শনিবার ২৮ জানুয়ারী ২০২৩ ১৪ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে শৈত্য প্রবাহ অব্যাহত। দূর্ভোগে শ্রমজীবী ও ছিন্নমূল মানুষ

দিনাজপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুরে শৈত্য প্রবাহ অব্যাহত রয়েছে। শৈত্য প্রবাহের কারণে প্রচন্ড শীত ও ঘনকুয়াশায় জনজীবন বিপর্যস্ত হয়েছে পড়েছে।

দিনাজপুরে গতকাল শনিবারও সারা দিন সূর্যের মুখ দেখা মেলিনে। শৈত্য প্রবাহের কারনে শীতে শিশু, বৃদ্ধসহ সব বয়সের মানুষ  কাবু হয়ে পড়েছে। কনকনে শীতে মানুষ লোকজন ঘর থেকে বের হতে পারছে না। বিশেষ করে শ্রবজীবী মানুষরা পড়েছে চরম বিপাকে। শীতের কারণে কাজ করতে না দারুন কষ্ঠে দিন যাপন করছে। শীতে মানুষের পাশাপাশি গবাদি পশুরাও কাহিল হয়ে পড়েছে।

ঘনকুয়াশার কারণে যানবাহন চলাচরৈ বিঘ্ন ঘটছে। যানবাহনের সামনে ৩/৪ ফুটের বেমী দেখা যাচ্ছে না। ফলে যানবাহনগুলোকে দিনের বেলায় রাসত্মায় হেড লাইট জ্বালিয়ে চলাচল করতে দেখা গেছে।

এছাড়া তীব্র শীতে পুরাতন কাপড়ের দোকানসহ অন্যান্য দোকানে ক্রেতাদের ভীড় বেড়েছে। দোকানীরা ক্রেতাদের চাহিদা মত শীত বস্ত্র সরবরাহ করতে ব্যসত্ম সময় পার করছে। ক’দিন আগে অরবোধ ও হরতালের কারণে বিক্রেতাদের যে ক্ষতির সম্মূখিন হয়েছিল সেই ক্ষতি অনেকটা পুষিয়ে নিতে সক্ষম হবে বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা।

দিনাজপুর আবহাওয়া অফিসের পর্যবেক্ষক মোঃ আশিকুর রহমান জানান, গতকাল শনিবার দিনাজপুরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা সকাল ৯টায় ৭ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তিনি বলেন, এর পর দিনের বেলায় কিছু বেড়ে যায়। তবে সন্ধ্যার পর আবার তাপমাত্রা কমে যায়।

এদিকে শীতের কারণে এই দিনাজপুরে শীতজনিত রোগের প্রাদুর্ভাব ঘটেছে। গতকালও নিউমোনিয়া, ডায়রিয়া, শ্বাসকষ্টসহ শীতজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রামত্ম হয়ে দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালসহ অন্যান্য হাসপাতাল ও বেসরকারী ক্লিনিকে শতাধিক শিশু ভর্তি হয়েছে বলে সংশিস্নষ্ট সুত্রে জানা গেছে।