শনিবার ১৩ এপ্রিল ২০২৪ ৩০শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে বিএনপি’র যৌথকর্মী সভা পন্ড,স্থায়ী কমিটির সদস্য মাহবুবুর রহমানসহ আহত ১০

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুরে বিএনপি’র যৌথ কর্মী সভায় মঞ্চে বসাকে কেন্দ্র করে কেন্দ্রীয় নেতাদের সামনেই ত্রিমুখী সংঘর্ষে ঘটনা ঘটেছে। এই সংঘর্ষে যৌথ কমীসভা পন্ড হয়ে যায়। সংঘর্ষের সময় বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা সম্মেলন মঞ্চ ভাংচুর করে। সংঘর্ষের কারণে তাৎক্ষনিকভাবে যৌথ কর্মী সভা স্থগিত করা হয়। সংঘর্ষের ঘটনায় অত্মত ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।
এদিকে বিকেলে শহরের লুৎফুন নেছা টাওয়ারের নিকট বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে.জে. অব. মাহবুবুর রহমানকে বহনকারী প্রাইভেট কারে হামলা চালিয়ে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা তার গাড়ী ভেঙ্গে দিয়েছে। নেতাকর্মীদের হামলায় মাহবুবুর রহমান আহত হয়েছেন।
শুক্রবার সকাল ১০টায় দিনাজপুর লোকভবনে জেলা বিএনপি যৌথ কর্মী সভার আয়োজন করা হয়। এই কর্মী সভার প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দিতে আসেন বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক সেনা প্রধান লে. জেনা (অব.) মাহবুবুর রহমান, বিশেষ অতিথি বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মিজানুর রহমান মিনু ও প্রধান বক্তা রংপুর বিভাগীয় কমিটিন সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যক্ষ আসাদুল হাবিব দুলু।
১১টায় কর্মী সভা শুরু হওয়ার পর বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে কর্মী সভায় মঞ্চে বসাকে কেন্দ্র করে বিএনপি’র সভাপতি লুৎফর রহমান মিন্টু গ্রুপ ও সাধারন সম্পাদক মুকুর চৌধুরীর গ্রুপের নেতাকর্মীদের সাথে কথা কাটাকাটি হয় এক পর্যায় বেগম খালেদা জিয়ার ভাগিনা ও প্রয়াতমন্ত্রী শাহরিয়ার আখতার হক ডন গ্রুপ কর্মীর্ সভাস্থলে আসলে এক পর্যায়ে সেখানে ত্রি-মুখী সংঘর্ষ হয়। এ সময় বিএনপির নেতাকর্মীরা লাঠিসোটা ও ধারালো অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। সংঘর্ষে ৪জন আহত হয়। তবে বিএনপির নেতাকর্মীরা জানিয়েছে সংঘর্ষে উভয় গ্রুপের অত্মত ১৫-২০ জন আহত হয়েছেন।
অবস্থা বেগতিক দেখে বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক সেনাপ্রধান লে. জেনা (অব.) মাহবুবুর রহমান ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মিজানুর রহমান মিনুসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ দ্রুত সভাস্থল ত্যাগ করে চলে যান। এ সংবাদ লেখা পর্যত্ম জেলা বিএনপি’র কার্যালয়ের সামনে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছিল। বর্তমানে বিএনপি কার্যালয় জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল আলম গ্রুপের সমর্থকদের দখলে রয়েছে।
জুমার নামাজের পর জেলা বিএনপির সভাপতি লুৎফর রহমান মিন্টু’র মুন্সীপাড়াস্থ বাসায় গোপনে সংবাদ সম্মেলন শেষে বাসায় ফেরার পথে বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক সেনাপ্রধান লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমানের গাড়ীতে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা হামলা চালিয়ে তার গাড়ীর গ্লাস ভাংচুর করে। এ সময় পুলিশ বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীদের লাঠিচার্জ করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এ সুযোগে ড্রাইভার মাহবুবুর রহমানকে নিয়ে দ্রুত গাড়ী নিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ চলে যায়। পরে নেতাকর্মীরা মোটরসাইকেলযোগে শহরের ষষ্টিতলা মোড়ে গিয়ে আবারো মাহবুবুর রহমানের গাড়ীর গতি রোধ করে গাড়ীতে হামলা জালিয়ে তার প্রাইভেট কারের সব গ্লাস ভাংচুর করে। নেতাকর্মীদের হামলায় লে. জেনা (অব.) মাহবুবুর রহমানও আহত হয়েছেন।
বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা জানান, প্রয়াতমন্ত্রী খুরশিদ জাহান হকের বড় ছেলে শাহরিয়ার আক্তার হক ডনকে নিয়ে বিরুপ মত্মব্য করায় নেতাকর্মীরা তার গাড়ীতে হামলা চালিয়ে গাড়ী ভাংচুর করে তাকে আহত করে। শহরে বর্তমানে উত্তপ্ত পরিস্থিতি অবস্থা বিরাজ করছে। যেন কোন সময় উভয় গ্রুপের নেতাকর্মীদের মধ্যে বক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে। বিএনপি অফিসসহ শহরের বিভিন্ন স্থানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
এদিকে সংবাদ সম্মেলনে দাবী শুক্রবারের ঘটনার জন্য সরকারকে দায়ী করে বলা হয়, সরকারের ইন্ধনে বিএনপির যৌথকর্মী সভায় হামলা চালানো হয়েছে। এ ঘটনায় বিএনপির পক্ষ থেকে একটি তদত্ম কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদত্ম কমিটিকে আগামী সাত দিনের মধ্যে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে রিপোর্ট পেশ করতে বলা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক সেনাপ্রধান লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান, জেলা বিএনপির সভাপতি লুৎফর রহমান মিন্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক হাসানুজ্জামান উজ্জলসহ বিএনপির অন্যান্য নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

Spread the love