মঙ্গলবার ১১ মে ২০২১ ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে রাজ্জাক বাহিনী’র রোষানলে দিশেহারা কয়েকটি পরিবার

স্টাফ রিপোর্টার,দিনাজপুর থেকেঃ দিনাজপুর পৌরসভার কথিত প্রধান প্রকৌশলী ভুমিদস্যু ও সন্ত্রাসী আব্দুর রাজ্জাক বাহিনী’র এর রোষানলে দিশেহারা হয়ে পড়েছে,বিরল উপজেলার বেশ কয়েকটি পরিবার।করোনাকালীন সময়েও সন্ত্রাসী বাহিনী’র সহায়তায় অন্যের পৈত্রিক জমি
জোরপূর্বক অবৈধ দখল অব্যাহত রেখছে। নিজের পৈত্রিক জমি দখলে বাঁধা দেয়ায় ভুমিদস্যু ও সন্ত্রাসী আব্দুর রাজ্জাক বাহিনীর ফিল্মী কায়দায় হামলা চালিয়ে বেশ কয়েকজনকে আহত করেছে। এর মধ্যে ৩ নারীসহ ৮ জন হাপাতালে ভর্তি রয়েছে। আহতদের মধ্যে দু’জনের অবস্থা আশংকাজনক।
এমনই অভিযোগ তুলে আজ সোমবার সকালে দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন ও পরে সংবাদ সম্মেলন করেছে,পৈত্রিক সম্পত্তি বেদখল হয়ে যাওয়া হামলা ও মামলার শিকার কয়েকটি পরিবার। সংবাদ সম্মেলনে মো.ফরহাদ হোসেন নামে এক ব্যক্তির লিখিত অভিযোগে জানা গেছে, আমি মোঃ ফরহাদ হোসেন (৪২), পিতা-মৃত মোঃ আব্দুল মালেক, সাং-মুরাদপুর (ডাঙ্গাপাড়া), থানা-বিরল, জেলা-দিনাজপুর, করোনা পরিস্থিতির ক্লান্তিলগ্নে ঘরে থাকতে না পেওে বাধ্য হয়ে সাংবাদিকদেও দ্বারস্থ হয়েছে। নাবালক ও এতিম অসহায়ত্বে সুযোগ নিয়ে তাদের পৈত্রিক সূত্রে প্রাপ্ত বিভিন্ন দাগে বেশ কিছু সম্পত্তি ভূমি দস্যু আব্দুর রাজ্জাক গং জোর পূর্বক অবৈধ দখল অব্যাহত রেখেছে। এর প্রতিবাদ করায় ভূমি দস্যু আব্দুর রাজ্জাক গং সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে তাদের উপর বেশ কয়েকবার হামলা এবং পরিবারের নারী ও পুরুষ সকলের বিরুদ্ধে একাধিক মিথ্যা,বানোয়াট মামলা করেছে। গত ১৬ এপ্রিল বিকেল আনুমানিক ৫ টায় লাঠি-সোটা,দা,কুড়াল ছোঁরাসহ ধারালো অস্ত্র সজ্জিত হয়ে ০১।মো.আব্দুর রাজ্জাক (৪৮),০২। মো.হাসান আলী, উভয় পিতা-মো.আশরাফ আলী,০৩। মো.কোরবান আলী (৪২) পিতা-মো. মোজাহার আলী,০৪। মো.মতিয়ার রহমান (৫৪) পিতা-মৃত-খতিব উদ্দিন,উভয় সাং-মুরাদপুর(ডাঙ্গাপাড়া),০৫।মো.মিজানুর রহমান (৪৫),পিতা মো. আব্বাস আলী,০৬। মো.উমর আলী(৫২) পিতা-মৃত- জব্বার আলী,উভয় সাং-দামাইল(সেনিয়াপাড়া), উভয়ের থানা-বিরল,জেলা-দিনাজপুরগণসহ করোনাকালীন লকডাউন পরিস্থিতিতেও স্বাস্থ্যবিধি না মেনে ৭০/৮০ জন সন্ত্রাসী এবং অসংখ্য রাজ মিস্ত্রী এবং শ্রমিক নিয়ে আমাদের বাড়ির অদুরে জমিতে জোরপূর্বক ইট দিয়ে প্রাচীন তুলার সময় ফরহাদ হোসেনের পরিবারের লোকজন তাদের বাঁধা-নিষেধ করলে তারা অতর্কিত তাদের উপর হামলা চালায়। এতে তিনি ও পরিবারের ৩ নারী এবং ৪ পুরুষসহ ৮ জন গুরুত্বর আহত হয়। যাদের মধ্যে ৪ জনকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল হাসপাতাল এবং ৩জনকে বিরল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদের মধ্যে দুই জনের অবস্থা আশংকাজনক।
ঘটনার পর ফরহাদ হোসেন এবং আমার বড় ভাই ফিরোজ হোসেন (৪৪),সুবিচারের আশায় বিরল থানায় অভিযোগ নিয়ে গেলে তাদের অভিযোগ না গ্রহণ করে থানায় ওসি সাহেবের রুমে বসে থাকা ভুমিদস্যু ও সন্ত্রাসী আব্দুর রাজ্জাকের কথা মতো তাদের দুই ভাইকে আটক করে। পরে ওই দিনেই আগের তারিখ দেখিয়ে ভুমিদস্যু ও সন্ত্রাসী আব্দুর রাজ্জাকের পিতা মো. আশরাফ আলীর দায়ের করা মিথ্যা,ভুয়া,বানোয়াট মামলায় তাদের গ্রেফতার দেখানো হয়। অন্যদিকে পুলিশ প্রভাবিত হয়ে তাদের পরিবারের অন্য সদস্যদের গ্রেফতার করার প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখে।
