শুক্রবার ১ মার্চ ২০২৪ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর প্রেস ক্লাবে হাবিপ্রবির উপাচার্যের দুনীতির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করল ছাত্রলীগ

এম.আর মিজান, দিনাজপুর : দিনাজপুর প্রেস ক্লাবে হাজী মোহম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়( হাবিপ্রবি) উপাচার্য রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম ও দুনীতির অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছে হাবিপ্রবি ছাত্রলীগ শাখার সাধারন সম্পাদক অরুন কান্তি রায় সিটন ।

 

শনিবার দুপুরে দিনাজপুর প্রেস ক্লাবে হাবিপ্রবির সভাপতি ইফতেখারুল ইসলাম রিয়েলের উপস্থিতিতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন অরুন কান্তি রায় সিটন ।

 

এ সময় সংবাদ সম্মেলনে আরোও উপস্থিত ছিলেন হাবিপ্রবি ছাত্রলীগ প্রচার সম্পাদক আতিকুর রহমান , সদস্য মাহমুদুল হোসাইন , , নাজমুল হোসাইন , রকিবুল আলম , জাকারিয়া হোসেন প্রমুখ ।

তিনি বলেন, গত ১৮ জানুয়ারী হাজী মোহম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের নেতৃত্বে কতিপয় শিক্ষক কর্মকর্তা কর্মচারী ছাত্রদল, ছাত্রশিবির , বৃহিস্কৃত ছাত্রলীগ কর্মী ও বহিরাগত স্বার্থান্বেষী মহলের দ্বারা হাবিপ্রবি ছাত্রলীগ পৈশাচিক ও অমানবিক হামলার শিকার হয়েছে ।

এরপর থেকে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা ক্যম্পাসের বাহিরে অবস্থান করায় বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করতে পারছেনা ।

 

গত ২৭ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে দিনাজপুর ষ্টেশন চত্বরে ১৪ দলের এক জনসভার আয়োজন করা হয়েছিল । সেই জন সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক ও দিনাজপুর-২( বোচাগঞ্চ- বিরল ) আসনের সাংসদ খালিদ মাহমুদ । বিশেষ অতিথি ছিলেন দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ- কাহারোল) আসনের সাংসদ মনোরঞ্জনশীল গোপাল ও জেলা পরিষদের প্রশাসক আজিজুল ইমাম চেীধুরী । সেই জনসভায় হাবিপ্রবি ছাত্রলীগ মিছিল নিয়ে জনসভায় যোগ দেওয়ার অভিযোগে আশিক , আজাদ নামক দুই ছাত্রলীগ কর্মীর ডান পা ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন ।

 

সর্বশেষ নজির গত ৩০ মার্চ ছাত্রলীগ নেতাকর্মী মাহফুজ , দিপু ,ফরহাদ ও রয়েল পরীক্ষা দিতে গেলে তাদেরকে পরীক্সার হল থেকে টেনে হেচড়ে বের করে নিমর্ম ভাবে মারধর করে আহত করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর শফিকুল ইসলামের নির্দেশে বলে লিখিত বক্তব্যে প্রকাশ করেন । পরে আহত অবস্থায় অবনতি হলে তাদেরকে দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে চলে যায় প্রক্টর শফিকুল ইসলাম ।

 

এছাড়াও সরকারের ৫ কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে এই উপাচার্য নিজের পকেট ভারী করেছে এমন অভিযোগ করেন । তিনি আরোও বলেন উপাচার্য বিশ বছর ধরে বিশ্ববিদ্যালয় পরিবহন ব্যবস্থা খাতের সভাপতি পদ ধরে রেখেছেন । যাতে নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থার সকল খরচ বিশ্ববিদ্যালয় পরিবহন ব্যবস্থার খাত থেকে আত্মসাৎ করে নিজের পরিবহন খাতের সাথে যুক্ত করেছেন । বর্তমানে এই বিশ্ববিদ্যলয়ে   তার অধীনে ৮০ লক্ষ টাকার দুর্ণীতির ধরা পড়েলেও নিজস্ব তদন্ত কমিটি সাজিয়ে ধামাচাপা দিয়েছে বলেও লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করেন ।

 

বাংলাদেশ দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এই ব্যাপারটি অফিসিয়াল যাচাই বাচাই করলেও উপাচার্য তার নিজস্ব ক্ষমতায় ধামাচাপা দিয়েছে বলেও অভিযোগ করেন ।

 

Spread the love