শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর নিমাইখাড়ীর গাছ কাটা বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবীতে স্মারকলিপি প্রদান

দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুর সদর উপজেলাধীন নিমাইখাড়ীর গাছ কাটা ও বিক্রয় বিষয়টি সরজমিনে তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের দাবীতে নিমাইখাড়ী সংলগ্ন জমির মালিকরা সদর উপজেলা ভূমি অফিসার বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছে।

২৫ ফেব্র“য়ারী বুধবার দিনাজপুর সদর উপজেলা ভূমি অফিসার বরাবর নিমাইখাড়ী সংলগ্ন জমির মালিক আলহাজ্ব সামসুল, আশরাফ আলী, মোঃ মিজানুর, মোহাঃ মনজুরুল, আলহাজ্ব এমাজউদ্দিনসহ ১৪ জন স্বারিত স্মারকলিপিতে বলা হয় আমরা নিম্ন স্বারকারীগণ দিনাজপুর সদর উপজেলাধীন ৭নং উথরাইল ইউনিয়নের স্থানীয় বাসিন্দা এবং অনেকে আমরা মিনাইখাড়ীর সাধারণ সদস্য। আমাদের জমির পাশে নিমাইখাড়ীর জায়গার উপর রপনকৃত গাছ ও রনাবেণ সূত্রে মালিক। নিমাইখাড়ী পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতি লিঃ যাহার রেজিঃ নং-১২৪ এর সভাপতি মোঃ আবুল হোসেন ও সম্পাদক আলহাজ্ব মোঃ মোখারফ হোসেন এবং সমিতির সদস্য সদস্যগণ মিটিং করে আমাদেরকে সাব-কমিটির মাধ্যমে জানান যে, ৯নং আস্করপুর ইউনিয়নের দনি দেবীপুর থেকে নাড়–হারের দেক্ষিনের শেষ সীমানা পর্যন্ত এলজিইডি নিমাইখাড়ী পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতি লিঃ কে গত ২০/০২/২০১৪ইং তারিখে হস্তান্তর করেছে এবং অত্র সমিতি সিদ্ধান্ত নিয়েচে যে, নিমাইখাড়ীতে সমিতি কর্তৃক মাছ ও হাস চাষাবাদ করবে। নিমাইখাড়ীর দুই পাশে বেশির ভাগ ইউকিপটাস গাছ। উক্ত গাছের দ্বারা পরিবেশন এর মারাত্মক তি করে এবং পাশের জমিনের ফসলের মারাক্তন তি হইতাছে। মর্মে আমরা আমাদের জমিনের পাশে নিমাইখাড়ীর উভয় পাশে থাকা ইউকিপটাস গাছগুলি বিক্রয় করিয়া দিয়া উক্ত বিক্রয় মূল্য হইতে কিছু টাকা নিমাইখাড়ী পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতি লিঃ এর উন্নয়ন কল্পের জন্য কিছু অর্থ দান করিয়াছি এবং উক্ত সমিতির সম্পাদক আমাদের প্রাপ্তি রশিদ করেছেন। সমিতির সভাপতি ও সম্পাদক বা কোন সদস্য উক্ত গাছ কাটেন নাই বা বিক্রয় করেন নাই। সমিতির সভাপতি ও সম্পাদক এর নামে যে, আত্মসাতের অভিযোগ করা হয়েছে সেগুলো মিথ্যা ও বানোয়াট। সমিতির নেতৃবৃন্দকে সমাজে হেও প্রতিপন্য কিছু কিচক্রি ব্যক্তি এই মিথ্য অভিযোগ দায়ের করেছে। উল্লেখ্য যে, উক্ত অভিযোগ কারীদের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করিতেছি।

প্রকাশ থাকে যে, ২০১৪ সালে সমিতির সাবেক সম্পাদক মোঃ মতিয়ার অনেক গাছ কেটে বিক্রয় করিয়াছিল। আমরা টাকা দেওয়ার পরেও সে সময় সমিতি আমাদেরকে কোন রশিদ প্রদান করেন নাই এবং উক্ত টাকার সমিতিতে কোন হিসাব নেই। এমতাবস্থায় উপরোক্ত বিষয়টি সরজমিনে তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানানো হয় স্মারকলিপিতে।

 

Spread the love