বৃহস্পতিবার ২৩ মার্চ ২০২৩ ৯ই চৈত্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে সওজ বিভাগের কর্মচারীদের ৪ দফা দাবীতে যোগাযোগ মন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান

Roadদিনাজপুর প্রতিনিধি : ৪ দফা বাসত্মবায়নের দাবীতে দিনাজপুর সওজ বিভাগের ওয়ার্কচার্জড কর্মচারীদের বিক্ষোভ মিছিল ও জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে যোগাযোগ মন্ত্রী ও যোগাযোগ সচিব বরাবর স্মারকলিপি প্রদান।

গত রোববার বেলা ১১টায় ৪ দফা বাস্তবায়নের দাবীতে দিনাজপুর সওজ বিভাগের ওয়ার্কচার্জড কর্মচারীদের যোগাযোগমন্ত্রী ও যোগাযোগ সচিব বরাবর প্রেরিত স্মারকলিপি গ্রহণ করেন দিনাজপুর জেলা প্রশাসক আহমদ শামীম আল রাজী।

স্মারকলিপি প্রদান কালে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সড়ক ও জনপদ শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়ন দিনাজপুর জেলা শাখার সভাপতি আবু আনোয়ার মোঃ সোহেল করিম, সাধারণ সম্পাদক মোঃ আব্দুল মান্নান সরকার, সংগঠনের উপদেষ্ঠা মোঃ ছিদ্দিক হোসেন, সহ-সভাপতি আব্দুল হাই গাজী, সাইফুল ইসলাম, মাঃ ওহাব আলী, লুৎফর রহমান, যুগ্ম সম্পাদক শাহাজান ইসলাম, কোষাধ্যক্ষ আঃ মতিন, সদস্য আঃ মান্নান, লিয়াকত আলী প্রমুখ।

