বুধবার ১৭ অগাস্ট ২০২২ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে দেখা মিলছে শীতের সকালের

মানিক চিরিবন্দর রানীরবন্দর প্রতিনিধি দিনাজপুর : হেমন্তের দিনগুলো শেষ না হতেই শীতবুড়ি এসে জবরদখল করে নেয় বাংলাদেশের প্রকৃতি। কুয়াশা কন্যারাও নির্জন বন, মাঠ আর নদীর কূলজুড়ে ছাউনি ফেলতে শুরু করে। ক্যালেন্ডারের পাতায় তখনও চুপচাপ ঝিমায় অগ্রহায়ণের শেষের দিনগুলো। উত্তর দিগন্তে হিমালয়ের বরফচূড়া থেকে ছড়িয়ে পড়ে শীতবুড়ির হিম শীতল নিঃশ্বাস। ধরণি হঠাত্ হয়ে পড়ে জড়সড়। বিবর্ণ হলুদ পাতারা চুপিসারে খসে পড়ে পথের ধুলায়।
শীতের দীর্ঘ রাত্রির কুয়াশার আবরণ গায়ে মেখে সুবহে সাদিকে ভেসে আসে আজানের ধ্বনি। তখন গাছে গাছে পাখিদের কলকাকলীতে ঘুম ভাঙে মানুষের। ঠাণ্ডা পানিতে অজু করে নামাজে দাঁড়ায় বড়রা। ছোটরা লেপের নিচে দাদা-দাদীর গা-ঘেঁষে গল্প করে, ছড়া কাটে মিষ্টি সুরে।

শীতের ভোরে পাখির ডাকে
ঘুম ভেঙে যায় যখন,
লেপের তলায় ছড়া কাটার
ধুম লেগে যায় তখন।

শীতের সকালগুলো সত্যি বড় বিচিত্র-মন ভোলানো। কৃষকরা সেই সকাল বেলা শীত উপেক্ষা করে লাঙ্গল-গরু নিয়ে ছোটে মাঠের দিকে। বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে গেলেই তারা হারিয়ে যায় কুয়াশার মধ্যে, গাছিরা খেজুর গাছ থেকে পেড়ে আনে রসের হাঁড়ি। গাছতলাতেই গাছের মালিকের সঙ্গে ভাগাভাগি করে রস। তারপর ভাগের রস বাঁকে করে ছোটে বাড়ির পথে। সেই সকালেই রস জ্বাল দিয়ে তারা তৈরি করে গুড় আর পাটালি।
পূর্ব আকাশে কুয়াশাঢাকা সূর্যের ম্লান মুখ। মরা রোদে উঠোনে পাটি বিছিয়ে ছেলেমেয়েরা কাঁচা রসে চুমুক দিয়ে কাঁপে থরথরিয়ে। তবু খেজুরের কাঁচা রস তাদের চাই-ই চাই। কোনো মা আবার সেই ভোরবেলা ওঠে ভাপা পিঠা তৈরি করে লেপ-কাঁথার নিচ থেকে ডেকে তোলেন তাদের ছেলেমেয়েদের। গরম পিঠার লোভে ছেলেমেয়েরাও হৈ হৈ করে ওঠে পড়ে বিছানা থেকে।
বাড়ির আঙিনায়, মাচার ওপর, খড়ের চালে শিশির ভেজা শিম, বরবটি, লাউ আর কুমড়ার গাছগুলো কী অপরূপ দেখায় শীতের সকালে। মাঠভরা সরিষার হলুদ ফুল মন কেড়ে নেয় প্রতিটি মানুষের। মটরশুঁটি আর সবুজ ঘাসের ডগায় ঝুলে থাকে শিশির বিন্দু। তেতে ওঠা একটুখানি মিষ্টি রোদে তা যেন মুক্তা হয়ে জ্বলে। তারপর ঝরে পড়ে মাটির কোলে।
সবুজ বাংলাকে ভালোবেসে অনেক কষ্টে প্রতি বছর একবার উড়ে আসে এখানে।
শীতের কুয়াশা আর শিশির বিন্দুর কথা বলতে গেলেই মনে পড়ে যায় বিশ্ব কবির সেই কটি লাইন—
বহু দিন ধরে বহু ক্রোশ দূরে—
বহু ব্যয় করি বহু দেশ ঘুরে—
দেখিতে গিয়েছি পর্বতমালা,
দেখিতে গিয়েছি সিন্ধু।
দেখা হয় নাই চক্ষু মেলিয়া
ঘর হতে শুধু দুই পা ফেলিয়া
একটি ধানের শীষের উপরে
একটি শিশির বিন্দু। তাই বুঝি শীতের সকাল দাগ কেটে যায় প্রতিটি মানুষের বুকের মধ্যে। আবার অপেক্ষায় বছর গড়ায়, নানান সাজে সাজা শীতের এমন মধুর সকালের জন্য।এক্কাদোক্কা এর আরও সংবাদ

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email