বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৫ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে নিরাপত্তার অভাবে ২ মাস ধরে বন্ধ ডেমু ট্রেন চলাচল বন্ধ

মোঃ আবেদ আলী, দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুরে অবরোধ ও হরতালে নাশকতার আশংকায় ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পর্যাপ্ত নিরাপত্তার অভাবে দিনাজপুরের পার্বতীপুর-ঠাকুরগাঁও ও পার্বতীপুর-লালমনিরহাট রেলপথে গত দুই মাস ধরে ডেমু ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে। ২০ দলীয় জোটের ডাকা অবরোধের প্রথম দিন থেকে অথাৎ গত ০৫ জানুয়ারি থেকে এই ট্রেন বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে অন্যান্য যাত্রীবাহী ট্রেনের চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। বন্ধ রাখা ডেমু ট্রেন পার্বতীপুর রেলওয়ে লোকো সেডে নিরাপদে রাখা হয়েছে। গত দুই মাস ধরে ডেম্যু ট্রেন বন্ধ থাকায় এই ট্রেনে চলাচলকারী যাত্রীসাধারণকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

জানা গেছে, নাশকতার আশংকায় চলতি সালের ৫ জানুয়ারি থেকে থেকে পার্বতীপুর-ঠাকুরগাঁও ও পার্বতীপুর-লালমনিরহাট রেলপথে আধুনিক মানের যাত্রীবাহী ডেমু ট্রেন বন্ধ রাখা হয়েছে। ডেমু ট্রেন বন্ধ থাকায় এই রেলপথে চলাচলকারী যাত্রী সাধারণকে চরম ভোগামিত্মতে পরতে হয়েছে।

স্থানীয় রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে এই ট্রেন বন্ধ রাখা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ পেলেই ট্রেন আবারও যথারিতি চলাচল করবে।

 

এ ব্যাপারে পার্বতীপুর রেলওয়ে থানার ওসি এ কে এম লুৎফর রহমান জানান, পুলিশি তৎপরতার কারণে এ পর্যন্ত এই এলাকায় নাশকতা মূলক কোনো কর্মকা- সংঘটিত হয়নি। তবে নাশকতার আশংকায় অত্যাধুনিক ডেম্যু ট্রেন রেলওয়ের কর্তৃপক্ষের নিদের্শে বন্ধ রাখা হয়েছে। এই ট্রেন চলাচল করলে অবশ্যই পুলিশি নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে।

২০১৩ সালের ২৭ আগস্ট মঙ্গলবার সকালে ঠাকুরগাঁও রেলওয়ে স্টেশন থেকে ট্রেন আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হয়ে পার্বতীপুর রেলওয়ে জংশন থেকে লালমনিরহাট অভিমুখে ছেড়ে যায়। পার্বতীপুর থেকে ঠাকুরগাঁও ৯৪ কিলোমিটার রেলপথের ৫টি রেলষ্টেশন চিরিরবন্দর, দিনাজপুর, সেতাবগঞ্জ, পীরগঞ্জ ও ঠাকুরগাঁও এ ডেমু ট্রেনটি যাত্রা বিরতি করে। এ ছাড়া পার্বতীপুর-লালমনির হাট রেলপথের ৫টি রেল স্টেশন খোলাহাটি, বদরগঞ্জ, রংপুর, কাউনিয়া ও লালমনির হাটে এ ট্রেনটি যাত্রা বিরতি করে। ঘন্টায় ৭০ কিলোমিটার গতি সম্পন্ন ৩শ যাত্রীর ধারণ ক্ষমতার ৩টি বগীর প্রতিটি ডেমু ট্রেনে ১৪৯ জন যাত্রীর বসার ও ১৫১ যাত্রীর দাঁড়িয়ে গন্তব্যে যাতায়াত ব্যবস্থা রয়েছে। পার্বতীপুর থেকে লালমনিরহাট পর্যন্ত টিকেটের মূল্য ৩৫ টাকা এবং দিনাজপুর পর্যন্ত টিকেটের মূল্য ১৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। অন্যান্য রেলষ্টেশনে টিকেটের মূল্য কমিউটার ট্রেনের টিকেটের হারে নির্ধারণ করা হয়েছে। এই ট্রেন ইতোমধ্যে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে এবং নির্ধারিত আসন ও দাঁড়িয়ে থাকা যাত্রীদের চেয়ে অনেক বেশি যাত্রী যাতায়াত করছে।

Spread the love