মঙ্গলবার ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে ফলের গুটি পড়ে যাচ্ছে। ক্ষেতে পানি নেই। কৃষক চিমিন্ত

দিনাজপুর প্রতিনিধি : প্রচন্ড তাপদাহে দিনাজপুরে আম, লিচুর গুটি পড়ে যাচ্ছে, শুকিয়ে যাচ্ছে। নদীতেও পানি নেই। চলছে বিদ্যুতের লোড শেডিং। এর ফলে সাধারন মানুষের ঘরে থাকা দায় হয়ে দাড়িয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন ফসল আবাদে পানির সংকট দেখা দিয়েছে। এ তাপদাহে রেললাইনও বেকে যাওয়ায় কম গতিতে ট্রেন চলাচলের পরামর্শ দিয়েছে।

দিনে চকচকে রৌদ্র সঙ্গে প্রচন্ড গরম এবং রাতেও প্রচন্ড গরম অনুভুত হচ্ছে। আবহাওয়ার এ বিরুপ প্রভাব কৃষক মহলে হতাশা  এনে দিয়েছে।

একটানা খরা ও পর্যাপ্ত বৃষ্টি না হওয়ার কারনে শষ্য ভান্ডার হিসেবে পরিচিত দিনাজপুরের ১৩ উপজেলার অধিকাংশ জমিতে পানি না থাকায়  উৎপাদন হুমকির সম্মুখীন হয়েছে।

জেলার বিভিন্ন এলাকায় ক্ষেতের মাটি পানি অভাবে কোন কোন স্থানে লাল বর্ণ দেখা গেছে। এ দেখে কৃষকেরা চিন্তিত হয়ে পড়েছে। সেচ দিলেও পানি জমিতে শুকিয়ে যাচ্ছে। তাই সেচে কাজে খরচও বৃদ্ধি পাচ্ছে।

গত রবিবার সন্ধায় এক পশলা বৃষ্টি হলেও দিনাজপুরের চিরিরবন্দর, খানসামা, পার্বতীপুর, ফুলবাড়ী,বিরামপুর, ঘোড়াঘাট, হাকিমপুর, নবাবগঞ্জ, বীরগঞ্জ,কাহারোল, বিরল, বোচাগঞ্জ ও সদর উপজেলার উচু নীচু সব রকমের জমির পানি শুকিয়ে যাচ্ছে । তাই বার বার সেচ দিতে হচ্ছে চাষীকে।

জমির ফসল বাচাঁতে দিনরাত শ্যালো মেশিন, টিউবওয়েল ও ডিপটিউবওয়েল দিয়ে সেচ দিতে মরিয়া হয়ে উঠেপড়ে লেগেছে। আবার অনেকের এসব সেচযন্ত্র না থাকায় তারা আর্তনাদ করছে।

এদিকে, প্রচন্ড তাপদাহে পার্বতীপুর-খোলাহাটি রুটে রেল লাইন গত ২৫এপ্রিল দুপুরে খোলাহাটি রেল স্টেশনে দুই নাম্বার রেল লাইন বেকে যায়। এ ব্যাপারে খোলাহাটি রেল স্টেশন মাস্টার শফিউল আলম বলেন, দুপুর দেড় টা থেকে আড়াই টা পর্যমত্ম ঠান্ডা পানি দিয়ে ঢেলে বেকে যাওয়া রেল লাইন ঠিক করা হয়। তবে ট্রেন চলাচলে কোন বিঘ্ন সৃষ্টি হয়নি। তিনি বলেন, লালমনিরহাট কন্টোল রুম (ওপিটিএইট) অর্থাৎ দুপুর ১২টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যমত্ম ৪০ কিলো মিটার গতিতে চালানোর প্রত্যেক স্টেশন মাষ্টার বলা হয়েছে। ফলে স্টেশন মাষ্টার ড্রাইভার কে ট্রেন চলাচলে গতি সম্পর্কে অবগত করছেন।

জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা রেজাউল করিম জানান, এ তাপদাহে আম-লিচুসহ বিভিন্ন ফলের গোড়ায় রস শুকিয়ে যাওয়ায় পড়ে যেতে পারে। এতে উৎপাদন কম হবে। তবে বেশী করে সেচ দিতে বলা হয়েছে ওইসব চাষীদের।

তিনি জানান, ডিমলা- ডালিয়া তিসত্মা ব্যারেজ থেকে ক্যানালের মাধ্যমে চিরিরবন্দর উপজেলায় ৭২০ হেক্টর  জমিতে ইরি ধানের চাষ করা হচ্ছে। ক্যানেলে পানি না থাকায় বিদ্যুতের সাহায্যে পাম্প, স্যালো মেসশিন বসানো হয়েছে। তবে এ তাপদাহ অব্যাহত থাকলে ফসলের ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারে। তবে আমাদের আবহাওয়া অফিস জানিছেন এক সপ্তাহের মধ্যে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

দিনাজপুর পানি উন্নয়ন বোর্ড জানায়, কালের বির্বতনে ও নদী সংস্কারের অভাবে পূণর্ভবা, করতোয়া, আত্রাই, ঢেপা, গর্ভেশ্বরী, তুলাই, কাঁকড়া, ইছামতি, ছোট যমুনা, তুলসী গংগা, টাঙ্গন, নদীগুলো এখন পরিণত হয়েছে ধু ধু বালু চরে। দিনাজপুরের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ১৯টি নদীর দৈর্ঘ্য ৭২৪ কিলো মিটার। নদীগুলোর উৎস্য স্থল হিমালয় পর্বত। বৃষ্টি হচ্ছে না। আবার উজান থেকে কোন পানি নদী পথে না আসায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

চিরিরবন্দরের চাষীরা জানান, এ অঞ্চলে শুষ্ক মৌসুমে ডিপটিউবওয়েল ও স্যালো মেশিন চালুর কারণে ভু-গর্ভস্থ পানির সত্মর নীচে নেমে যাচ্ছে। এ কারণে চিরিরবন্দরের হাসিমপুর, উত্তর পলাশবাড়ী, দেউল, টগরবাড়ী, চক সন্নাসী গ্রাম এলাকায় টিউবওয়েলে পানিও  কম উঠছে। মাটি গর্ত করে নিচে স্যালো মেশিন বসিয়ে সেচ কাজে পানি উত্তোলন করা হচ্ছে।  এ তাপদাহ দীর্ঘায়িত হলে এসব অঞ্চলে সেচকাজেও পানি সংকট দেখা দিতে পারে।