শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে পানির দাবিতে কৃষকদের দশমাইল-রংপুর মহাসড়ক অবরোধ

Chirirbandar সেলিনা রফিকুল, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে তিস্তা ক্যানেলে ইরি-বোরো ক্ষেতে সেচের পানির দাবীতে কৃষকরা দীর্ঘ ৫ঘন্টা সৈয়দপুর-দিনাজপুর মহাসড়ক অবরোধ করে। এ অবরোধের ঘটনাটি বুধবার উপজেলার আলোকডিহি ইউনিয়নের বেকিপুল নামক স্থানে হয়েছে।

অবরোধ সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বিকেল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত চলে। বর্তমান ভরা ইরি-বোরো মওসুমে দিনাজপুরের ডিসি-৮ ক্যানেলের শাখা ক্যানেলে পানি না থাকায় কৃষকরা ইরি-বোরো ক্ষেত নিয়ে মহা বিপাকে পড়েছেন। পানির অভাবে অনেক কৃষকের ক্ষেতের জমি ফেঁটে চৌচির হয়ে পড়েছে। ইরি-বোরোর আবাদ বিঘ্ন হওয়ার আশঙ্কায় কৃষকরা পানির জন্যে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। তাই কৃষকরা তিস্তা ক্যানেলে পানির দাবিতে দীর্ঘ ৫ঘন্টা সৈয়দপুর-দিনাজপুর মহাসড়ক অবরোধ করে।

গছাহার গ্রামের কৃষক জাকির হোসেন, ওসমান গণি, আ. রাজ্জাক, জসিমউদ্দিন, আলোকডিহি গ্রামের আনোয়ারুল ইসলাম, আ. হামিদ, আবু সুফিয়ান, সাইদুর রহমান, কিষ্টহরি গ্রামের আ. সালাম, মোত্তালেব হোসেন জানান- ইরি-বোরো মওসুমের শুরুতেই ঠিকাদার ক্ষেতে সেচের পানি  দেয়ার নাম করে বিঘা প্রতি ৮শ টাকা করে নিয়ে লাপাত্তা হয়েছেন। মওসুমের শুরুতে মাত্র ১বার পানি দেয়া হলেও আজ ২২/২৫দিন হলেও পানি দেয়া হয়নি। এতে ক্ষুদ্ধ হয়ে ক’টি গ্রামের কৃষকরা মহাসড়ক অবরোধ করে।

অবরোধের কারণে মহাসড়কের দু’ধারে শ’ শ যানবাহন আটকা পড়ে। ফলে দিনাজপুর, সৈয়দপুর, রংপুর, বগুড়া, ঠাঁকুরগাও, পঞ্চগড়গামী যাত্রীদের চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়। রংপুর অঞ্চলের বিএডিসির এক্সিউকিটিভ অফিসার মো. হানিফ কৃষকদের সঙ্গে আলোচনা করে কোন সমাধান করতে পারেননি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মিজানুর রহমান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আমিনুল ইসলাম এবং স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম তারিক কৃষকদের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক এবং উর্ধবতন কর্তৃপক্ষের নিকট আলোচনা করে আগামী রবিবারের মধ্যে পানি দেয়ার আশ্বাস ও কৃষকদের নিজস্ব উদ্যোগে বৈদ্যুতিক সেচ পাম্প বসানোর বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার আশ্বাস দিলে তারা অবরোধ প্রত্যাহার করে নেন।

উল্লেখ্য একই দাবিতে গত ৩ মার্চ কৃষকরা ফতেজংপুর ইউনিয়নের দেবীগঞ্জ বাজারে মহাসড়ক অবরোধ করলেও এখন পর্যন্ত ক্ষেতে কৃষকরা পানি পাননি।