শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচার বিরোধী দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা

দিনাজপুর প্রতিনিধি : ‘‘মাদকাসক্তি প্রতিরোধ ও নিরাময় যোগ্য’’ এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে দিনাজপুরে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচার বিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস-২০১৪ উপলক্ষে আলোচনা সভা, সনদপত্র বিতরণ ও মাদক বিরোধী সংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকালে স্থানীয় লোকভবন মিলনায়তনে বাংলাদেশ ইয়ূথ ফার্ষ্ট কনসার্ন্স (বিওয়াইএফসি) এর আয়োজনে ও দিনাজপুর ক্লাবের সহযোগিতায় আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক আহমদ শামীম আল রাজী। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মোঃ রুহুল আমিন ও হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কীটতত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. মোঃ আব্দুল আহাদ। আলোচনায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ ইয়ূথ ফার্ষ্ট কনসার্ন্স (বিওয়াইএফসি)-এর জাতীয় পরিচালক ড. পিটার হালদার।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক আহমদ শামীম আল রাজী বলেন, কনসার্ট করে মাদক বন্ধ করা যাবে না। এমন একটি পন্থা বের করতে হবে যেটি মাদক হতে দূরে রাখবে। যারা মাদক সেবন করে তাদের সাথে মিলা যানে না। তিনি বলেন, এমন অনেক মানুষ আছেন যারা সমাজে ভাল মানুষ হিসেবে পরিচিত অথচ তারা মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। এসব মোনাফেক লোকদের থেকে দূরে থাকতে হবে। মাদক ব্যবসায়ীদের টাকা কাছে সবাই অসহায়। এর থেকে মুক্তি পেতে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তোলার কোন বিকল্প নেই।

পুলিশ সুপার মোঃ রুহুল আমিন বলেন, ২০১৩ সালের নভেম্বরে যে পরিমান ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়েছে, তার চেয়ে ৫ গুন বেশী ফেনসিডিল উদ্ধার হরা হয়েছে ২০১৪ সালের মে মাসে। তাই একক কোন বাহিনীর পক্ষে মাদকের ব্যবহার রোধ করা সম্ভব নয়। যদি না মাদক ব্যবহারকারীরা তা বন্ধ না করে। তিনি বলেন, প্রতিটি মানুষের মধ্যে ভাল মন্দ আছে। মানুষকে তার নিজের রিপুর বিরম্নদ্ধে যুদ্ধ করতে হবে। এই মানুষই ফেনসিডিল তৈরী করে অপর মানুষকে ধ্বংস করার জন্য। মাদককে পৃথিবী থেকে নির্মূল করা এটা খুবই বিপদজনক। তিনি মাদকসেবীদের বিরত রাখতে পরিবার ও সমাজকে দায়িত্ব নেয়ার আহবান জানান। তিনি বলেন, প্রত্যেককে যার যার অবস্থান থেকে সক্রিয় ভুমিকা রাখতে পারলে মাদকাসক্তি প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে।

অনুষ্ঠানে অংশগ্রহনকারীদের সচেতন করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ ওয়াইএফসি একটি সচেতনতামূলক উপস্থাপনা পরিবেশন করেন। পরিবেশনায় মাদকের প্রভাবে যে ক্ষতি সাধিত হয় তার একটি তুলে ধরা হয় এবং কিভাবে মাদক থেকে দূরে থাকা যায় সে সম্পর্কে পরামর্শ দেওয়া হয়।

আলোচনা সভা শেষে বাংলাদেশ ওয়াইএফসি’র মিউজিক টিম এক  মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও কনসার্ট পরিবেশন করে। পরে অনুষ্ঠানে মাদকাসক্তি প্রতিরোধে কাজ করার জন্য প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত বিওয়াইএফসি’র সেচ্ছাসেবকদের সনদপত্র বিতরণ করা হয়।

অনুষ্ঠানের সভাপতি ড. পিটার হালদার বলেন, মাদকাসক্ত ব্যক্তি খারাপ নয়, পাগল নয়, কিন্তু অসুস্থ এবং চিকিৎসাযোগ্য। এ বছরের প্রতিপাদ্য বিষয়ে তার প্রকাশ ঘটানো হয়েছে। যারা অসুস্থ বা মাদকাসক্ত তাদের চিকিৎসা দিয়ে সমাজে সম্মানজনকভাবে পূর্ণবাসিত করা এবং যারা সুস্থ আছেন তাদের সচেতন হওয়া একান্ত প্রয়োজন। তিনি উপস্থিত সকলকে সচেতন হওয়ার অহবান। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন শ্রেণিপেশার প্রায় ৩ শতাধিক লোক অংশগ্রহন করেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email