শনিবার ২৫ মার্চ ২০২৩ ১১ই চৈত্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে বাংলাদেশ মহিলা পারিষদ ও ব্র্যাক আয়োজিত মতবিনিময় সভা

Mohila Porishodদিনাজপুর প্রতিনিধি : বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মালেকা বানু বলেছেন, আমরা হিন্দু বা মুসলমান যেমন সত্য তার চেয়ে বেশি সত্য আমরা বাঙ্গালী। এটি কোন আদর্শের কথা নয়,  এটি একটা বাস্তব কথা। ৩০ লক্ষ শহীদের আত্মদানের মাধ্যমে অর্জিত আমাদের সাম্প্রাদায়িক সম্প্রীতির বাংলাদেশ সবার । একটি গোষ্টীর সংকীর্ন স্বার্থের কারনে আমরা সাম্প্রাদায়িক সম্প্রীতি  বিসর্জন দিতে পারি না।

গতকাল শনিবার এফপিএবি মিলনায়তনে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ ও ব্র্যাকের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত ‘‘সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস প্রতিরোধ ও প্রতিকারের করণীয়’’ শীর্ষক মতবিনিময় সভায় মহিলা পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদক একথা বলেন।

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ দিনাজপুর জেলা শাখার সভাপতি কানিজ রহমান এর সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মালেকা বানু আরোও বলেন, ধর্মীয় মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক শক্তির যে উত্থান হয়েছে, তা একদিনে হয়নি। দীর্ঘ দিন ধরে রাজনৈতিক ও সামাজিকভাবে ধর্মকে ব্যবহার করে মানুষের মধ্যে সাম্প্রদায়িকতার প্রসার ঘটানো হয়েছে। সাম্প্রদায়িক শক্তি যেভাবে প্রচারনা চালাচ্ছে তার বিপরীতে আমরা যারা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে বিশ্বাস করি তারা যদি সকলে মিলে ঐক্যবদ্ধভাবে  গ্রাম গঞ্জের প্রতিটি স্থানে ও প্রতিটি ক্ষেত্রে ভবিস্যৎ প্রজন্মকে বলি এবং বার বার বলি তাহলে এদেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বৃদ্ধি পাবে।

মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ কেদ্রী্য় কমিটির আন্দোলন সম্পাদক কাজী সুফিয়া আক্তার, এ্যাডভোকেসী ডিরেক্টর জনা গোস্বামী, ব্র্যাকের জেন্ডার জাষ্টিস এন্ড ডাইভারসিটি কমিউনিকেশন ম্যানেজার চিররঞ্জন। প্রবন্ধ পাঠ করেন ব্র্যাক জেলা প্রতিনিধি মহসিন আলী, স্বাগত বক্তব্য রাখেন মহিলা পরিষদ জেলা শাখার সহ-সাধারণ সম্পাদক মনোয়ারা সানু। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক মারুফা বেগম। মতবিনিময় সভায় মুক্ত আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন আজহারুল আজাদ  জুয়েল, জিনাত রহমান, সালাহ উদ্দীন আহমেদ, সন্ধ্যা রাণী বাগচী, এ্যাড. সিরাজুম মুনিরা, আব্দূল জলিল আহমেদ, মোহাম্মদ আলতাফ হোসাইন, শফিকুল ইসলাম, নুরল মতিন সৈকত, ছবি সিনহা, তারেকুজ্জামান তারেক, তারিকুন বেগম লাবুন, এ্যাড. নাসিমা আক্তার, পরিমল চক্রবর্তী তপন, কাজী বোরহান, রবিউল আউয়াল খোকা, জেসমিন আরা জোসনা এবং আবুল কালাম আজাদ।

মতিবিনিময় সভায় বক্তারা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের মুল্যবোধ প্রতিষ্ঠার জন্য বাংলাদেশ থেকে সাম্প্রদায়িকতার  উচ্ছেদ ঘটনার কাজটাই সর্বাগ্রগণ্য বিবেচিত হওয়া উচিত। আমরা সেই ঐচিত্য বোধটাই বিসর্জন দিয়ে বসেছি। যে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠা, সেই বাংলাদেশের নামটি বোহাল রেখেও পাকিস্তান পন্থী তথা পাকিস্তানের দোষর সাম্প্রাদায়িকাবাদীরা এ দেশে যে প্রাকারান্তরে পাকিস্তানকেই ফিরিয়ে এনেছে, সেই সত্যটির দিক থেকে চোখ ফিরিয়ে রেখে প্রতিনিয়তই আত্মপ্রতারণা করে চলেছি আমরা।

অন্যদিকে গণপ্রতারক ও ধর্মন্ধতার ধারক অপশক্তিগুলো ক্রমেই দুঃসাহসী হয়ে উঠছে, রাষ্ট্রধর্মের দোহাই দিয়ে  অনায়াসে সে ধর্মের বিকৃতি ব্যাখ্যা হাজির করে দেশকে মধ্য যুগে ফিরিয়ে নেওয়ার কর্মসূচী নিয়ে মাঠে নেমেছে। এরই ধারাবাহিকতায় বিভি্ন্ন সময়ে দেশে সাম্প্রদায়িক হামলা ও সন্ত্রাস চালিয়েছে এদেশের অপশক্তিগুলো।