রবিবার ১৪ এপ্রিল ২০২৪ ১লা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুরে ৫ম বাংলাদেশ পদার্থ বিজ্ঞান রংপুর বিভাগীয় উৎসব

জিন্নাত হোসেনঃ জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম বলেছেন, বিজ্ঞানে পারদর্শিতা ছাড়া আধুনিক প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে টিকে থাকা যাবে না। পড়ালেখার পাশিপাশি শিক্ষার্থীদের নীতি ও নৈতিকতা সম্পন্ন মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। গতকাল মঙ্গলবার দিনাজপুর জিলা স্কুল মিলনায়তনে ৫ম বাংলাদেশ পদার্থ বিজ্ঞান রংপুর বিভাগীয় উৎসব ২০১৪ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

দিনাজপুর সায়েন্স একাডেমির আয়োজনে সকাল ১০টায় উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন দিনাজপুর জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক আকতারা পারভীন।

সকাল ১০টায় জাতীয় সঙ্গীতের মাধ্যমে দিনাজপুর জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক আকতারা পারভীন জাতীয় পতাকা, বাংলাদেশ ফিজিক্স অলিম্পিয়াড কমিটির সহ-সভাপতি অলিম্পিক পতাকা এবং দিনাজপুর সায়েন্স একাডেমির সভাপতি অধ্যাপক ড. বিকাশ চন্দ্র সরকার সায়েন্স একাডেমির পতাকা উত্তোলন করেন।

উদ্বোধন শেষে ‘এ , বি এবং সি ’ তিনটি বিভাগে ১ ঘন্টা ৩০ মিনিটব্যাপী লিখিত পরীক্ষ অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষায় রংপুর বিভাগের ৮ জেলার ৭২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৫’শ ৫০ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। দিনাজপুর জিলা স্কুলের ১১টি কক্ষে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

 

পরীক্ষা শেষে প্রশ্নত্তোর পর্বে পদার্থ বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড কমিটির সহ-সভাপতি অধ্যাপক ড. জাহিদ হাসান মাহমুদ, সেতাবগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের প্রধান মো. শাহাদাৎ হোসেন. চিকিৎসক ডা. বি কে বোস, দিনাজপুর স্কুল অব লিবারেটরস এর অধ্যক্ষ এ কে এম জিয়াউল হক, সায়েন্স একাডেমির সভাপতি ড. বিকাশ চন্দ্র সরকার, ২০১২ সালে অ্যাস্তোনিয়ায় অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক পদার্থ বিজ্ঞান অলিম্পিয়ার্ডে ১ ‘অনারেবল মেনশন’ পদক অর্জনকারী আহমেদ মাকসুদ শিক্ষার্থীদের নানা বুদ্ধিদীপ্ত প্রশ্নের উত্তর দেন।

 

প্রশ্নত্তোর পর্ব শেষে দেওয়া সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বাংলাদেশ ফিজিক্স অলিম্পিয়াড কমিটির সহ-সভাপতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইলেকট্রনিক এন্ড ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. জাহিদ হাসান মাহমুদ বলেন, আগামী দিনে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার দায়িত্ব নতুন প্রজন্মের। নতুন প্রজন্মকে যোগ্যতর করে গড়ে তুলতে হবে। ফিজ্রিক্স অলিম্পিয়াড, ম্যাথ অলিম্পিয়াড বা সায়েন্স অলিম্পিয়াডসহ বিজ্ঞান বিষয়ক প্রতিযোগিতায় বেশি করে অংশ নিতে তিনি শিক্ষার্থীদের প্রতি আহবান জানান।

অনুষ্ঠানে সম্মানীত অতিথি হিসেবে বিশিষ্ট চিকিৎসক ডা. বি কে বোস বলেন, আধুনিক বিশ্বে মাথা উঁচু করে টিকে থাকতে হলে বিজ্ঞান মনষ্ক হিসেবে জাতিকে গড়ে তুলতে হবে। নতুন প্রজন্ম তাঁদের চেষ্টা, মেধা ও যোগ্যতা দিয়ে দেশকে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যাবে।

প্রতিযোগিতা শেষে তিনটি বিভাগ থেকে মোট ৫৩ জন শিক্ষার্থীকে বিজয়ী হিসেবে আগামী ৩০ ও ৩১ জানুয়ারী ঢাকায় জাতীয় ফিজিক্স উৎসবে যোগদানের সনদপত্র ও মেডেল দেওয়া হয়।

জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিমসহ বিশেষ অতিথিবৃন্দ বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন।

Spread the love