শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরন বিভাগ-২ এর পাওয়ার কন্ট্রোল রুমের অপারেটরের বিরুদ্ধে দুর্নীতির ও অনিয়মের অভিযোগ

মোঃ সিদ্দিক হোসেন:

তরিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে ডিউটি ফাকি দেওয়াসহ বিভিন্ন দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে।

তরিকুল প্রতি মাসে নিজস্ব ব্যক্তিগত কাজে ঢাকায় ১০-১২ দফা গেলেও সে দিন গুলোতেও হাজিরা খাতায় গায়েবি শক্তির বলে উপস্থিত হয়ে যায়। আর দিনাজপুরে উপস্থিত থাকলেও ফাকি বাজি দেওয়ার জন্য রাত্রী কালীন দায়িত্ব নিয়ে থাকে।

রাজনৈতিক শক্তি ব্যবহার করে উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের উপর চাপ প্রয়োগ করে অতিরিক্ত অভার টাইম বিল আদায়ের অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে। কোন কর্মচারী থাকার জন্য একটি কোয়াটার না পেলেও এই প্রভাবশালী কর্মচারী দুটি দখল করে বসে আছে।

তরিকুল ইসলাম দিনাজপুর বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরন বিভাগ-২ এর পাওয়ার কন্ট্রোল রম্নমের অপারেটর (এসবিএ) পদের একজন কর্মচারী। রাজনৈতিক পদবীর অপব্যবহার করে ব্যাপক দুর্নীতি চালিয়ে ইতিমধ্যে বনে গেছে কোটি পতি। তার নামে-বেনামে দিনাজপুর শহর ও এর আশপাশ এলাকায় বিপুল সংখ্যক জমি রয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন ব্যাংকে নামে-বে-নামে রয়েছে লাখ লাখ টাকা।

দিনাজপুর বিদ্যুৎ বিক্রয়-বিতরন বিভাগ-২ এর অধিনস্থ এলাকায় সকল প্রকার বৈদুৎতিক নতুন মিটারের সংযোগ, মিটার ডাটা ডাউনকারীদের কাছ থেকে তরিকুল মোটা অংকের মাসোয়ারা পেয়ে থাকেন। দিনাজপুর বিদুৎ বিক্রয় ও বিতরন বিভাগ-২ কার্যালয় সংল্গন একটি কর্মচারী কোয়াটার রয়েছে। যেখানে তরিকুল রাজনৈতিক শক্তি ব্যবহার করে দুটি কোয়াটার দখল করে রেখেছে। দখল করা কোয়াটারের কোন ভাড়া সরকারকে দেয়না।

দিনাজপুর শহরে নতুন সংযোগ নিতে হলে তরিকুলকে টাকা দিতে হবে তা না হলে বছরেও সংযোগ মিলবে না। আবার তরিকুল দিনাজপুর শহরের অধিকাংশ রাসত্মার ফুটপাতের বা খাস জায়গার উপরে থাকা বাড়ি-ঘরে বৈদুৎতিক সংযোগ অবৈধ ভাবে দিয়েছে। যে সকল প্রতিষ্ঠান বা বাড়ির সরকারি নিয়ম অনুযায়ী প্রয়োজনী দলিল বা কাগজ পত্র নাই।

এরকম সংযোগ শহর ঘুড়ে পাচঁশতাধিকের বেশী পাওয়া যায়।

তরিকুল দিনাজপুর বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরন বিভাগ-২ এর পাওয়ার কন্ট্রোল রম্নমের অপারেটর (এসবিএ) পদে কর্মরত রয়েছে। পাওয়ার কন্ট্রোল রম্নমে তরিকুলকে সারা মাস ৫-৬ দিন দায়িত্ব পালন করতে দেখা যায়। কিন্তু তারপরও সে প্রতি মাসে অতিরিক্ত অভার টাইম বিল পেয়ে থাকে। এর রহস্য কোথায় ও তরিকুলের খুটির জোর কোথায় প্রশ্ন দেখা দিয়েছে সাধারন জনমনে ?

এই সেই তরিকুল যার পথ ধরে দিনাজপুর বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরন বিভাগের অনান্য কর্মচারীরা ঠিক মতো সরকারের বেধে দেওয়া দায়িত্ব পালন করছেনা। তরিকুলের কারনে এখানে স্থানীয় কর্মচারীদের মধ্যে দুটি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে নিজেদের মধ্যে বিরোধীতা শুরু করেছে। যে কোন মুহুর্তে এই দুটি গ্রম্নপের মধ্যে ঘটে যেতে পারে যেকোন বড় ধরনের অঘটন।

এই তরিকুল ইসলামের বিষয়ে দিনাজপুর বিদ্যু বিরতন-বিক্রয় বিভাগ-২ এর নির্বাহী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলামের সাথে কথা বললে তিনি জানান, তরিকুল সাহেব ক্ষমতাশীন দলের রাজনীতি করে। সে জেলা বিদ্যুৎ শ্রমিক লীগের সাধারন সম্পাদক ও জেলা শ্রমীক লীগের সহ-সভাপতি। ইতিমধ্যে এই দুর্নীতির কারিগর নিজেকে জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি দাবি করে পত্র-পত্রিকায় শুভেচ্ছা বিজ্ঞাপন দিয়েছে।

তরিকুলের ব্যাপারে স্থানীয় আওয়ামীলীগের এক প্রভাবশালী নেতার সাথে কথা বললে তিনি জানান, আওয়ামীলীগ সরকার কখনো কনো দুর্নীতিবাজকে ছাড় দেয়নি এবং ভবিষৎয়েও দেওয়া হবেনা। আওয়ামীলীগ বঙ্গবন্ধুর আদর্শের দল। এ দলে কোন দুর্নীতিবাজদের ঠাই নাই। যদি কেউ দলের নাম ভাঙ্গিয়ে দুর্নীতি বা অনিয়ম করে থাকে তাহলে তার উপযুক্ত শাস্তি দাবি করেছে এই নেতা।

এব্যাপারে তরিকুল ইসলামের সাথে কথা বললে তিনি জানান, আমি কোন ধরনের দুর্নীতি বা অনিয়মের সাথে জড়িত নই। আমাকে কেউ হয়রানীর চেষ্ঠা করছে।

দিনাজপুর শহরের সাধারন মানুষ উক্ত দিনাজপুর বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরন বিভাগ-২ কে দুর্নীতির কবল থেকে বাচাঁতে সবিনয় অনুরোধ জানিয়েছে জাতীয় সংসদের হুইপ ও দিনাজপুর সদর-৩ আসনের সংসদ সদস্য ইকবালুর রহিমের প্রতি।

উল্লেখ্য যে, তরিকুলের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ তদন্ত করতে এসে একটি দল মোটা অংকের ঘুষ খেয়ে চেপে গেছে।তরিকুল দিনাজপুরে দীর্ঘ কয়েক যুগ থেকে থাকার কারনে এই দুর্নীতি ও অনিয়মের রাস্তা খুলে এসেছে বলে বিষেশজ্ঞরা মনে করছেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email