মঙ্গলবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ১১ই আশ্বিন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে সড়ক-মহাসড়কে জেবরা চিহ্ন না থাকায় প্রতিনিয়ত ঘটছে সড়ক দূর্ঘটনা

দিনাজপুর প্রতিনিধি:canstock15199229 দিনাজপুরের বিভিন্ন সড়ক ও মহাসড়কে স্পীড ব্রেকারে জেবরা চিহ্ন বা সাদা দাগ না থাকায় প্রতিনিয়ত ঘটছে সড়ক দূর্ঘটনা। এতে প্রাণ হারাচ্ছে শত শত মানুষ। সড়ক বিভাগের অবহেলা ও অবজ্ঞার কারনে সড়ক ও মহাসড়কে এসব দূর্ঘটনা ঘটছে। দিনাজপুরে আমত্মঃজেলা ও সড়ক-মহাসড়কের কোন স্থানেই জেবরা চিহ্ন বা সাদা দাগ নেই। ফলে শীত মৌসুমে কুয়াশার কারণে রাসত্মা দেখতে না পেরে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে গাড়ী চালকরা। এসব দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেতে হলে দ্রম্নত সড়ক ও মহাসড়কে জেবরা ক্রসিং বা সাদা দাঁগ দেয়া প্রয়োজন।  সময় মতো ব্যবস্থা না নিলে দুর্ঘটনার সংখ্যা বেড়ে প্রাণহানীর ঘটনা ঘটবে। সড়ক ও মহাসড়কের মাঝখানে ও দু’পাশে সাদা দাগ টেনে দেয়া হয় চালকের সুবিধার্থে। কারন কুয়াশাতে চালক ২ফুট সামেনও দেখা পায়না। এ সময় সময় সড়কের সাদা দাগগুলো গাড়ী চালককে যানবাহন চলাচলে সহায়তা করে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য কোন সড়ক বা মহাসড়কে সাদা দাগ নেই। এমনকি স্পীড ব্রেকারেও কোন প্রকার সাদা জেবরা  দেয়া নেই। ফলে যানবাহন চালকরা বুঝতে পারেনা এখানে স্পীড ব্রেকার আছে কি না? এছাড়া সড়ক-মহাসড়কে সাদা দাগ না থাকায় চালক রাসত্মার আশপশ দেখতে না পেরে রাসত্মার পাশের খাদে উল্টে পড়ে পড়ায় শতশত যাত্রী অকালে প্রাণ হারাচ্ছে।

দিনাজপুর-ঢাকা, দিনাজপুর-ঠাঁকুরগাও ও দিনাজপুর-সৈয়দপুর সড়কসহ জেলার কোন সড়কের কোথাও সাদা দাগ নেই। এমনকি স্পীড ব্রেকারগুলোতে জেবরা চিহ্নও নেই। ফলে অহরহ ঘটছে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। এসব দুর্ঘটনায় পঙ্গু হচ্ছে ও প্রাণ হারাচ্ছে শতশত মানুষ। পরিবহন মালিকরা কোটি কোটি টাকা ক্ষতির সম্মূখীন হচ্ছেন। কিন্তু সড়ক বিভাগের সেদিকে কোন নজর নেই।

হানিফ কোচের চালক সোহেল, তুহিনসহ কয়েকজন চালক জানান, ‘‘শীত মৌসুমে প্রচন্ড কুয়াশায় বাস ও ট্রাক চালানোর সময় রাসত্মা দেখা যায় না। ফলে চালক ভুল করে সড়কের পাশে চলে যায় এবং বাস বা ট্রাক উল্টে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে। প্রাণ হারায় অনেক যাত্রী। বিষয়টি সড়ক বিভাগের দৃষ্টিতেও পড়ে কিন্তু কোন ব্যবস্থা নেয় না। শীত মৌসুম শুরম্ন হয়েছে অত্যমত্ম ঝুকি নিয়ে চালকরা বাস ও ট্রাক নিয়ে রাসত্মায় নামে। সড়কের মাঝে ও দু’পাশে সাদা দাগ কাটা থাকলে প্রায় ৩ ভাগ দুর্ঘটনা কমে যাবে। রক্ষা পাবে শতশত যাত্রী ও চালকের জীবন।’’

তাই যাত্রী ও চালকের জীবন রক্ষায় অবিলম্বে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য যোগাযোগ মন্ত্রনালয় ও সড়ক বিভাগের দ্রম্নত হসত্মক্ষেপ কামনা করেছে সাধারন মানুষ।

Spread the love