সোমবার ১৬ মে ২০২২ ২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর মহিলা পরিষদের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলে তরুনী সমাবেশ অনুষ্ঠিত

জিন্নাত হোসেন : ৮ মার্চ, প্রাতিষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃত আর্ন্তজাতিক নারী দিবস হিসেবে। নারীর অধিকার আদায়ের আন্দোলনের ঐতিহাসিক তাৎপর্যপূর্ণ দিন। ১৮৫৭ সারের ৮ মার্চ নিউইয়র্কের পোষাক শিল্প কারখানায় ১৫০০০ নারী শ্রমিকরা ৮ ঘন্টা কাজ, কর্মপরিবেশন উন্নয়ন সমমজুরির দাবীতে আন্দোলন করে। তখনই চিন্তার সূত্রপাত হয় একটি দিনকে বিশ্ব নারী দিবস হিসেবে নির্ধারণ করার। ১৯১০ সালে কোপেনহেগেন এ অনুষ্ঠিত শ্রমজীবী নারীদের ২য় আর্ন্তজাতিক সম্মেলনে জার্মানের সোশাল ডেমোক্রেটিক পার্টির নেত্রী কারা জেৎকিন আনুষ্ঠানিকভাবে বিশ্ব নারী দিবস এর ধারণা প্রস্তাব আকারে উপস্থাপন করেন। ১৭টি দেশ থেকে আগত দু’দিন ব্যাপী এই সম্মেলনে ৬৮ জন নারী ও ৩২ জন পুরুষের স্বারিত এই নারী মুক্তি ঘোষনা গৃহিত হয়। ১৯১১ সালে প্রথম কারা জেৎকিনের উদ্যোগে পালিত হয় আর্ন্তজাতিক নারী দিবস এবং এই আন্দোলনের অভাবনীয় সাফল্য নারী আন্দোলনে যুক্ত করে এক নতুন মাত্রা। দেশ, সীমানা, জাতিগত, ভাষাগত, সংস্কৃতিগত, অর্থনৈতিক ভেদাভেদের গন্ডী ছাড়িয়ে সর্বস্তরে নারীদের মধ্যে ছড়িয়ে নতুন ধারার নারী আন্দোলন এবং তা এক মোহনায় মিলে যায়। বৈশ্বিক নারী আন্দোলনের সঙ্গে জাতীয় নারী আন্দোলনের মেলবন্ধন হয়।

এ ল্েয ”সম্পদ-সম্পত্তিতে নারী-পুরুষের সমতা,নারীর মানবাধিকারের নিশ্চয়তা ” এই শোগান নিয়ে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, দিনাজপুর জেলাশাখা সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে নাট্যসমিতি প্রাঙ্গনে তৃণমূলের তরুনীদের নিয়ে এক সমাবেশের আয়োজন করেন। উক্ত সমাবেশে আলোচনার শুরুতে “আর্ন্তজাতিক নারী দিবস ও বর্তমান বাংলাদেশ ” বিষয়ক প্রবন্ধ পাঠ করেন দিনাজপুর জেলাশাখার সহ- সাধারণ সম্পাদক মনোয়ারা সানু। সমাবেশের শুরুতে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন সাধারণ সম্পাদক ড. মারুফা বেগম। এছাড়া আরও বক্তব্য দেন,মহিলা পরিষদ-দিনাজপুর জেলাশাখার প্রশিক্ষণ গবেষনা ও পাঠাগার উপ-পরিষদের সম্পাদক রুবি আফরোজ, সাংগঠনিক সম্পাদক রুবিনা আকতার,অর্থ সম্পাদক রতœামিত্র,ভারপ্রাপ্ত আন্দোলন সম্পাদক সুমিত্রা বেসরা, লিগ্যাল এইড সম্পাদক জিন্নুরাইন পারু,সদস্য আইরিন জাহান সুইটি, জাহানারা ফেন্সী, শিউলি বেগম,লাবণী কুন্ডু লোপা,নিশাত জাহান নিশি,সারমিন আকতার বিথী,খাইরুন নাহার,নীপা খাতুন এছাড়াও আরো অনেকে। বক্তারা বলেন , ২০১৫ সালে ৮ মার্চ আর্ন্তজাতিক নারী দিবস পালনের একশত চার বছর পূর্ণ হল। কিন্তু নারী অবস্থানের নানা ইতিবাচক পরিবর্তনের পরও দেখা যায় বাংলাদেশে নারী জীবনের মৌলিক পরিবর্তন এখনও ঘটেনি। নারীর অধিকার সংরণের ল্েয সরকার নানা নীতিমালা -বিধি , কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করছে। কিন্তু উন্নয়নের মূল শ্রোতধারায়, সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ায় নারীর অংশগ্রহণ এখনও সীমিত। সমাজে বিদ্যমান নারী নির্যাতন , নির্যাতনের বহুমাত্রিকতা,বর্বরতা নারী সমাজের অগ্রযাত্রাকে বাধাগ্রস্ত করছে। যৌন হয়রানি ও উত্ত্যক্ত করার মাধ্যমে নারী শিা,অবাধ চলাচল,ব্যক্তি স্বাধীনতাকে খর্ব করা হচ্ছে। এই দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন আজ জরুরী। এই কাজে শিানীতি,শিার পাঠ্যসূচী,গণমাধ্যম, চলচ্চিত্র, সংস্কৃতিসহ সর্বত্র দৃষ্টি দিতে হবে। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সম্মানীয় সদস্য আজাদী হাই। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সাংগঠনিক সম্পাদক রুবিনা আকতার।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email