মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে বিভিন্ন স্থানে হামলা, ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ, মহাসড়ক অবরোধ

Dinajpur-13-12-13bp-01------দিনাজপুর প্রতিনিধি : জামায়াত নেতা আব্দুল কাদের মোলস্নার ফাঁসি কার্যকরকে কেন্দ্র করে দিনাজপুরে বিভিন্ন স্থানে হামলা, ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ ও সড়ক অবরোধ করেছে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা। এ সময় পুলিশের সাথে সংঘর্ষে অমত্মত ১৫ জন আহত হয়েছে।

চিরিরবন্দর উপজেলার ভূষিরবন্দরে জেলা বাস মালিক গ্রম্নপের সভাপতি ভবানী শংকর আগরওয়াল’র বাড়ীতে ৬টি বাসে অগ্নিসংযোগ করেছে দুর্বত্তরা। বৃহস্পতিবার রাতে দুবৃত্তরা আগরওযালের বাড়ীর পাশে থাকা ৫টি বাস ও ১টি পিকআপ ভ্যানে আগুন ধরিয়ে দেয়। এর প্রতিবাদে শুকবার থেকে জেলার সকল রম্নটে বাস মালিকরা বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে।

রাতে জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারী আব্দুল কাদের মোলস্নার ফাঁসি কার্যকরের খবর ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে দিনাজপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয়ের সামনে হামলা, ভাংচুর ও রাসত্মায় টায়ারে আগুন ধয়য়ে দেয় বিক্ষুব্ধ জামায়াত-শিবির কর্মীরা। এ সময় লোকজন আতঙ্কে দোকানপাট বন্ধ করে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যায়।

দিনাজপুর-৬ আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য আজিজুল হক চৌধুরীর নবাবগঞ্জ উপজেলার ভাদুরিয়া বাজারস্থ বাড়িতে হামলা চালায় জামায়াত-শিবির। তবে ঘটনার সময় আজিজুল হক বাড়িতে ছিলেন না। এছাড়া ওই এলাকার একটি ফিলিং স্টেশনে রাখা ৬টি ট্রাকে অগ্নিসংযোগ করে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা।

খানসামা উপজেলার নির্বাচন অফিসে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা হামলা চালায়। এ সময় পুলিশের সাথে সংঘর্ষে ঘটনায় কমপক্ষে ৬জন হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পলিশ ১৮ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এতে ৭ জন অঅহত হয়।

চিরিরবন্দর উপজেলার বিন্যাকুড়িহাটে ১৫টি দোকান, খানসামা উপজেলার পাকেরহাট এলাকায় আওয়ামী লীগ নেতার বাড়ি ও মার্কেটসহ শহরের বেশ কয়েকটি দোকানপাট ভাংচুর এবং অগ্নিসংযোগ করে বিক্ষুব্ধ জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অতিরিক্ত পুলিশ ও বিজিবি মোতায়েন করেছে স্থানীয় প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার রাতে রানীরববন্দরে মহাসড়কে গাছের গুড়ি ফেলে রাসত্মা অবরোধ করে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা। এছাড়া দশমাইল থেকে সৈয়দপুর রাবেয়া মোড় পর্যমত্ম, কামত্মজিউ মোড় থেকে তের মাইল মোড় পর্যমত্ম প্রায় ১০ কিলোমিটার রাসত্মায় গাছের গুড়ি ও ইটের গুড়ি ফেলে অবরোধেরর কারনে বিজিবি ও পুলিশের যৌথবাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌছাতে পারেনি।

খানসামা থানার ওসি কৃষ্ণ কুমার সরকার ও চিরিরবন্দর থানার ওসি আব্দুর রহমান জামায়াত-শিবিরের হামলা ও ভাংচুরের সত্যতা স্বীকার করে জানান, এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১২টায় দিনাজপুর-দশমাইল মহাসড়কে পলস্নী বিদ্যুত সমিতির অফিস সংলগ্ন এলাকায় দুর্বত্তরা একটি বাসে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নেভাতে সক্ষম হয়।

এদিকে শুক্রবার সকালে জেলা প্রশাসকের সাথে বাস মালিক নেতৃবৃন্দের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে জেলা প্রশাসক আহমদ শামিম আল রাজী বাস মালিক বাস চালানোর জন্য অনুরোধ করেন। কিন্তু মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ নিরাপত্তা না দিলে বাস চালানো সম্ভব নয় বলে জানিয়ে দেন। ফলে কোন ধরনের সিদ্ধামত্ম ছাড়াই বৈঠক শেষ হয়েছে। এই বৈঠকে পুলিশ সুপার সারোয়ার মুর্শেদ শামিম, জেলা বাস মালিক গ্রম্নপের সভাপতি ভবানী শংকর আগরওয়াল, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব বেলাল উদ্দীনসহ প্রশাসনের অন্যান্য কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

দিনাজপুর শহরসহ জেলার সর্বত্র আতঙ্ক বিরাজ করছে। স্বানীয় প্রশাসন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বিভিন্ন গুরম্নত্বপূর্ণ স্থানে র‌্যাব-পুলিশে পাশাপাশি বিজিবি মোতায়েন করেছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email