মঙ্গলবার ১৬ অগাস্ট ২০২২ ১লা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে ১ হাজার ১৮২টি পুজা মন্ডপে দুর্গাপূজা’র আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু

বীরগঞ্জ প্রতিদিন : দেবি বোধনের মধ্যদিয়ে আজ শুরু হচ্ছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব ‘শারদীয় দুর্গাপূজা’র আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম। ইতোমধ্যে জেলার সকল পূজা মন্ডপের প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন হয়েছে।
বিশুদ্ধ পঞ্জিকা মতে, জগতের মঙ্গল কামনায় দেবী দুর্গা এবার ঘোটকে (ঘোড়া) চড়ে মর্তলোকে (পৃথিবী) আসবেন। আর দেবী স্বর্গালোকে বিদায় নেবেন দোলায় (পালকি) চড়ে।
এবছর দিনাজপুর জেলার ১৩টি উপজেলায় ১ হাজার ১৮২টি শারদীয় দুর্গাপূজা অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। নিরাপত্তার স্বার্থে পুজা মন্ডপগুলোকে ৩টি স্তরে ভাগ করে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। পাশাপাশি সরকারের ত্রাণ মন্ত্রনালয় থেকে ৫০৬ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ করা হয়েছে।
দিনাজপুরের পুলিশ সুপার মোঃ রুহুল আমিন জানান, শান্তিপূর্ণ, আনন্দঘন ও উৎসবমূখর পরিবেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা সম্পন্ন করতে পুজা মন্ডপগুলোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা ৩টি স্তরে ভাগ করা হয়েছে। দিনাজপুর সদরে ১৪৯, বিরলে ৯২, চিরিরবন্দরে ১৩৮, পার্বতীপুরে ১৪৮, বীরগঞ্জে ১৪৭, বোচাগঞ্জে ৮৮, কাহারোলে ৯৭, খানসামায় ১১০, ফুলবাড়ীতে ৫৩, বিরামপুরে ৩৩, নবাবগঞ্জে ৭৫, হাকিমপুরে ১৬ এবং ঘোড়াঘাটে ৩৬টি মন্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে।
পুজামন্ডপগুলোর মধ্যে ২৮৬টি অধিক গুরুত্বপূর্ণ, ৩৭৬টি গুরুত্বপূর্ণ ও ৫২০টি সাধারণ পুজামন্ডপ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। নিরাপত্তার দায়িত্বে পুলিশ ও আনসার বাহিনীর ১৫ হাজার ৩৯৬ জন সদস্য নিয়োজিত থাকবে। এর মধ্যে প্রত্যেকটি পুজামন্ডপে ১ জন করে পুলিশ সদস্য ও অন্যান্য আনসার বাহিনীর সদস্য সার্বক্ষনিক দায়িত্ব পালন করবেন। অধিক গুরুত্বপূর্ণ পুজা মন্ডপগুলোতে ১৭ জন, গুরুত্বপূর্ণ পুজামন্ডপগুলোতে ১৫ জন ও সাধারণ পুজামন্ডপে ১০ জন করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবেন। পুলিশ বাহিনীর ১ হাজার ১৮২ জন সদস্য এবং আনসার বাহিনীর ১৪ হাজার ১১৪ জন সদস্য নিয়োজিত থাকবে। এদের মধ্যে পুরুষ আনসার সদস্য ৯ হাজার ৩৮৬ ও মহিলা আনসার সদস্য ৪ হাজার ৭২৮ জনকে নিয়োজিত করা হয়েছে। এরপাশাপাশি র‌্যাব সদস্যদের গুরুত্বপূর্ণ টহল ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটের নেতৃত্বে আমর্স পুলিশ ব্যাটালিয়নের অভিযান টিম সার্বক্ষনিক দায়িত্ব পালন করবে। সব মিলিয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের শারদীয় দুর্গাপূজা উৎসব শান্তিপূর্ণ, ত্রুটিমুক্ত ও আনন্দঘন উৎসব পরিবেশে সম্পন্ন করতে ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।
দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম জানান, জেলায় অনুষ্ঠিত দুর্গা পূজা মন্ডপে সরকারীভাবে সহযোগিতার জন্য ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রনালয় থেকে ৫০৬ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ পাওয়া গেছে। জেলায় ১ হাজার ১৮২টি পুজা মন্ডপের মধ্যে চালগুলো সমবন্টন করা হবে। প্রত্যেক পুজা মন্ডপে ৪২৮ কেজি করে চাল বরাদ্দ প্রদানের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আগামী ১৭ ও ১৮ অক্টোবর ২ দিনেই চালগুলো সংশ্লিষ্ট পুজামন্ডপে বিতরণ করা হবে।
দুর্গাপূজা উপলক্ষে জেলাসহ সারাদেশে চলছে এখন উৎসবের আমেজ। রং-তুলি দিয়ে প্রতিমার গায়ে শেষবারের মতো তুলির আঁচড় দিচ্ছেন নির্মাণ শিল্পীরা। এর পরেই মন্ডপে মন্ডপে প্রতিমাকে আসনে বসানো হবে। চলবে পূজার্চনা আর আরাধনা।
প্রতিমা ও মন্ডপ ঘিরে সাজ সজ্জা প্রায় সম্পন্ন। সাজানো হয়েছে বাহারি রংয়ের আলোকসজ্জায়। আজ থেকে শুরু হবে পাঁচ দিনব্যাপী শারদীয় দুর্গাৎসবের মূল আনুষ্ঠানিকতা। মন্দিরে মন্দিরে বাজবে ঢাক, শঙ্খ আর ঝাজ। ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে ভক্তদের আগমনে পূর্ণতা পাবে শারদীয় এ উৎসব।
আজ ১৮ অক্টোবর সায়ংকালে দেবীর বোধন অনুষ্ঠিত হবে। ১৯ তারিখ দেবীর ষষ্ঠী বিহিত পূজা, সায়ংকালে আমন্ত্রণ ও অধিবাস। ২০ তারিখ দেবীর নবপত্রিকা প্রবেশ, সপ্তমী ও মহাসপ্তমী বিহিত পূজা। ২১ তারিখ মহাষ্টমী। কুমারী পূজা, সন্ধিপূজা। ২২ তারিখ মহানবমী পূজা। সনাতন পঞ্জিকা মতে এবার ২২ অক্টোবর একই দিনে মহানবমী ও বিজয়া দশমী পড়ায় ওই দিন দর্পণ বিসর্জন হবে। তবে সারাদেশে ২৩ অক্টোবরই বিজয়া শোভাযাত্রাসহকারে প্রতিমা বিসর্জনের সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে মহালয়ার দিন থেকেই মূলত শুরু হয়েছে দেবী দুর্গার আগমনধ্বনি।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email