শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১০ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে ঈদের দিনে মটরসাইকেল আটকের ঘটনায় পুলিশের প্রতি মানুষের বিরূপ প্রতিক্রীয়া

সুুবল রায়, দিনাজপুর ঃ
মঙ্গলবার ঈদের দিন অন্তান্ত অমানবিক ভাবে দিনাজপুরের কাঞ্চন ব্রীজ সংলগ্ন পুর্ব পারে মটর সাইকেল আটক করে বিরল-বোচাগঞ্জসহ ঐ পথের যাত্রীদের অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রায় কয়েকশত মটরসাইকেল আটক করলেও অজ্ঞাত কারণে মামলা হয়েছে মাত্র ৫ টি।
ঈদের দিন একটি বিশেষ আনন্দের দিন। যা এক বছর পেরিয়ে আসে। হেলমেট, ড্রাইভিং লাইসেন্স কিংবা গাড়ির কাগজপত্র সাথে নেই । এ নিয়ে অনেককে হয়রানীর স্বীকার হয়েছেন এমন অভিযোগ উঠেছে  ট্রাফিক সার্জেন্ট নুর ও এস আই নজরুলের বিরুদ্ধে।
কেউ নতুন বৌ নিয়ে স্ব-সুর বাড়ী যাচ্ছে নিমন্ত্রনে। আর কেউবা যাচ্ছেন করবানীর মাংস বিতরণ করতে স্বজনদের বাড়ীতে। কেউ রেহাই পাচ্ছেনা  এর নিষ্টুর আচরণ থেকে।  পুলিশের টার্গেট বয়স্ক ও সহজ স্বরল মটরসাইকেল চালক, যাদের মটর সাইকেলে বৌ বাচ্চা রয়েছে এবং যাদের সাথে বিতরণের মাংসের ব্যাগ রয়েছে।

রাজবাড়ীর মোস্তাকীন জানান, তিনি নতুন বিয়ে করেছেন বিরলের কালিয়াগঞ্জে। তাই নতুন বৌ নিয়ে স্বসুর বাড়ী যাচ্ছিলেন। পথে ট্রাফিক পুলিশ মটর সাইকেল আটক করে। নতুন বৌয়ের সামনে পুলিশের অপমান থেকে বাচার জন্য সে টাকা পুলিশের লাইনমেনকে দিয়ে পুণরায় বাড়ী ফেরত চলে আসেন।

রাণীরবন্দরের ঈদের নামাজে ইমামতি করে ২২ শত টাকা পান মৌলানা সামাত আলী হুজুর। মটর সাইকেল নিয়ে যাচ্ছিল বিরলের বানিয়া পাড়ায়। তার কাগজপত্র ড্রাইভিং লাইসেন্স সবকিছুই ঠিক ছিল কিন্তু হেলমেল্ট না থাকার কারণে তার নিকট ১হাজার টাকা চান পুলিেেশর লাইনমেন।  এক পর্যায়ে তিনি ৮শত টাকা দিয়ে মুক্তিপান।

এদিকে পুলিশ সার্জেন্ট নুর কে ঈদের দিন এ অভিযানের কারণ জানতে চাইলে তিনি জানান-এ অভিযান আমাদের উপর মহলের নির্দেশ। তিনি আরো জানান, এই অভিযানে ৫টি মামলা হয় ও ৩জন মটরসাইকেলে আহরণ করার জন্য ১০টি মটরসাইকেল আটক করা হয়। ঈদের দিন ট্রাফিক নুরের এই অভিযানের ফলে অনেকেরি ঈদ আনন্দ মাটির সাথে মিলে যায়।

ভুক্তভোগী মটরসাইকেল চালকদের অনুরোধ ঈদ, কুরবানী, দুর্গাপুজা, কালীপুজাসহ জনগণের বিশেষ আনন্দের দিনে মটরসাইকেল আটকের ঘটনা ও ঘুষ গ্রহনের ঘটনা যেন আর কখনও না ঘটে এবিষয়ে পুলিশ সুপার মহোদয়কে লক্ষ রাখার অনুরোধ জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা।

Spread the love