রবিবার ১৪ অগাস্ট ২০২২ ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর বিরলে শ্মশানে মৃত ব্যক্তির দাহকার্য্যে বাঁধা প্রদানকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা বিক্ষোভ

সাহেব, দিনাজপুর : দিনাজপুরের বিরল উপজেলার মঙ্গলপুর ইউনিয়নের রঘুনাথপুর গ্রামের হিন্দু সম্প্রদায়ের শ্বশ্মানে মৃত ব্যক্তির দাহ কার্য্যে বাধা প্রদানকে কেন্দ্র করে হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ নিয়ে হিন্দু সম্প্রদায় বিক্ষোভ সমাবেশ করে এবং শ্বশ্মান রক্ষায় ৬’শ ১৭জন হিন্দু সম্প্রদায় স্বাক্ষরিত অভিযোগ পত্র বিরল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ্ আল খায়রুম ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও জরিপ অফিসে লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়। রঘুনাথপুর শ্বশ্মান কমিটির সভাপতি মন্তোষ দেব শর্মা ও সাধারন সম্পাদক সুবাশ চন্দ্র রায় লিখিত অভিযোগে জানান বৃটিশ আমল হতে রঘুনাথপুর মৌজার রেকর্ড ভুক্ত শ্বশ্মানে উত্তর বিষ্ণুপুর, মাহাতাবপুর, চাপইর, শিকারপুর গ্রামের হিন্দু সম্প্রদায় মৃত ব্যক্তিদের সৎকার (দাহ কায্য)করে আসছে। এই ৫টি গ্রামের ১৫ হাজার মানুষের এক মাত্র শ্বশ্মান এটি। কিন্তু হঠাৎ করে জনৈক শ্রী ধনেস্বর রায় ঐ শ্বশ্মানের মালিক দাবী করে মৃত ব্যক্তির দাহকার্য করতে বাঁধা প্রদান করলে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। তিনি বলেন, বৃটিশ ও পাকিস্তান রেকর্ডে উক্ত জমি হিন্দু সম্প্রদায়ের সৎকারের জন্য শ্বশ্মান হিসেবে রেকর্ড ভুক্ত হয়েছে। ঐ শ্বশ্মানে মৃত টুমি রানী, মৃত কুতুরাম সাহা, মৃত বিমল সাহা, মৃত শেফালী রানী, মৃত শরলা রানী, মৃত সুরেশ অধিকারী, মৃত কাঞ্চ দেব শর্মার ৮টি স্মৃতি সৌধ রয়েছে। যা ইটের প্রাচীর দিয়ে তৈরি। বিষ্ণুপুর গ্রামের ১০৯ বছরের বৃদ্ধ তুলারাম দেব শর্মা অভিযোগ করেন জন্মের পর থেকেই এই শ্বশ্মান দেখে আসছি। হঠাৎ করেই সাবেক মন্ত্রী সতিশ চন্দ্র রায়ের ভাগিনা শ্রী ধনেস্বর রায় ঐ শ্বশ্মানের মালিক হিসেবে দাবী করছেন। একই অভিযোগ করেন কুমেল, কায়চালু, সুমন্ত, রমনিকান্ত, সুমন রায়, তপন চন্দ্র রায়, অশিনি, মানি্ক চন্দ্র দেব শর্মা, জয়েন্তিসহ ভুক্তভোগি হিন্দু সম্প্রদায়। আওয়ামী লীগ নেতা সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান কসিমউদ্দীন আহমেদ সুকুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোজাহারুল ইসলাম, শ্মশান কমিটির সভাপতি মন্তোষ ও সাধারন সম্পাদক সুবাশ জানান, শ্মশানে দাহকার্য্যে বাঁধা ও শ্মশানের জমি আত্মসাতের চেষ্টার ঘটনা দিনাজপুর-২ আসনের (বিরল-বোচাগঞ্জ) সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপিকে অবহিত করা হয়েছে। বিরল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ্ আল খায়রুম জানান, বিষ্ণুপুর শ্মশান কমিটিসহ ৬’শ ১৭ জন স্বাক্ষরিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। একই অভিযোগ সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও জরিপ অফিসে দেয়া হয়েছে। ভূমি অফিসের অফিস সহকারী রোকেয়া খাতুন অভিযোগ গ্রহন করেন।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email