সোমবার ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের বকেয়া বিলের দাবীতে ঠিকাদারদের শিক্ষামন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান

Thikadarজিন্নাত হোসেন, দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর দিনাজপুর জোনের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নে নিয়োজিত ঠিকাদারেরা তাদরে বকেয়া বিলের দাবীতে  ২৭ এপ্রিল বুধবার দিনাজপুর জোনের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ শাহ্ আলমের মাধ্যমে শিক্ষামন্ত্রী বরাবর দাবী দাওয়া আদায়ের লক্ষ্যে একটি স্মারকলিপি প্রদান করেন।

ঠিকাদারেরা স্মারকলিপিতে অভিযোগ করেন বর্তমানে তারা দিনাজপুর জোনের অধীনে উলে­খযোগ্য ৪টি প্রকল্পে ২৩টি কলেজ, ১০১টি উচ্চ বিদ্যালয় ও ৩১টি মাদ্রাসার একাডেমিক ভবন নির্মাণ কাজে নিয়োজিত আছে যার টেন্ডার মূল্য ১২৮ কৌটি ২৮ লক্ষ টাকা। উক্ত টেন্ডার মূল্যের মধ্যে এপর্যন্ত মাত্র ৩৬ কৌটি ৬১ লক্ষ টাকার বিল পরিশোধ করা হয়েছে এবং এখনো সিংহভাগ ৭১ কৌটি ১২ লক্ষ টাকা বকেয়া আছে। প্রায় সব কাজ সমাপ্তির পথে হলেও তাদের বিলের বিপরীতে প্রয়োজনীয় অর্থের বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে না।

ঠিকাদারেরা অভিযোগ করেন বিভিন্ন মেয়াদে বাস্তবায়নাধীন এ সমস্ত প্রকল্পে একসাথে সব কটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের টেন্ডার করা হয়েছে অথচ সেই অনুপাতে অর্থ বরাদ্দ না থাকায় সংশি­ষ্ট কাজে নিয়োজিত ঠিকাদারেরা তাদের প্রয়োজনীয় অনুপাতে বিল পাচ্ছে না। তাদেরকে সামান্য যে পরিমাণ বিল দেয়া হয় তা ব্যাংকের ইণ্টারেষ্টে শেষ হয়ে যায়। টেন্ডার পিপিআর এর নির্দেশনায় প্রয়োজনীয় অর্থ মওজুদ রেখে টেন্ডার করার বিধান থাকলেও তা মানা হচ্ছে না। অপরন্ত পিপিআর বহির্ভূত ‘‘অর্থ প্রাপ্তি সাপেক্ষে বিল পরিশোধ করা হবে’’ মর্মে একটি মনগড়া শর্তজুড়ে দিয়ে আজ ঠিকাদারদের সর্বশান্ত করা হচ্ছে।

ঠিকাদারেরা অভিযোগ করেন, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের এই হটকারী সিন্ধান্তের কারনে বর্তমান গণতান্ত্রিক সরকারের ভাবমূর্ত্তী মারাত্নকভাবে বিনষ্ট হচ্ছে এবং সরকারের উন্নয়ন মূলক কাজের বাধা সৃষ্টি করে জনপ্রিয়তা প্রশ্নের সমুখীন করা হ&&চ্ছ। ঠিকাদারেরা আশংকা প্রকাশ করে বলেন যে, প্রয়োজনীয় অর্থের ব্যবস্থা না করলে দেশের শিক্ষা খাতের দৃশ্যমান উন্নয়ন বন্ধ হয়ে যাবে। তারা মনে করেন এটি সরকারের ভাবমূর্ত্তী নষ্ট ও উন্নয়নমূলক কাজ বাধাগ্রস্থ করার সুদুর প্রশারী ষড়যন্ত্র।

ঠিকাদারেরা তারের অস্থিত্য রক্ষার্থে নিম্নোক্ত দাবীগুলি জানায়ঃ-

১। অনতিবিলম্বে সম্পাদিত এবং চলমান সকল নির্মাণ কাজের সম্পূর্ণ বিল পরিশোধ করতে হবে।

২। বর্তমানে যে সমস্ত নির্মাণ কাজের কার্যাদেশ দেয়া হচ্ছে সে সমস্ত কাজের অনুকুলে আর্থিক সংস্থান করে তারপরে নির্মাণ কাজ সমূহ শুরু করার উদ্দ্যেগ নিতে হবে।

৩। পরবর্তীতে উন্নয়ন মূলক প্রকল্পের অনুকুলে আর্থিক সংস্থান রেখে টেন্ডার আহবান করতে হবে।

৪। আগামী ৩০শে জুন ২০১৪ইং এর মধ্যে এর মধ্যে আমাদের সকল বকেয়াবিল পরিশোধসহ চলমান কাজ সমূহের প্রয়োজনীয় অর্থের সংস্থান না করলে আমরা অস্থিত্ব রক্ষার স্বার্থে চলমান সকল কাজ বন্ধ করতে বাধ্য হবো এবং এরই সাথে প্রতীকি অনশন-আমরণ অনশন এর ন্যায় আত্নহননের  চরম পথ বেছে নেয়া আমাদের জন্য অপরিহার্য্য হয়ে পড়বে।

স্বারকলিপি প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন ঠিকাদার আতাউর রহমান আজাদ বাবলু, মোঃ আলাউদ্দীন, মোঃ বজলুল হক, একেএম আজাদ, মোঃ আফজাল হোসেন প্রমুখ।