বৃহস্পতিবার ১১ অগাস্ট ২০২২ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের জেএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ। পাশের হার ৮৮.৯১ ভাগ

pic-Ed-bpদিনাজপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের অধীনে অনুষ্ঠিত ২০১৩ সালের জেএসসি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। গড় পাশের হার ৮৮.৯১ ভাগ। গতকাল ২৯ ডিসেম্বর রোববার দুপুর ১ টায় দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মোঃ তোফাজ্জুর রহমান তার কার্যালয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল ঘোষনা করেন।

দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের অধীনে অনুষ্ঠিত ২০১৩ সালের জেএসসি পরীক্ষায় ১ লাখ ৭৮ হাজার ৫৮৮ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহন করে উত্তীর্ণ হয়েছে ১ লাখ ৫৫ হাজার ৪৭৩ জন। এদের মধ্যে ছাত্র ৭৬ হাজার ১০৩ জন ও ছাত্রী ৭৯ হাজার ৩৭০ জন। গড় পাশের হার ৮৮.৯১ ভাগ। ছাত্রদের পাশের হার ৮৯.১৬ ভাগ ও ছাত্রীদের পাশের হার ৮৮.৬৮ ভাগ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৫ হাজার ৮৩৬ জন। ফলাফলে ছাত্রদের তুলনায় ছাত্রীরা এগিয়ে রয়েছে।

জেএসসি পরীক্ষায় শতভাগ পাশকৃত বিদ্যালয়ের সংখ্যা ৫০৫টি, কেউই পাশ করেনি এমন (শূন্য ফলাফল প্রাপ্ত) বিদ্যালয়ের সংখ্যা ১৬টি। মোট কেন্দ্র সংখ্যা ২২৯টি ও অংশগ্রহনকারী বিদ্যালয়ের সংখ্যা ৩০২০টি।

ফলাফল প্রকাশ করে দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মোঃ তোফাজ্জুর রহমান বলেন, বিগত দু’বছরের তুলনায় এবার ফলাফল কিছুটা ভাল হয়েছে। এবার পাশের হার সামান্য বেড়েছে ও জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংখ্যাও বেড়েছে। গত বছর জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৪ হাজার ৫৩৪ জন এবং এবার জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৫ হাজার ৮৩৬ জন। বোর্ডের নিবিড় তত্বাবধানে ও অভিভাবকদের আমত্মরিকতার কারণে এবারে ফলাফল ভাল হয়েছে বলে তিনি জানান।

২০১০ সালে জেএসসি পরীক্ষায় ১ লাখ ২১ হাজার ৫৮২ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহন করে উত্তীর্ন হয় ৭৫ হাজার ৬০১ জন এবং পাশের হার ছিল ৬২.১৮ ভাগ ও জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৭৬৩ জন। ২০১১ সালে ১ লাখ ৬৫ হাজার ৮৯৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১ লাখ ৩৯ হাজার ৯৪৩ জন উত্তীর্ন হয়। পাশের হার ছিল ৮৪.৩৫ ভাগ ও জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৩ হাজার ৬৪৫ জন। ২০১২ সালে ১ লাখ ৭৩ হাজার ৭৮৬ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহন করে উত্তীর্ণ হয়েছিল ১ লাখ ৪৭ হাজার ৫০৫ জন। পাশের হার ছিল ৮৪.৮৮ ভাগ এবং জিপিএ-প পেয়েছিল ৪ হাজার ৫৩৪ জন।

২০১০, ২০১১ ও ২০১২ সালের তুলনায় ২০১৩ সালে গড় পাশের হার সামান্য বেড়েছে। অপর দিকে ২০১০ সালে শতভাগ পাশকৃত বিদ্যালয়ের সংখ্যা ছিল ৪৭টি, ২০১১ সালে ২৪২টি, ২০১২ সালে ৪৭৬টি এবং ২০১৩ সালে ৫০৫টি বিদ্যালয়।

ফলাফল প্রকাশের সময় দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের সচিব মোঃ আব্দুল মজিদ, উপ-সচিব ড. আব্দুর রাজ্জাক, উপ-পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মোঃ আরিফুল ইসলাম, সহকারী পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মোঃ রাকিবুল ইসলামসহ অন্যান্য কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

উলেস্নখ্য, দিনাজপুরে শিক্ষাবোর্ডর অধীনে চতুর্থবারের মত জেএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email