তার অভিযোগ পুলিশ গ্রহণ না করলেও ভুমিদস্যু ও সন্ত্রাসী আব্দুর রাজ্জাকের অবৈধ টাকা ও অদৃশ্য শক্তির ইশারায় তাদের পরিবারের সকল সদস্যের বিরুদ্ধে আেেরা মামলা দায়ের কেেরছে।
ফরহাদ হোসেন জানায়,ভুমিদস্যু ও সন্ত্রাসী আব্দুর রাজ্জাক দিনাজপুর পৌরসভার প্রধান প্রকৌশলী পরিচয় দেয়। বলে,“আমি পৌরসভার প্রধান প্রকৌশলী। শহরের বড় বড় যতো মাস্তান,ঠিকাদার সব আমার পকেটে। তারা সবাই আমার পৌরসভার কাজ নেয়ার জন্য আমাকে স্যার স্যার বলে। আমি যাই বলবো,তারা তাই করবে। সব অসম্ভবকে সম্ভব করা তাই আমার পক্ষে কোন ব্যাপারেই নয়।”
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ভুমিদস্যু ও সন্ত্রাসী আব্দুর রাজ্জাক দিনাজপুর পৌরসভার প্রধান প্রকৌশলী নয়,তিনি আসলে উপ-সহকারী প্রকৌশলী। ভুমিদস্যু ও সন্ত্রাসী আব্দুর রাজ্জাক এবং তার ভাতিজা মো.কোরবান আলীসহ তাদের পরিবারের সকলে জামায়াতের রাজনীতির সাথে জড়িত। জামায়াতকে অর্থ দিয়েও সহায়তা করেন,তারা।
এই আব্দুর রাজ্জাক দুর্দান্ত প্রকৃতির। তার বিরুদ্ধে এর আগেও ছিনতাই মামলা ও হামলার অভিযোগ রয়েছে। সুুপ্রিয় জাতির বিবেক সাংবাদিকবৃন্ধ,
অন্যদিকে তার কোন মোছাঃ শেফালী বানু (৪০) এর ক্রয়কৃত জমিতে বালু ও মাটি ভরাট করে ইট দিয়ে দোকান ঘর তৈরি কালীন ভুমিদস্যু ও সন্ত্রাসী আব্দুর রাজ্জাক গং তিন লাখ টাকা চাঁদা দাবী করে।চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে রাজ্জাক গং লাঠি-সোটা,দা,কুড়াল ছোঁরাসহ ধারালো অস্ত্র নিয়ে ১৮/০৪/২০২১,সকাল- সাড়ে ১০টায় দুলালী মার্কেটের সামনে তার বোন জামাই মো.আলম (৪৫) এরউপর হামলা চালায়। এলোপাথারী মারধর করে।
লিখিত অভিযোগে তিনি জানান,পৈত্রিক জমি অবৈধ দখলে বাঁধা দেয়ায় ভুমিদস্যু ও সন্ত্রাসী আব্দুর রাজ্জাক গং এভাবেই আমাদের উপর একের পর এক হামলা,মিথ্যা-বানোয়াট মামলা করে হয়রানী অব্যাহত রেখেছে। রাজ্জাক গং এর সন্ত্রাসী হামলার ভয়ে তারা চরমভাবে জীবনের নিরাপত্তাহীরতায় ভুগছে।মিথ্যা-বানোয়াট মামলায় গ্রেফতার এড়াতে পালিয়ে বেগাচ্ছে । করোনাকালীন পরিস্থিতেও ঘরে অবস্থান করতে পারছেনা তারা।
১৯ এপ্রিল সোমবার সকালে দিনাজপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে উপরোক্ত অভিযোগ করেন দিনাজপুরের বিরল উপজেলার মুরাদপুর (ডাঙ্গাপাড়া) গ্রামের মৃত আবদুল মালেকের ছেলে মোঃ ফরহাদ হোসেন।
সংবাদ সম্মেলনে সন্ত্রাসী হামলার শিকার মর্জিনা বেগম (৪০), নুর নেহার(৩৩) মোছা: সুমি(৩২), সেরাজুল ইসলাম(৩৭), মোঃ আলম (৪৪),রায়হান(২২),ফরমান (৩৪) ও ফিরোজ হোসেনসহ আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেরনের পূর্বে একই দাবীতে তারা প্রেসক্লাবের সামনের সড়কে ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন পালন করে।
আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সুদৃষ্টি কামনা করে ও ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের দাবী করেন তারা

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email