রবিবার ৩ মার্চ ২০২৪ ১৯শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে ক্যাথিড্রাল ধর্মপল্লীর উদ্যোগে নারী দিবসের আলোচনা সভা

সাহেব,দিনাজপুর : নারী ক্ষমতায়ন ও মানবতার উন্নয়নের স্লোগান দিয়ে ও নারীরা অনেক ধৈর্যশীল ও পরিশ্রমী উল্লেখ করে বক্তারা বলেন, ১৮৫৭ সালে আমাদের বা, বোনেরা নির্যাতিত হতো ডেনমার্কে। ১৯৭৫ সালে বাংলাদেশে প্রথম নারী দিবস পালন করা হয়। বেগম রোকেয়া বলে গেছেন প্রতিটি নারীকে শিক্ষিত হতে হবে। রেজাল্ট-এর দিক দিয়েও প্রতিটি নারীরা এগিয়ে আসতে হবে। নারীরাই পারবে সমাজ ও পরিবেশকে সুন্দর করতে।

 

শুক্রবার ক্যাথিড্রাল প্যারিস কসবা প্রাঙ্গনে ক্যাথিড্রাল ধর্মপল্লী কসবা দিনাজপুরের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক নারী দিবস-২০১৫ এর আলোচনা সভায় বক্তারা উপরোক্ত এসব কথাগুলো বলেন।

 

ফাদার পাত্রাস হেম্ব্রম-এর সভাপতিত্বে ও আতিহা হেম্ব্রম-এর সঞ্চালনায় নারী দিবসের আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন প্রধান অতিথি বিশপ সেবাস্টিয়ান টুডু। এ ছাড়া বাইবেলে নারী অধিকার বিষয়ে আলোচনা করেন বিশেষ অতিথি ফাদার আলবিনুস টপ্য, নারীর ক্ষমতায়নের বিষয়ে মিসেস খ্রীষ্টীনা লাভলী দাস, নারীর মুল্যায়নের মিসেস মনিকা দাস,নারীদের স্বাস্থ্য বিষয়ক তুলে ধরেন সিস্টার কল্যাণী মূর্মূ ও সিস্টার আগষ্টিনা রোজারিও বক্তব্য রাখেন।

 

Charch Nariবক্তারা আরো বলেন, নারী আন্দোলন প্রতিষ্ঠা করতে হবে। বাংলাদেশে নানা প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বেও অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে নারীর অংশগ্রহণ বাড়ছে। কিন্তু অধিকারের ক্ষেত্রে সমতা আসেনি। চাকুরী ক্ষেত্রে নারী সমান সুযোগ থেকে বঞ্চিত। নিম্ন আয়ের শ্রমজীবীদের মধ্যে নারী পুরুষের চেয়ে কম মুজুরী পান। নারীর সমঅধিকারের বিষয়টিতে রয়েছে নারী-পুরুষের বিশ্বে সর্বজনীন প্রগতির প্রতিশ্রুতি। পরিবার সমাজ ও রাষ্ট্রের সর্বক্ষেত্রে সার্বিক দৃষ্টিভঙ্গীর পরিবর্তন আবশ্যক।

এর আগে সকাল ৯.৩০ মিনিটে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও র‌্যালীর মধ্যদিয়ে আন্তর্জাতিক নারী দিবস-২০১৫ শুরু করা হয়।

Spread the love