শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে গ্রাহকের টাকা নিয়ে ইন্সুরেন্সের প্রতারণা

দিনাজপুর প্রতিনিধি : দেশের বিভিন্ন স্থানে সঞ্চয়ী সংস্থা কিংবা লাইফ ইন্সুরেন্সের নামে চলছে প্রতারণা। জমাকৃত টাকার দ্বিগুন কিংবা ৩ গুন ফেরত দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে গ্রাহকের টাকা নিয়ে গা ঢাকা দিচ্ছে অনেক কোম্পানীই। নামে-বেনামে গড়ে উঠা এসব কোম্পানীই শুধু নয়, সরকার অনুমোদিত লাইফ ইন্সুরেন্সের নামেও চলছে প্রতারণা। এমনই ঘটনা ঘটেছে দিনাজপুরে। সরকারী অনুমোদিত সন্ধানী লাইফ ইন্সুরেন্সের নামে প্রতারণা করে গ্রাহকের প্রায় ১ কোটি টাকা নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় জনতার হাতে ২ ট্রাক মালামালসহ আটক হয়েছেন ব্যবস্থাপক ও অন্যান্য কর্মকর্তা। পরে তাদেরকে আটক করে নিয়ে যায় পুলিশ।

গ্রাহকরা জানায়, তাদেরকে বোঝানো হয়েছিল সন্ধানী লাইফ ইন্সুরেন্সে টাকা জমা দিলে ৩ বছরে দ্বিগুন ও ৫ বছরে ৩ গুন টাকা ফেরত দেওয়া হবে। শুধু তাই নয়, যখন ইচ্ছা তখনই জমাকৃত টাকা উত্তোলন করা যাবে আর বিভিন্ন রোগ কিংবা সমস্যায় তাদেরকে সাহায্য করা হবে। লোভনীয় এই অফারে দিনাজপুরসহ বিভিন্ন এলাকার প্রায় সাড়ে ৪শ’ গ্রাহক করে কোম্পানীটি। এর মধ্যে কারো কারো ৪ বছর/৫ বছর করে টাকা জমা হয়েছে। কিন্তু হঠাৎ করে ২৬ মার্চ বন্ধের দিনে কোম্পানীটির লিলি মোড়স্থ অফিসের বাইরে স্থান পরিবর্তণের দু’টি নোটিশ টাঙ্গিয়ে অফিসের আসবাবপত্রসহ পালিয়ে যাচ্ছিলেন ব্যবস্থাপকসহ অফিসের কর্মকর্তা/কর্মচারীরা। এ সময় দু’টি নোটিশে দু’টি ঠিকানা দেখে কয়েকজনের সন্দেহ হয়। পরে তারা কর্মকর্তা/কর্মচারীদের সাথে কথা বললে কথার অসংলগ্নতায় তাদেরকে ও ট্রাকের মালামালের গতিরোধ করে। পরে একে একে ঘটনা জানাজানি হলে সকল গ্রাহক এসে ব্যবস্থাপক রফিকুল ইসলামসহ সকলকে অবরোধ করে রাখে। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত তাদেরকে আটক করে রাখা হলেও ওই ব্যবস্থাপক ছাড়া অন্য কেউ গ্রাহকের টাকা দিতে রাজী হয়নি। এর মধ্যে ব্যবস্থাপকও গ্রাহকের টাকা গ্রহনের কথা অস্বীকার করেন। তিনি বলে টাকা তো কেউই আমাকে সরাসরি জমা দেয়নি। এতে করে গ্রাহকরা আরোও ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নিয়ে আসে। এ ব্যাপারে কয়েকবার স্থানীয় পর্যায়ে ওই অফিসের কর্মকর্তাদের সাথে গ্রাহকের টাকা ফেরতের বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা হলেও কোন প্রকার সমাধান হয়নি। ফলে রাতে পুলিশ ওই ব্যবস্থাপক রফিকুল ইসলামসহ ৩ জনকে থানায় নিয়ে যায়। এর মধ্যে ২ জনের সম্পৃক্ততা না থাকায় তাদেরকে ছেড়ে দেওয়া হলেও রফিকুল ইসলামকে আটক করে রাখা হয়।

গ্রাহক সামিউল ইসলাম, হাসনা বানু, সিরাজুলসহ অনেকে জানান, তাদেরকে লোভনীয় অফার দিয়ে এই কোম্পানীতে টাকা জমা দিতে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন কর্মকর্তা/কর্মচারীরা। কিন্তু হঠাৎ করেই তারা এখন পালিয়ে যাচ্ছে। স্থান পরিবর্তণ হচ্ছে একথা তাদেরকে জানানো হয়নি বলে গ্রাহকদের অভিযোগ।

Insurance Photo- (2)গ্রাহক বিলকিস ও সন্ধ্যা রানী জানান, ৩ বছর পরে টাকা ফেরত দেয়ার কথা থাকলেও তাদেরকে টাকা ফেরত দেয়া হচ্ছে না। বারবার তাদেরকে ঘোড়ানো হচ্ছে। দ্বিগুন কিংবা তিনগুন নয়, যে আসল টাকা জমা দিয়েছেন সেই টাকাই ফেরত চান গ্রাহকরা। এই অফিসটি চলে যাবে অনেক আগেই তারা জানতে পেরেছিলেন।

তবে এ ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে ব্যবস্থাপক রফিকুল ইসলাম জানান, তিনি অফিসের স্টাফ। কেউ তাকে সরাসরি টাকা জমা দেয়নি, তাই এই টাকার ব্যাপারে তিনি কিছু জানেন না। এ সময় তিনি সবার উদ্দেশ্যে বলেন অফিসের ম্যানেজার আসলে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা হবে। এ সময় তাকে ম্যানেজারের বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি জানান, তিনি ব্যবস্থাপক কিন্তু ম্যানেজার নন।

তিনি জানান, অফিসটি স্থানান্তরিত হয়ে সৈয়দপুরে যাচ্ছে। আর গ্রাহকদের টাকা গ্রহনের জন্য রামনগরে অফিস করা হয়েছে। নিজেদের কার্যক্রম সুবিধার জন্য অফিসটি স্থানান্তরিত করা হচ্ছে বলে জানান তিনি। এ বিষয়টি গ্রাহকরা জানেন বলে তিনি জানান।

এদিকে গ্রাহকের টাকা ফেরত দেয়া কিংবা কোম্পানীটি ভুয়া কিনা এ ব্যাপারে কথা বলতে রাজী হননি ঘটনাস্থলে আসা কর্মকর্তা।

 

কোতয়ালী থানার ওসি একেএম খালেকুজ্জামান জানান, বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। যদি গ্রাহকের টাকা নিয়ে পালিয়ে যাচ্ছে এই ধরনের বিষয় থাকলে এবং তারা যদি অন্যায় করে তাহলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

 

Spread the love