সোমবার ১৫ অগাস্ট ২০২২ ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর শহরের বাজারগুলোতে ভারতীয় কাপড়ে সয়লাব

দিনাজপুর কাপড়ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে বিজিবি ও পুলিশের সাথে সমঝোতা করে দিনাজপুর জেলা শহরের বাজারগুলোর প্রায় প্রতিটি কাপড়ের দোকান ভারতীয় কাপড়ে সয়লাব। চোরাচালান প্রতিরোধে দায়িত্বে নিয়োজিত সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে ম্যানেজ করে চোরাচালানি সিন্ডিকেট দীর্ঘদিন ধরে ভারতীয় কাপড়ের ব্যবসা চালিয়ে আসছে।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, সীমান্তবর্তী জেলা হওয়ায় চোরাচালানি সিন্ডিকেটের সদস্যরা রমজান শুরুর আগেই ঈদকে সামনে রেখে ভারতীয় কাপড়সহ অন্যান্য পণ্য আমদানিতে তৎপর হয়ে ওঠে। দিনাজপুর শহরের প্রতিটি কাপড়ের দোকনে ভারতীয় প্যান্ট পিস, শার্ট পিস, থ্রি-পিস, জর্জেট শাড়ি ও কসমেটিক্স দোকানে বিপুল পরিমাণে মজুদ করা হয়। আর এ সব ভারতীয় কাপড় জেলা শহরের মালদ্হপট্টি, গণেশতলা, বাহাদুর বাজারের বিভিন্ন শপিং মহল ও দোকানে খুচরা বিক্রয় করা হচ্ছে। ভারতীয় পণ্য জেলার সীমান্ত এলাকার বেশ কয়েকটি পয়েন্ট দিয়ে চোরাচালানিরা বাংলাদেশের অভ্যন্তরে আমদানি করছে। এ সব পয়েন্ট দিয়ে প্রতিদিন কাপড় ও কসমেটিক্সসহ বিভিন্ন ধরনের ভারতীয় পণ্য আসছে। আর এই চোরাচালানিদের সহযোগিতা করছে বিজিবি, পুলিশ ও তাদের নিয়োগ দেওয়া লাইনম্যানরা। এতে সরকার হারাচ্ছে যেমন কোটি কোটি টাকার রাজস্ব, তেমনি মার খাচ্ছে দেশীয় পণ্য।
স্থানীয় বিজিবি ও পুলিশ প্রশাসনকে ম্যানেজ করে চোরাচালানিরা ভারতীয় পণ্য দেশের অভ্যন্তরে আমদানি করছে এবং বিপরীতে দেশীয় পণ্য ভারতের পাচার করছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাত থেকে রেহাই পেতে চোরাচালানিরা ব্যবহার করছে মোবাইল ফোন।
এ ব্যাপারে দিনাজপুর বিজিবি সেক্টর কমান্ডারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ ব্যাপারে কোনো কথা বলতে অপরাগতা প্রকাশ করেন। দিনাজপুর শহরে দোকানদাররা ভারতীয় কাপড় দেদারসে বিক্রি করছে, কিন্তু বিজিবি নিশ্চুপ কেন প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, বিজিবির এককভাবে শহরে অভিযান পরিচালনা করার ক্ষমতা নেই। বিজিবির সাথে পুলিশ ও টাক্সফোর্স কমিটির লোকদের প্রয়োজন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email