মঙ্গলবার ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে মুড়ি তৈরিতে ব্যবহৃত হচ্ছে বিষাক্ত হাইড্রোজ

Muriমাহে রমজানে ইফতারের প্রধান অনুষঙ্গ হচ্ছে মুড়ি। আর এ মুড়ির চাহিদা ব্যাপক হওয়ায় বৃহত্তর দিনাজপুরে এক শ্রেণীর অসাধু মুড়ি ব্যবসায়ী বিষাক্ত হাইড্রোজ মিশিয়ে তৈরি করছে মুড়ি। এ সব মুড়ি জেলার হাট-বাজারে অবাধে বিক্রি করছে।
মুড়ির চাল উৎপাদনে অন্যতম দিনাজপুর। জেলা শহরের রাজবাটী, মাতা সাগর, পুলহাট, ফুলবাড়ী উপজেলার আলাদীপুর, দাসপাড়া, পাকাপান ও বাড়াই গ্রামের শতাধিক পরিবার মুড়ি উৎপাদন ও ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। এরা এক সময় বিশুদ্ধ মুড়ি তৈরি করলেও বাজারে টিকে থাকতে এখন তারা ব্যবহার হাইড্রোজসহ ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য মেশাচ্ছেন মুড়ি তৈরিতে। সাধারণত মহিলারাই মুড়ি তৈরি থেকে শুরু করে বিক্রির কাজও করেন। তারা মুড়িতে হাইড্রোজ মেশানোর কথা স্বীকার করছেন। দিনাজপুর রেলবাজার হাটের মুড়ি বিক্রেতা অমিতা বালা জানালেন, ‘হামার করার কিছুই নাই। ভালা, সাদা দেখা না গেইলে মাইষে মুড়ি নেয় না। এ জন্যে আমরা মুড়িত হাইড্রোস দেই।’ দেখতে সাদা ও সুন্দর হওয়ায় ক্রেতারা আকৃষ্ট হচ্ছেন হাইড্রোজ মেশানো মুড়িতে।
ক্রেতারা না জেনেই কিনছেন হাইড্রোজ মেশানো বিষাক্ত মুড়ি। আর এ সব মুড়ি মানবদেহে ক্ষতিকর প্রভাব ফেলছে। মুড়ি কিনতে আসা ক্রেতা আবু সাঈদ জানান, আমরা তো আর ইচ্ছে করে এ সব মুড়ি নেই না। কোনটা ভালো, কোনটা খারাব আমরা তো আর জানি না।
দিনাজপুর জেলার ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন ডা. মাসতুরা বেগম জানালেন, হাইড্রোজ মিশ্রিত মুড়ি খেয়ে মানুষ উচ্চরক্ত চাপ, আলসার ছাড়াও মরণব্যাধী ক্যান্সারেও আক্রান্ত হচ্ছে।
হাইড্রোজ মিশ্রিত মুড়ি তৈরি ও বাজারজাতকরণে কঠোর হস্তক্ষেপের কথা জানিয়েছেন দিনাজপুর জেলা প্রশাসক আহমদ শামীম আল রাজী বলেন, আমরা শীঘ্রই এ ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা নেব।