বুধবার ৪ অগাস্ট ২০২১ ২০শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর শহরসহ জেলার ১৩টি উপজেলার প্রায় ৭ হাজার মসজিদে ঈদুল আযহা’র নামাজের জামায়াত অনুষ্ঠিত

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ করোনাভাইরাসের বিস্তাররোধে সারা দেশের ন্যায় ঈদগাহ মাঠ বা খোলা জায়গার পরিবর্তে এবারে মসজিদে ঈদুল আযহা’র নামাজের জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়েছে। দিনাজপুর জেলা শহরসহ জেলার ১৩টি উপজেলার ৬,৮০৮টির অধিক মসজিদে ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। নামাজ শেষে বর্তমান বৈশি^ক মহামারি করোনাভাইরাস থেকে দেশ, জাতিকে হেফাজতে রাখতে ও মুসলিম উম্মাহ’র শান্তি ও সৃমদ্ধি কমানায় বিশেষ মুনাজাত করা হয়।
বুধবার (২১ জলাই) সকাল সাড়ে ৭টা থেকে সকাল সাড়ে ৯টা পর্যন্ত এসব ঈদের জামায়াত অনুষ্ঠত হয়। গত বছরের হিসেব অনুযায়ী জেলার ১৩টি উপজেলার ৬,৮০৮টির অধিক মসজিদে ঈদুল আযহা’র নামাজের জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়। মানুষের সংকুলান না হওয়ায় কোন কোন মসজিদে দু’টি জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়েছে। মুসল্লিরা মুখে মাস্ক পড়ে নিজ নিজ জায়নামাজ নিয়ে ঈদুল আযহা’র নামাজের জামায়াতে অংশগ্রহণ করেন। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে মসজিদে ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও কোন কোন মসজিদে তা মানা হয়নি। আবার কোন কোন মুসল্লিকেও মুখে মাস্ক পড়তে দেখার যায়নি।
এদিকে দিনাজপুর জেলা শহরের দক্ষিণ লালবাগ জামে মসজিদে সকাল ৮টায় ও সকাল সাড়ে ৮টায় পশ্চিম পাটুয়াপাড়া জামে মসজিদের সামনের খোলা জায়গায় ঈদের নামাজের জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া দিনাজপুর শহরের চাউলিয়াপট্টি খানকাহ রহমানিয়া জামে মসজিদ, কাঞ্চন কলোনী শাহী জামে মসজিদ, চাউলিয়াপট্টি মাটির মসজিদ, লালবাগ ১নং আহলে হাদিস জামে মসজিদ, ২নং আহলে হাদিস জামে মসজিদ, পাটুয়াপাড়া জামে মসজিদ, ঘাষিপাড়া ডাবগাছ জামে মসজিদ, বালুয়াডাঙ্গা কাঞ্চন ব্রীজ সংলগ্ন জামে মসজিদ, স্টেশন রোড জামে মসজিদ, জেল রোড কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ, গোর এ শহীদ কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ, পুলিশ লাইন্স জামে মসজিদ, বালুবাড়ী শাহী জামে মসজিদ, দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতাল জামে মসজিদ, দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ জামে মসজিদসহ জেলা শহরের শতাধিকের অধিক মসজিদে ও জেলার ১৩টি উপজেলার ৬,৮০৮টির অধিক মসজিদে ঈদুল আযহা’র নামাজের জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়েছে।
নামাজ শেষে খুৎবার পর আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের নিকট করোনাভাইরাস থেকে দেশের মানুষকে হেফাজত করতে, করোনায় মৃত ব্যক্তিদের রুহের মাগফিরাত কামনা, আক্রান্তদের সুস্থতা কামনা এবং নিজ পরিবার, দেশ ও জাতিকে হেফাজত করার আকুতি জানিয়ে মুনাজাত করা হয়। ঈদের নামাজ শেষে অনেক মুসল্লি গোরস্থানে গিয়ে কবর জিয়ারত ও মৃত পিতা-মাতা এবং পরিবারের মৃত অন্যান্য আত্মীয়-স্বজনের রুহের মাগফিরাত কামনায় মুনাজাত করেছেন।
অপরদিকে ঈদের নামাজ শেষে যার যার সামর্থ অনুযায়ী বাড়ীর আশপাশের খোলা জায়গায় অনেক মুসল্লি পশু কুরবানী করেছেন।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email