বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে কাঁঠাল পাতায় সুবিধা বঞ্চিত মহিলাদের ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়েছে

Kadal Pata Dদিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুর শহরের টিএন্ডটি মোড়ের রাসত্মায় কাঁঠাল পাতার হাট। এ কাঠাল পাতা বিক্রি করে   সুবিধা বঞ্চিত কয়েকজন মহিলা তাদের উপার্জিত অর্থ দিয়েই ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়েছে।

কাঁঠাল পাতা বিক্রির এ হাটটি গড়ে উঠেছে। শহরের বাহাদুর বাজার টিএন্ডটির মোড় দিয়ে কেউ হেটে গেলে কানে ভেসে আসবে ‘পাতা লাগে পাতা’। চারপাশ থেকে ডাকাডাকি ‘নেন ভাই পাতা নেন, দাম কম’।

ছাগলের উৎকৃষ্ঠ ও প্রিয় খাবার কাঠাল পাতা। শহরের বিভিন্ন এলাকার ছাগল পালনকারীরা এই কাঠাল পাতা কিনে নিয়ে যায়।

ক্রেতারাই নাম দিয়েছে কাঁঠাল পাতার হাট। এই হাটের বৈশিষ্ঠ হলো রোদ, বৃষ্টি, ঝড়সহ প্রাকৃতিক যত দূর্যোগই আসুক না কেন পাতার বাজার বসে প্রতিদিন। সকাল থেকে শুরম্ন করে মধ্যরাত পর্যন্ত চলে এই পাতার হাট।

কাঠাল পাতা বিক্রেতারা জানায়, এই পাতার বেচাকেনা করে ১৫/১৬জন নারী। তারা কোন না কোনভাবে সমাজে বঞ্চিত কিংবা স্বামী নির্যাতনের শিকার। তাদের সর্বনিম্ন পূজি ৩‘শ টাকা, আর সর্বোচ্চ এক হাজার টাকা।

পাতার বাজার শুরু হয়েছিল কবে সে বিষয়ে স্থানীয়দের কোন ধারণা নেই।

তবে পাতা বিক্রেতা নারী মহসিনা জানান, পাতা বিক্রির সঙ্গে সংযুক্ত আছেন ১৬ জনের মত। এরা প্রায় সকলেই এই ব্যবসা করছে ২০ বছর পূর্ব থেকে, তারও পূর্বে নাকি পাতা বিক্রি হতো স্বল্প পরিসরে। প্রতি পাতার আটি বিক্রি করে ৫ টাকা থেকে ২০ টাকায়। যা লাভ হয় তা দিয়েই চলে তার ৮ জনের সংসার।

সে তার ব্যাপারে জানায়, মহসিনার বাড়ী পঞ্চগড়ে। মেয়ের সুখের জন্য বাবা মা মহসিনাকে বিয়ে দেন স্থানীয় খুরশেদের সঙ্গে। বিয়ের পরই জুয়াড়ি স্বামীর অত্যাচার থেকে রক্ষা পেতে ছেলেমেয়ের নিযে মহসিনা চলে আসেন দিনাজপুরে। শুরু করেন পাতার ব্যবসা। সেই থেকেই মহসিনার চলে জীবন সংগ্রাম। পাতার ব্যবসার সঙ্গে সঙ্গেই বদলে যায় তার জীবনের পাতাটি।

বিক্রেতা রাশেদা বলেন, পাতা বিক্রি করে ছাওয়াল-পাওয়াল নিয়ে বাঁচতে পারি। রাশেদার বাড়ি ফরিদপুরের নগরকান্দায়। ১০ বছর বয়সে তার বিয়ে হয়। বাবার মৃত্যুর পরে স্বামী সালামের হাত ধরে চলে আসেন দিনাজপুরে। কোন কাজ না পেয়ে মাত্র ৩শ টাকা পূজিতে শুরু করেন পাতার ব্যবসা।

পাতা ব্যবসায়ী করিমন জানান, গ্রাম থেকে গাছের সমস্ত পাতা কিনে নিয়ে তারা বাজারে বিক্রি করেন। গাছ প্রতি তাদের কখনো ২শ আবার কখনো ৪শ টাকা লাভ হয়। তিনি জানান, যেসব গাছ কাঠ হিসেবে বিক্রি করা হয় কেবলমাত্র সেগুলো গাছের পাতাই কিনেন তারা। তাছাড়াও কখনো ঝড়ে গাছের ডাল ভেঙ্গে পড়লে সেগুলো কুড়িয়ে বাজারে বিক্রি করেন তারা। পাতা বিক্রির কাজ করেই তার পরিবারের ৪ জন সদস্য খেয়ে-পড়ে বেচে আছে। এ যেন অনেক অন্ধকারের মধ্যে একটু আলো।

পাতা কিনতে আসা শহরের বালুডাঙ্গার গোলাম মওলা জানান, শহরে ছাগলের খাওয়ার জন্য কোথাও কোন ঘাস কিংবা পাতা পাওয়া যায় না। তাই এ বাজার থেকেই কাঠাল পাতা ক্রয় করতে এসেছি। এ বাজার থাকায় সুবিধা হয়েছে।

এই বাজারে কোন প্রকার স্থান ভাড়া দিতে না হলেও এলাকার কিছু মাদকসেবী যুবক এসে ওইসব পাতা ব্যবসায়ীদের মাঝে মাঝে সমস্যা করেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email