বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরের বীরগঞ্জে পাল্টে গেছে বিএনপির সাংগঠনিক চিত্র মনজুরম্নল’র নেতৃত্বে নেতা-কর্মীরা চাঙ্গা \ পুলিশের পিটুনী ও গ্রেফতারের ঝুঁকি নিয়েও কর্মীরা আন্দোলন কর্মসুচীতে সোচ্চার

বীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ প্রায় এক যুগ পর নতুন নেতৃত্ব পেয়ে দিনাজপুর-১ বীরগঞ্জ-কাহারোল সংসদীয় এলাকার বিএনপির নেতাকর্মীরা নতুন করে চাঙ্গা হয়ে উঠেছে। বিএনপির সব ধরনের কর্মসুচী পালনে উপজেলা পর্যায়ে বীরগঞ্জ এখন অনেক এগিয়ে। হরতাল, মিছিল-মিটিং, অবরোধসহ দলীয় বিভিন্ন কর্মসুচী পালনে সোচ্চার ও সাহসী হয়ে উঠেছে এখানকার দলীয় নেতা-কর্মীরা। আর এর নেতৃত্বে রয়েছেন বীরগঞ্জ উপজেলা বিএনপির বর্তমান সভাপতি সমাজসেবী মনজুরম্নল ইসলাম।Monju

দীর্ঘ প্রায় দুই যুগ ধরে বীরগঞ্জ-কাহারোল সংসদীয় আসনে বিএনপির প্রার্থী সংকটের কারনে দু’বার জামায়াত প্রার্থী এবং দু’বার উড়ে এসে জুড়ে বসা বিএনপি প্রার্থী দিয়ে নির্বাচন করা হয়েছে। একবার জামায়াত প্রার্থী আব্দুলস্নাহ-হেল কাফি আওয়ামীলীগের অভ্যমত্মরীন কোন্দলকে কাজে লাগিয়ে জয়লাভ করলেও অন্য সময়ের প্রার্থীরা ব্যাপক ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে। বীরগঞ্জ ও কাহারোল উপজেলায় বিএনপির দুর্বল সাংগঠনিক অবস্থার কারনে রাজনৈতিক তৎপরতাও ছিল স্থিমিত। সাহসী নেতৃত্বের সংকটে বীরগঞ্জ উপজেলায় বিএনপির তৃণমূল পর্যায়ের কর্মীরাও ছিল হতাশায়। রাজনৈতিক কর্মসুচী পালনে কেউ ঝুকি নিতে এগিয়ে আসেনি। ফলে দলের ঘোষিত অনেক কর্মসুচী এতদিন এখানে দায়সারাভাবে পালন করা হয়েছে।

বীরগঞ্জে এখন পাল্টে গেছে বিএনপির সাংগঠনিক চিত্র। বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে বিভিন্ন কারণে ইমেজ এবং অসিত্মত্ব সংকটে বীরগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক অবস্থা নাজুক হয়ে পড়ে। ২০০৮ সালের অনুষ্ঠিত জাতীয় নির্বাচনে ভরাডুবির পর দলকে সুসংগঠিত করার লক্ষে বেশ কিছু কর্মসূচী গ্রহণ করেন দলীয় চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। তারই ধারাবাহিকতায় গত ২০০৯ সালে ২৩ নভেম্বর বীরগঞ্জে বিএনপির সম্মেলনে সরাসরি তৃণমূল নেতাদের ভোটের মাধ্যমে বিপুল ভাবে বিজয়ী হয়ে বিএনপির সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণ করেন বিশিষ্ট সমাজ সেবক আলহাজ্ব মনজুরম্নল ইসলাম মনজু।

মনজুরম্নল ইসলাম বীরগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি নির্বাচিত হবার পর তার নেতৃত্বে চাঙ্গা হয়ে উঠেছে নেতা-কর্মীরা। পুলিশের পিটুনী আর গ্রেফতারের ঝুকি অমান্য করে বিএনপির নেতা-কর্মীরা এখন বীরগঞ্জে হরতাল, মিছিল-মিটিং, অবরোধসহ দলীয় বিভিন্ন কর্মসুচী পালনে সোচ্চার। আর প্রতিটি কর্মসুচীতে সাংগঠনিক নেতৃত্ব অব্যাহত রেখেছেন সভাপতি মনজুরম্নল ইসলাম।

মনজুরম্নল ইসলাম বিএনপির নেতৃত্বে আসার পর সাংগঠনিক তৎপরতার পাশাপাশি বীরগঞ্জ ও কাহারোল উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ব্যাপক গনসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। রাজনৈতিক কর্মকান্ড ছাড়াও তিনি ওই দুই উপজেলায় বিভিন্ন সমাজ সেবামূলক কাজও করছেন। মসজিদ, মন্দির, মাদরাসাসহ বিভিন্ন সমাজসেবী সংগঠনকে আর্থিক সহায়তা প্রদানসহ বিভিন্ন কর্মকান্ডের মধ্য দিয়ে মনজুরম্নল ইসলাম বীরগঞ্জ ও কাহারোল উপজেলায় রাজনৈতিক পরিচয়ের বাইরে সমাজসেবী হিসাবেও ব্যাপক পরিচিতি পেয়েছেন। প্রতি বছর শীতার্ত মানুষের মাঝে হাজার হাজার শীত বস্ত্র বিতরণ করে সর্ব মহলে যেমন প্রশংসীত হয়েছেন, তেমনি তিনি সমাজ সেবায় এলাকায় নজির স্থাপন করেছেন। এ কারণে এলাকার সাধারণ মানুষের ধারণা যদি মনজুরম্নল ইসলাম ১৮দলের পক্ষে ধানের শীষ মার্কা নিয়ে আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহন করেন তাহলে বিপুল ভোটের বিজয়ী হবেন। বীরগঞ্জ-কাহারোল এলাকার বিএনপি নেতৃবৃন্দের একই ধারনা পোষন করে জানান আগামী নির্বাচনে এই নির্বাচনী এলাকায় উপজেলা বিএনপির সভাপতি মনজুরম্নল ইসলাকে ধানের শীষ মার্কা দিয়ে ১৮দলের প্রার্থী হিসেবে মনোনিত করার জন্য দলীয় চেয়ারপার্সনের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email