মঙ্গলবার ৪ অক্টোবর ২০২২ ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর শহরে দেলোয়ারা ও জুলেখা হত্যার বিচারের দাবীতে এলাকাবাসীর বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান

Dinajpurদিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুর শহরের উত্তর চাউলিয়া পট্টি এলাকার দেলোয়ারা বেগম ও জুলেখা বেগম হত্যার বিচারের দাবীতে এলাকাবাসী শহরে বিক্ষোভ মিছিল, মানবন্ধন ও জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার উত্তর চাউলিয়া পট্টি এলাকাবাসী দেলোরা বেগম ও জুলেখা বেগম হত্যার বিচারের দাবীতে শহরে বিক্ষোভ মিছিল, জেলা প্রশাসন কার্যালয়ের সম্মুক সড়ক ও দিনাজপুর প্রেসক্লাব কম্পেলেক্স ভবনের সম্মুক সড়কে মানবন্ধন কর্মসূচী পালন এবং জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছে।

দিনাজপুর জেলা প্রশাসক বরাবর এলাকাসীর পক্ষে জাহাঙ্গীর আলম, আঃ সালাম, আমিনুল ইসলাম এবং মাসুদ স্বাক্ষরীত স্মারকলীপিতে বলা হয়, আমরা দিনাজপুর পৌরসভাধীন ২নং ওয়ার্ডের ওত্তর চাউলিয়া পট্টি এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা আমাদের এলাকা গত ১৮ মার্চ ২০১৪ইং তরিখে দোলোয়ারা বেগমের ভাড়াটিয়া কোহিনূর বেগম ওরফে বিথি, ঘটনার দিন দেলোয়ারা বেগম ও জুলেখা বেগমকে বিষ  প্রয়োগ করে হত্যা করে। সেই সময় এর হাত থেকে রক্ষা পায় নুসরাত জাহান নুসু। সেই বর্তমানে ৭মাসের অন্ত স্বত্তা। উক্ত ঘটনার পর কোহিনূর বেগম প্রেফতার এড়াতে পালাবার চেষ্টা করলে এলাকাবাসী তাকে ধরে কোতয়ালী পুলিশের নিকট সোপর্দ করে। কোতয়ালী পুলিশ এই হত্যা কান্ডের ঘটনাটি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য নিহত দেলোয়ারা বেগমের বড় ছেলে দেলোয়ারকে জোর পূর্বক একটি হত্যা মামলা দায়ের করায়। যার মামলা নং – ২৬ তাং- ১৮/৩/২০১৪ইং। উক্ত এজাহারে পুলিশ পক্ষপাতদৃষ্ট হয়ে মামলা মূল আসামী কোহিনূল বেগম, তার কথিত স্বামী দুলাল হোসেনকে রক্ষা করার জন্য একটি সাজানো হত্যা মামলা পুলিশ দায়ের করেন। কোহিনূর কথিত স্বামী দুলাল হোসেনকে প্রেফতার করলে ও সুকৌশলে বিষ প্রয়োগকারী মূল আসামী কোহিনূর বেগমকে মামলা থেকে দূরে রাখে। এরপর গত ৯/৪/২০১৪ ইং তারিখে পুলিশ বিষ প্রয়োগে হত্যাকারী কোহিনূর বেগমকে সাথে নিয়ে এসে মালামাল নেওয়ার জন্য আসে। এই সময় আমরা এলাকার মানুষ বাধা দিলে কোতয়ালী থানার এ,আই বিদ্যুৎ উপস্থিত বাধাদানকারী এলাকার মাহিলাদের উপর লাঠি চার্জ করে। সেই সময় এস.আই বিদ্যুৎ বলেন পুলিশ সুপার তাকে কোহিনূরের মালামাল নিয়ে যাওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। এরপর ব্যাপক বাধার মুখে এস.আই বিদ্যুৎ পুলিশের পিকআপ নিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। আমরা মনে করি এস.আই বিদ্যুৎ পুলিশ সুপারের সুনাম বিনষ্ট করেছেন। আমরা ঘনার পূর্ণ তদন্তসহ কোহিনূর বেগমসহ দোষীদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবী করছি।

উলে­খ্য দিনাজপুর শহরে ভাড়াটিয়ার বিষ মেশানো ইশবগুলের শরবত খেয়ে গৃহকর্তীসহ দুজনের মুত্যু হয়েছে। এতে অপর একজন গুরুতর অসুস্থ্য হয়েছিলেন। এই চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে দিনাজপুর শহরের চাউলিয়া পট্টি এলাকায়।

মারা যাওয়া দুজনের মধ্যে রয়েছে চাউলিয়াপট্টি এলাকার মৃত আব্দুল জাবেদের স্ত্রী বাড়ীর মালিক দিলারা বেগম (৫০) এবং অপরজন ওই বাড়ীর ভাড়াটিয়া শাহজাহানের স্ত্রী জুলেখা বেগম (৪৫)। জুলেখার পুত্রবধূ অমত্মসত্ত্বা নুশরাত বেগম (৩৫) বিষক্রিয়ায় আক্রামত্ম হয়ে দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিসা নিয়েছেন।

পরিবারের লোকজন অভিযোগ করেন, বাড়ীর অপর ভাড়াটিয়া দুলাল হোসেন ১৮ মার্চ মঙ্গলবার সকালে ইশবগুলের সাথে বিষ মিশিয়ে তার স্ত্রী বিথি বেগমকে খেতে দিয়ে কাজে বের হয়ে পড়ে। কিন্তু বিথি বেগম তা না খেয়ে বাড়ীর মালিক দিলারা বেগম, অপর ভাড়াটিয়া জুলেখা বেগম এবং জুলেখা বেগমের পুত্রবধূ নুশরাত বেগমকে খেতে দেয়।

সকাল ১০টায় বিষ মেশানো ইশবগুলের শরবত খেয়ে ৩ জনই গুরুতর অসুস্থ্য হয়ে পড়ে। এরপর তাদের দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে দুপুরে দিলারা বেগমের মৃত্যু হয়। এরপর বিকেলে দিনাজপুর জিয়া হার্ট ফাউন্ডেশন হাসপাতালে জুলেখা বেগমের মৃত্যু হয়।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email