রবিবার ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর রামনগর তায়কোয়ানডো একাডেমী সাফল্য

আরিফল আলম পল্লব : ১৩ তম জাতীয় তায়কোয়ানডো প্রতিযোগীতা রামনগর ৩য় কোয়ানডো একাডেমীর সাফল্য গত ২৫-২৭ ডিসেম্বর ২ দিন ব্যাপী ট্রাস্ট ব্যাংক ১৩তম জাতীয় সিনিয়র/জুনিয়র তায়কোয়ানডো প্রতিযোতিা ২০১৪ জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের জিমন্যাসিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়। এতে দিনাজপুর তায়কোয়ানডো মার্শাল আর্ট একাডেমী রামনগরের ১৫ জনের একটি দল অংশগ্রহণ করে। তারা সফল্যের সাথে ৩টি রৌপ্য পদক ও ৩টি ব্রোঞ্চ পদক ছিনিয়ে এনে দিনাজপুরের মুখ উজ্জল করে। পদক প্রাপ্তরা হলেন, রৌপ্য পদক ৩জন যথাক্রমে শফিকুল ইসলাম রাহুল (-৬৫ কেজী) মোছাঃ হাসি (-৩৫ কেজী) নাঈম (-৩৫ কেজী) ব্রোঞ্চ পদক প্রাপ্তরা হলেন জিনাত নাঈম ঝিনুক (-৪০ কেজী), মোছাঃ মোর্শেদা (-৬৭ কেজী), মোঃ রুবেল (-৬০ কেজী) প্রশিক্ষক হিসেবে ছিলেন তায়কোয়ানডো মার্শাল আর্ট এর মুকুহীন সম্রাট দিনাজপুর গর্ব মোঃ এরশাদ আলী (ব্লাক বেল্ট ৩য় ড্যান)। জনাব এরশাদ আলী অনেক বছর ধরে রামনগরে নিজের পকেটের টাকা খরচ করে প্রচুর পরিশ্রম করে তার সন্তান তুল্য প্রশিক্ষনার্থীদের প্রশিক্ষন দেন। কিন্তু জাতীয় পর্যায়ে যখন অংশ নিতে যায়, তখন দায়িত্ব হলো জেলা ক্রীড়া সংস্থা যে খেলোয়াড়দের যাতায়াত খাবা খরচ দেওয়া কিন্তু বর্তমান জেলা ক্রীড়া সংস্থা এক ক্রিকেট ছাড়া অন্য খেলার জাতীয় পর্যায়ের যাওয়ার কোন তাগিদ নাই। কারণ ক্রিকেট ছাড়া অন্য খেলায় সম্মান ছাড়া টাকা নেই বলে। তায়কোয়ানডো দল যখন ১৩তম জাতীয় প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করার ইচ্ছা প্রকাশ করে তখন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক বলে নিজ খরচে যেতে পারলে যান আমাদের খরচ দেওয়া এবং সহযোগিতার করার মত অবস্থা নেই।

পদক পেলে সংবর্ধনা দিতে জেলা ক্রীড়া সংস্থা ব্যস্থ হয়ে যায়। কিন্তু খেলোয়াড় ও সংগঠন তৈরী করার জন্য কোন ভূমিকা রাখেনা। দিনাজপুরে মুখ উজ্জল করার জন্য ব্যক্তি উদ্যোগেই মূল ভূমিকা রাখে কিন্তু কোন মূল্যায়ন নেই। তাই দিনাজপুরের ক্রীড়াঙ্গনকে বাচাবার জন্য ক্রীড়া তথা দিনাজপুরের উন্নয়নে কান্ডারী দুই হাত খুলে যিনি দান করেন সে মাননীয় হুইপ জনাব ইকবালুর রহিম এমপি কে দিনাজপুরের ক্রীড়াঙ্গনে যিনি মূখ্য ভূমিকা রাখেন সেই জেলা প্রশাসক আহমদ শামীম আল রাজীকে একটু নজর দেয়ার জন্য সচেতন মহল অনুরোধ করেছে।

Spread the love