রবিবার ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে রাষ্ট্রপতি বরাবর কৃষকদলের স্মারকলিপি প্রদান

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর প্রতিনিধি : কৃষক উৎপাদিত ফসলের ন্যায্যমূল্যে দাবী এবং কৃষক ব্যবহৃত সার, বীজ, ডিজেল, কীটনাশকসহ কৃষি উপকরণের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে রাষ্ট্রপতি বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে দিনাজপুর জেলা কৃষকদল।

মঙ্গলবার দুপুরে কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে দিনাজপুর জেলা কৃষকদরের আহবায়ক আলহাজ্ব আফতাত উদ্দীন আহমেদ মন্ডল ও সদস্য সচিব আলহাজ্ব মাহবুব আহমেদ’র নেতৃত্বে কৃষকদলের নেতাকর্মীরা জেলা প্রশাসকের নিকট স্মারকলিপি হসত্মামত্মর করেন।

স্মারকলিপিতে উলেস্নখ করা হয়, বাংলাদেশের অর্থনীতি এবং শ্রমশক্তির সবচেয়ে বড় যোগানদার এ দেশের কৃষি ব্যবস্থা। দেশের ৮০ শতাংশ মানুষ এখনো প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে কৃষির উপর নির্ভরশীল। দেশের ৭০ শতাংশেরও বেশী জনশক্তি কৃষি কাজে নিয়োজিত আছে। দেশ যে বৈদেশিক মুদ্রা নিয়ে গর্ব করে তার ৯০ ভাগই আসে কৃষকের সমত্মানদের প্রেরিত অর্থ থেকে। দেশের সকল শিল্পপ্রতিষ্ঠানে সসত্মা শ্রমের যোগানও আসে কৃষকের সমত্মানদের মাধ্যমে। দেশের উৎপাদিত ও আমদানীকৃত সকল পণ্যের সবচেয়ে বড় ভোক্তাও কৃষক সমাজ। অথচ বাংলাদেশের কৃষককূল আজ দিশেহারা। তারা নানাভাবে বঞ্চিত ও নিগৃহীত। তাদের পাশে কথিক সরকারের কেউ দাড়াচ্ছে না।

স্মারকলিপিতে আরো উলেস্নখ করা হয়, বিগত সরকারের সময়ে ২০০৬ সালে প্রতি কেজি ইউরিয়া সার ৬ টাকা, টিএসপি ১৫ টাকা, পটাশ ১২ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। অথচ ২০১৪ সালে সেই বর্তমান সরকারের সময়ে ইউরিয়া ১৬ টাকা, টিএসপি ২২ টাকা ও পটাশ ১৫ কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এভাবে কৃষিপণ্যের প্রতিটি উপকরণের দাম বৃদ্ধির ফলে কৃষকরা আজ দিশেহারা হয়ে পড়েছে। অথচ কৃষকের উৎপাদিত ফসলের ন্যায্যমূল্য পাচ্ছে না কৃষকরা।

এ কারণে সারা দেশের কৃষক সমাজের পক্ষ থেকে জাতীয়তাবাদী কৃষকদল ১৩ দফা দাবী পেশ করেছে। এসব বাদীর মধ্যে রয়েছে আমনের ভরা মৌসুমে বাম্পার ফলনের পরও কৃষককে সর্বশামত্ম করার জন্য ভারত থেকে শুল্কমুক্ত চাল আমদানী অবিলম্বে বন্ধ করা, সরকারীভাবে সরাসরি কৃষকের নিকট হতে ন্যায্যমূল্যে চাল ক্রয় করা, ভারত থেকে ভূট্টা আমদানী বন্ধ করা, ডিজেলের মূল্য কমানো, হাটে ইজাদারের দৌরাত্ম বন্ধ করা, রবিশস্য পরিবহনের জন্য পথে পথে দলীয় চাঁদাবাজি ও পলিশী হয়রানী বন্ধ করা, অবিলম্বে নেরিকা ধানের চাষ বন্ধ করা, কৃষিতে ভুর্তকি বাড়ানো, বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধি না করা, প্রকৃত কৃষকের মাঝে কৃষি ঋৃন প্রদান ও ব্যাংক ঋনের ক্ষেত্রে ঘুষ ও দালালী বন্ধ করা, কৃষকের প্রতি হিংসা বন্ধ এবং ভারতীয় সীমামেত্ম বিএপএফ কর্তৃক গুলি করে নিরীহ কৃষক হত্যা বন্ধে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহন করা।

এসব দাবী বাস্তবায়নে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার দাবী জানানো হয়েছে স্মারকলিপিতে। স্মারকলিপি প্রদানের সময় অন্যান্যের মধ্যে কৃষকদল নেতা আলহাজ্ব মনসুর আলী, মোঃ আবু বকর সিদ্দিক, মোঃ রাউফুল ইসলাম, মোঃ খাদেমুল ইসলাম, মোঃ আমিনুর ইসলাম মুন্না, মোঃ সিদরাতুল ইসলাম বাবু, আলী আকবর, এস এম খালেদ, নুর আলম হক খোকন, নুরু বিডিআর, লিটন, দুলু, মনু, মহিলা কৃষকদল নেত্রী শাহজাদী, রোশনীসহ কৃষকদের অন্যান্য নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

Spread the love