শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর সোনালী ব্যাংক কর্পোরেট শাখায় হেপাটাইটিস্-বি ভাইরাস ভ্যাক্সিনেশন সেমিনার

জিন্নাত হোসেন : দিনাজপুর সোনালী ব্যাংক কর্পোরেট শাখায় বিটিএফ এর উদ্যোগে হেপাটাইটিস্-বি ভাইরাস (জন্ডিস) পরীা ও ভ্যাক্সিনেশন সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে।

১৮ মার্চ বুধবার দিনাজপুর সোনালী ব্যাংক কর্পোরেট শাখায় বিটিএফ এর উদ্যোগে প্রধান অতিথি হিসেবে দিনাজপুর সোনালী ব্যাংক কর্পোরেট শাখার ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার এস.এম মছির উদ্দীন ওয়ারেছী হেপাটাইটিস্-বি ভাইরাস (জন্ডিস) পরীা ও ভ্যাক্সিনেশন সেমিনার উদ্বোধন করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন সোনালী ব্যাংকের কর্মকর্তা কমল কুমার রায়, এস.এম নুরুল্লাহ, জালাল উদ্দীন, ইসমাইল হোসেন, কাছিম উদ্দিন, মোঃ লিয়াকত আলী, মোঃ নুরুল হুদা, বিটিএফ এর প্রকল্প পরিচালক মোঃ মোকছেদুল মমিন, পরিচালক উন্নয়ন মোঃ মহিবুবুল হক, পরিচালক উন্নয়ন রেজাউল করিম রানা, স্বাস্থ সহকারী মালতি চক্রবর্তী, সাবরিলা আক্তার, ইয়ামিন আলী সরকার, মনিষা নাসরিন, নূর বানু প্রমুখ। স্বাগত বক্তব্যে বিটিএফ এর প্রকল্প পরিচালক মোঃ মোকছেদুল মমিন বলেন, হেপাটাইটিস বি একটি ুদ্র ভাইরাস। এটি শরীরে একবার প্রবেশ করলে লিভার কোষের ভিতরে অবস্থান নেয়। তখন সেলের ভিতর থেকে হাজার হাজার ভাইরাস তৈরী হয়। ভাইরাসে আক্রান্ত কোষগুলো মারা যায়, ফলে লিভারের কার্যমতা নষ্ট হয়ে যায়। আর তখনই লিভার ক্যান্সার/সিরোসিস হয়ে থাকে। এ জন্য হেপাটাইটিস-বি ভাইরাসকে মরণব্যাধিও বলা হয়। পরিবারের একজন সদস্য অক্রান্ত হলে অন্যরাও দ্রুত আক্রান্ত হতে পারে। হেপাটাইটিস-বি ভাইরাসকে এক ধরনের ছোঁয়াচে ভাইরাসও বলা যেতে পারে। এ রোগের লন প্রকাশের পূর্বেই, একমাত্র রক্তের পরীার মাধ্যমে প্রথম স্তরে দরা পড়লে চিকিৎসার মাধ্যমে ভাল হওয়ার সুযোগ রয়েছে। অন্যথায় এ রোগের লন একবার প্রকাশ পেলে বাঁচার আর কোন উপায় থাকে না। আমাদের সকলের উচিৎ অতি দ্রুত রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে নিশ্চিত হয়ে প্রতিরোধ মূলক টিকা/ভ্যাক্সিন গ্রহণ করা এবং অন্যকে উৎসাহিত করা।

 

Spread the love