রবিবার ২২ মে ২০২২ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে ৪৭২১০ হেক্টর জমিতে বাম্পার ভুট্টার উৎপাদন

Vottaদিনাজপুর জেলার ১৩টি

উপজেলায় ৪৭

হাজার ২১০ হেক্টর জমিতে

বাম্পার ভুট্টার

ফলন অর্জিত হয়েছে। উৎপাদিত ভুট্টা থেকে

ফলন পাওয়া যাবে ৩ লক্ষ ৩৯ হাজার ৯১২

মেট্রিক টন।

দিনাজপুর কৃষি অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক

আনোয়ারুল আলম জানান, এবারে জেলায়

বাম্পার ভুট্টার আবাদ হয়েছে। অনুকূল

আবহাওয়া ও ভুট্টা চাষের প্রয়োজনীয়

উপকরণ সরবরাহ ঠিক থাকায় জেলায়

কৃষকেরা উঁচু ও চরের জমিতে ভুট্টা চাষ

করেছে। মৌসুমের শুরুতে এবারে জেলায়

৪৫ হাজার ৩৯৪ হেক্টর জমিতে ভুট্টা চাষের

লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল। প্রতি

হেক্টরে ৭ দশমিক ২০ মেট্রিক টন উৎপাদন

লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু নদীর

ধারে পতিত জমি ও অকেজো ও উঁচু

জমিতে কৃষকেরা ভুট্টা চাষ করায়

লক্ষ্যমাত্রা অতিরিক্ত ১ হাজার ৮১৬ হেক্টর

জমিতে ভুট্টা চাষ অর্জিত হয়েছে। গত ১৫

নভেম্বর থেকে ভুট্টা বোপন শুরু হয়ে

ফেব্র“য়ারী মাস পর্যন্ত বোপন কাজ

অব্যাহত ছিল। চলতি বছর জেলায় ৪৭

হাজার ২১০ হেক্টর জমিতে ভুট্টার ফলন

অর্জিত হয়েছে। অর্জিত ভুট্টা থেকে ফলন

পাওয়া যাবে ৩ লক্ষ ৩৯ হাজার ৯১২

মেট্রিক টন। এবারে নদীর চর এলাকায়

কৃত্রিম উপায়ে সেচের মাধ্যমে কৃষকেরা

ভুট্টা চাষ করছেন।

বিরল উপজেলার ফরক্কাবাদ গ্রামের কৃষক

অনিল চন্দ্র রায় জানান, গত বছর তার

নদীর পাশে দেড় একর জমিতে ভুট্টা চাষ

করেছিল। তার অর্জিত ভুট্টা জমি থেকে

সাড়ে ১০ মেট্রিক টন ভুট্টা পেয়েছে।

চাষাবাদ খরচ বাদ দিয়ে তার ৪৮ হাজার

টাকা ভুট্টা থেকে মুনাফা পেয়েছে। তিনি

জানান, ভুট্টা চাষে অন্য ফসলের তুলনায়

শারীরিক পরিশ্রম, সার, সেচ সবই কম

প্রয়োজন হয়। বাজারে ভুট্টার চাহিদাও

রয়েছে। একারণে চলতি বছর তিনি ২ একর

২০ শতক জমিতে ভুট্টা চাষ করেছে। গত

বছরের তুলনায় এবার ভুট্টার চাষ ভালো

হয়েছে।

জেলার ১৩টি উপজেলাতেই এবারে বাম্পার

ভুট্টার আবাদ অর্জিত হয়েছে। চৈত্র মাসের

মাঝামাঝি থেকেই ভুট্টা মাড়াইয়ের কাজ

শুরু হবে। ভুট্টা ক্রয়ের জন্য থাইল্যান্ড

ভিত্তিক সিপি কোম্পানী, দেশীয় নারিশ,

আরএফএল এবং ডাষ্ট কোম্পানী ভুট্টা

ক্রয়ের জন্য জেলার বেশ কয়েকটি স্থানে

কেন্দ্র খুলেছে। আবহাওয়া অনুকুল থাকলে

ভুট্টা এবারও তাদের অর্জিত ভুট্টার

ভালোমূল্য পাবে। উল্লেখ্য, গত বছর

জেলায় ৪৬ হাজার ৩০ হেক্টর জমিতে ভুট্টা

অর্জিত হয়েছিল। ফলন হয়েছিল ৩ লক্ষ ৩৫

হাজার ৭৪২ মেট্রিক টন।

 

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email