সোমবার ১৬ মে ২০২২ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে জেএমবির মামলায় সাক্ষ্য প্রদান : পরবর্তী তারিখ ৫ মে

দিনাজপুরে নিষিদ্ধ ঘোষিত ইসলামী জঙ্গি সংগঠন-জেএমবি সদস্যদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস দমন ও অস্ত্র আইনে দায়ের করা মামলায় ৩ জন স্বাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করেছে আদালত। মামলার বাকী ৩ জন স্বাক্ষীকে আদালতে হাজির হতে সমন জারির আদেশ প্রদান করা হয়েছে।
সোমবার দুপুরে ধার্য তারিখে দিনাজপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মো. মাহমুদুল করিম এর আদালতে নিষিদ্ধ ঘোষিত ইসলামী জঙ্গী সংগঠন-জেএমবির এহসার সদস্য শহিদুল ইসলাম (৫৮)কে হাজির করা হয়। এ সময় মামলার এজাহারকারী জয়পুরহাট র‌্যাব-৫এর এসআই আশরাফুল আলম ও কনস্টেবল আরিফ হোসেন ও ফারুক হোসেন সাক্ষী দেয়ার জন্য আদালতে হাজিরা দেন। এই ৩ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে। এই মামলার অপর স্বাক্ষী জয়পুরহাট র‌্যাব-৫ এর এএসআই নজরুল, সিপাহী আশরাফসহ ৩ জন সদস্যকে আগামী ৫ মে আদালতে হাজির হয়ে সাক্ষ্য দেয়ার জন্য র‌্যাব সদর দপ্তরের মাধ্যমে সমনজারী করার আদেশ দিয়েছে আদালত।
সন্ত্রাস ও অস্ত্র আইনে পুলিশ অভিযোগপত্রের তালিকাভুক্ত ৪ আসামীর মধ্যে গ্রেফতারকৃত ২ আসামী উত্তরাঞ্চলের সামরিক কমান্ডার রফিকুল ইসলাম ওরফে জোবায়ের ওরফে রাসেল ওরফে জসিম (৩০) ও এহসার সদস্য শাহিন হোসেন (২৯) গ্রেফতার হতে ঢাকা কাশিমপুর কারাগারে অপর মামলায় আটক থাকায় তাদেরকে আদালতে হাজির করা হয়নি। এই মামলার অপর ১আসামী সোহেল মাহফুজ ওরফে তুহির মামলা দায়েরের পর থেকে পলাতক থাকায় তার অনুপস্থিতিতে বিচার কাজ চলছে। পলাতক আসামী জেএমবির এহসার সদস্য ও বর্তমান জেএমবির ভারপ্রাপ্ত আমীর সোহেল মাহফুজ ওরফে তুহিরকে গ্রেফতার করতে ইতিপূবেই বিচারকের আদেশে পুলিশ সদর দপ্তরের মাধ্যমে দেশের সকল থানায় হুলিয়া গ্রেফতারী পরওয়ানা জারী করা হয়েছে।
বিকেলে আটক ১ জন আসামী শহিদুলকে কড়া পুলিশ পাহাড়ায় দিনাজপুর জেল কারাগারে প্রেরণ করা হয়।
উল্লেখ্য যে, গত ২০০৮ সালের ৩ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় জয়পুরহাট র‌্যাব ক্যাম্প-৫ এর অভিযানে দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার কশিগাড়ী গ্রামের কোরবান আলীর পুত্র জেএমবি’র এহসার সদস্য শহিদুল ইসলাম (৫৫)র বাড়ী তল্লাশী করে বিপুল পরিমান বোমা তৈরীর উপকরণ, জেহাদী বই, লিফলেট, গামবুটসহ তাকে গ্রেফতার করে। এ ঘটনায় ঘোড়াঘাট থানায় সন্ত্রাস দমন আইনে মামলা দায়ের করা হয়। গ্রেফতারকৃত শহিদুলের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী রাজশাহী বিভাগের জেএমবির সামরিক কমান্ডার নীলফামারী সদর উপজেলার সুখধনডাঙ্গা গ্রামের মোর্তুজা আলীর পুত্র রফিকুল ইসলাম ও সহযোগী শাহিন ও মাহাফুজ উদ্ধারকৃত আলামতগুলো গ্রেফতারকৃত শহিদুলের বাড়ীতে রেখে গেছে। পরবর্তীতে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ থানা পুলিশের হাতে রফিকুল এবং গত ডিসেম্বর মাসে ঢাকা সাভারে র‌্যাব সদস্যদের হাতে এহসার সদস্য শাহিন হোসেন গ্রেফতার হলে পুলিশ তাকে অত্র মামলায় গ্রেফতার করে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email