবক ও শিক্ষক নগেন্দ্র নাথ রায় বলেন দিনাজপুরের আইনের তত্পরতা না থাকায় এসব অসাধু হোটেল ব্যবসয়ীরা অবাদে অস্বাস্থকর বাসি খাবারের ব্যবস্যা করে চলছেন৷ এদিকে দিনাজপুরে গুটি কয়েক হোটেল মালিককে ভ্রাম্যমান আদালত সামান্য জরিমানা করেন যার ফলে তারা সাহস পাচ্ছেন ব্যবস্যা চালিয়ে যেতে৷ এ প্রতিবেদনের মাধ্যমে দিনাজপুরবাসী হোটেল গুলোর স্বাস্থ্যকর পরিবেশ ফিরিয়ে পেতে জেলা প্রসাশনের সুদৃষ্টি কামনা করছেন৷

 

 

Spread the love