শনিবার ২ মার্চ ২০২৪ ১৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর পল্লী বিদ্যুত সমিতি ২-এর এলাকা পরিচালকের বিরুদ্ধে বিদ্যুত সংযোগ দেয়ার নামে লক্ষ-লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ

ফারুক হোসেন,স্টাফ রিপোর্টার ॥ দিনাজপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ২-এর এলাকা পরিচালক মিনহাজুল ইসলামসহ অন্যান্য এলাকা পরিচালকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগের নামে লক্ষ-লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এলাকা পরিচালকের কারনে  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘরে-ঘরে বিদ্যুৎ পৌছে দেয়ার অঙ্গীকার ভেস্তে যেতে বসেছে। স্থানীয় সাংসদ শিবলি সাদিক পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ২-এর মাধ্যমে সরকারী ভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ দিচ্ছে, আর টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এলাকা পরিচালক।
অভিযোগে জানা গেছে, দিনাজপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ২-এর এলাকা পরিচালক  মিনহাজুল ইসলামসহ অন্যান্য এলাকা পরিচালকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগের নামে লক্ষ-লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। বর্তমান আওয়ামী সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সারা দেশের ন্যায় দিনাজপুরের বিরামপুর, নবাবগঞ্জ, ঘোড়াঘাট ও হাকিমপুর উপজেলার গ্রামে-গ্রামে বিদ্যুত বিহীন বাড়ি গুলিতে  বিদ্যুত সংযোগ দেয়া হচ্ছে। স্থানীয় সাংসদ শিবলি সাদিক এর নিরলস প্রচেষ্ঠায় পল্লী বিদ্যুত ২-এর সহযোগিতায় গ্রামের অন্ধকার বাড়ি গুলিতে বিদ্যুত সংযোগ দেওয়ার অব্যাহত রয়েছে। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে এলাকা পরিচালক  মিনহাজুল ইসলাম প্রতিবাড়ি থেকে ৫ হাজার টাকা থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে।
আরো অভিযোগ রয়েছে, দিনাজপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ২-এর কর্মকর্তা-কর্মচারী কেউ যদি তার কাজে বাধা দেয় তবে সেই কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন রকম মিথ্যা অভিযোগ আনেন। আর এ কারনেই দিনাজপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ২- এর কোন কর্মকর্তা-কর্মচারী কেউ প্রতিবাদ করেন না। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দিনাজপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ২-এর এক কর্মকর্তা জানান, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি এখন এলাকার পরিচালকদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে। কোন কিছু বললেই বিপদের সন্মুখিন হতে হচ্ছে তাদের। শুধু তাই নয়, বিভিন্ন রকম মিথ্যা অভিযোগ আনা হচ্ছে। এ রকম ঘটনার সন্মুখিন হয়েছেন, পবিস এর জেনারেল ম্যানেজার মোহাম্মদ আব্দুর রাজ্জাক (জিএম)। তার বিরুদ্ধে আনয়ন করা অভিযোগ গুলি সম্পূর্নরুপে মিথ্যে। তিনি আরো বলেন,শুধু মাত্র এলাকার পরিচালক কে অবৈধ সুযোগ-সুবিধা না দেয়ার প্রেক্ষিতেই এই মিথ্যা অভিযোগ গুলি উপস্থাপন করা হয়েছে বলে তিনি জানান। পবিস এর ইলেক্টিশিয়ানসহ অন্যান্যরা জানান, সরেজমিনে গেলে এলাকার পরিচালকের বিরুদ্ধে অসংখ্য অভিযোগ পাওয়া যাবে। মাস্টার প্লানসহ অন্যান্য বিদ্যুৎ সংযোগের উপরে অর্থ আত্বসাতসহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। এবং তদন্ত হলে তা ধরা পড়বে। এ সব অনিয়ম তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানান।

Spread the love