যোগাযোগ মন্ত্রী ও যোগাযোগ সচিব বরাবর প্রেরিত স্মারকলিপিতে বলা হয় ।  বাংলাদেশ সড়ক ও জনপদ শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়ন, রেজিঃ নং-বি-১৮৭০ (জাতীয় শ্রমিকলীগের অন্তর্ভুক্ত) এর পক্ষ হতে আপনার সদয় অবগতির জন্য জানাইতেছি যে, সুদীর্ঘ কাল ধরে সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তর একমাত্র সরকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে ১৬ কোটি মানুyুষর সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা বিনির্মানে নিরলসভাবে কাজ করে আসছে। অধিদপ্তরের সাংগঠনিক কাঠামোতে ৩য় ও ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের রাজস্ব খাত ভুক্ত মঞ্জুরীকৃত পদের সংখ্যা ৭ হাজার ৮৩৬টি । তম্মধ্যে ৬ হাজার ৭৯টি পদ দীর্ঘদিন যাবৎ শুন্য রয়েছে। আগামী ১/২ বছরের মধ্যে অধিদপ্তরের নিয়মিত কর্মচারীগণ সবাই অবসরে যাবেন। অতীব দুঃখের সাথে আপনাকে জানাচ্ছি যে, অধিদপ্তরের প্রতিষ্ঠা লগ্নে মাত্র ৬ হাজার কিলোমিটার সড়ক দিয়ে শুরম্ন করা হয়। সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তরের নিয়ন্ত্রনাধীনে বর্তমানে ২২ হাজার ৫শ কিঃ মিঃ এর অধিক সড়ক নির্মাণ, রক্ষনাবেক্ষন, ফেরি পরিচালনা, রক্ষনাবেক্ষন, সহশ্রাধিক গাড়ী চলাচল, মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষনে অত্র অধিদপ্তরে কর্মরত ৭ হাজার ৫৯ জন ওয়ার্কচার্জড কর্মচারী মুলভুমিকা পালন করে আসছে। অর্থ্যাৎ অত্র দপ্তরের প্রায় সকল কর্মকান্ড উলে­খিত জনগনের উপর নির্ভরশীল। উলে­খ যে, ১৯৭৮ সালের পর হতে দু’একটি টেকনিক্যাল পথ ছাড়া এ পর্যন্ত নিয়মিত শুন্য পদে কোন লোকবল নিয়োগ না করার কারণে শুন্য পদের বিপরীতে ৭ হাজার ৫৯ জন ওয়ার্কচার্জড কর্মচারী দীর্ঘ ২৫/৩০ বছর যাবৎ মাঠ পর্যায়ে কাজ তদারকিসহ ফেরি ও ফেরিঘাট পরিচালনা, গাড়ী যন্ত্রপাতী পরিচালনা, সওজ এর বিভিন্ন যান্ত্রিক কারখানার গাড়ী যন্তপাতী সচল রাখা, মাঠ পর্যায়ে নির্মাণ কাজের মান নিয়ন্ত্রণ, বৃক্ষায়ন ইত্যাদি দায়িত্বসহ বিভিন্ন দপ্তরে নিয়োজিত থেকে অধিদপ্তরের উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে। দীর্ঘ দিন যাবৎ একই ধরনের কাজ করার কারণে এই সকল ওয়ার্ডচার্জড কর্মচারীগণ স্ব স্ব ক্ষেত্রে পুর্ন দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা অর্জণ করেছে। এদিকে প্রতিমাসেই বাংলাদেশের কোন কোন সড়ক বিভাগের দপ্তরে প্রতিনিয়ত ওয়ার্কচার্জড কর্মচারীদের মৃত্যুর খবর পাওয় যায় এবং  অনেক ওয়ার্কচার্জড কর্মচারী ৬০ বছর চাকুরী করে শুণ্য হতে অবসরে চলে যাচ্ছেন এবং অনেকে অবসরে দার প্রান্তে উপনীত। অনেক সময় মৃত ওয়ার্কচার্জড কর্মচারীদের লাশ দাফনের জন্য গ্রামের বাড়ীতে পাঠানো কোন ব্যবস্থা থাকেনা। যা আমাদের জন্য অত্যমত্ম দুঃখজনক এবং কোনভাবেই কাম্য নয়। এ সকল ওয়ার্কচার্জড  কর্মচারী মৃত্যুজনিত বা অবসরে যাবার কারণে পারিবারিক পেনশন হতে বঞ্চিত হচ্ছে। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় ওয়ার্কচার্জড হিসাবে অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারীরা জীবন ধারনের জন্য ভিক্ষাবৃত্তির পথও বেছে নিতে বাধ্য হন। পরিবারের সদস্যরা তাকে সংসারের বোঝা হিসেবে গন্য করেন।

৪ দফা দাবী সমুহঃ ১। সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তরের ২০/৩০ বছর যাবত কর্মরত ৭০৫০ জন ওয়ার্কচার্জড শ্রমিক কর্মচারীদের বিশেষ বিবেচনায় শুন্য পদের বরাবরে নিয়মিত করণের লক্ষ্যে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী কার্যালয়ের ০১ আগস্ট ২০১২ ইং তারিখের সিদ্ধান্ত এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জন প্রশাসন বিষয়ক উপদেষ্ঠা এইচটি ইমাম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত গত ১৮ ফেব্রুয়ারী  ২০১৩ ইং তারিখের সভার সিদ্ধান্ত দ্রুত বাস্তবায়ন। ২। সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তরের মৃত/অবসরে যাওয়া ওয়ার্কচার্জড শ্রমিক কর্মচারীদের জন্য পারিবারিক পেনশন প্রথা চালু করা। ৩। ওয়ার্কচার্জড কর্মচারীদের নিয়মতি করার পর অধিদপ্তরে মাষ্টার রোলে কর্মরত কম্পিউটার অপারেটরদেরকে নিয়মিত সংস্থাপনে আনয়ন এবং ৪। বিভিন্ন পদে দৈনিক হাজিরা ভিত্তিতে কর্মরত কর্মচারীদেরকে জাতীয় বেতন স্কেলের (ভাতাসহ) সমানুপাতিক ভিত্তিতে দৈনিক মজুরীর হার নির্ধারণ।