শুক্রবার ১২ এপ্রিল ২০২৪ ২৯শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দিনাজপুর হাবিপ্রবি’র ভিসির বিরুদ্ধে মিথ্যা, বানোয়াট বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছেন শিক্ষক ও কর্মকর্তারা

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর প্রতিনিধি : হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর মোঃ রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও বানোয়াট বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম ও প্রগমতশীল কর্মকর্তা পরিষদ নেতৃবৃন্দ। রবিবার সংবাদপত্রে পাঠানো পৃথক পৃথক বিবৃতিতে তারা এই প্রতিবাদ জানান।

প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরাম সহ-সভাপতি প্রফেসর ড. মো. আনিস খান ও সাধারন সম্পাদক প্রফেসর ড. বলরাম রায় কর্তৃক প্রেরিত বিবৃতিতে দুঃখ প্রকাশ করে বলা হয়, চলতি বছরের ৪ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হাবিপ্রবি’র ভর্তি পরীক্ষায় ডিজিটাল জালিয়াতির অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগে বিশ্ববিদ্যালয়ের তিনজন ছাত্রকে তদন্ত কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন দেশ, জাতি এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বার্থে উক্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। বহিস্কৃত ছাত্ররা কতিপয় ছাত্রকে নিয়ে প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে হাবিপ্রবি’র ভাইস-চ্যান্সেলরর বিরুদ্ধে মিথ্যা, বানোয়াট ও উদ্দেশমূলক বক্তব্য অব্যাহত রেখেছে। এরই ধারাবাহিকতায় শনিবার তারা সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করে যে, হাবিপ্রবি’র ভাইস-চ্যান্সেলর ছাত্র শিবিরের সাথে গোপন বৈঠক করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়কে অস্থিতিশীল করার জন্য। তারা এহেন মিথ্যা ও কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য-এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। তারা বলেন, কতিপয় ছাত্র সংবাদ সম্মেলনে আরো যেসব অভিযোগ করেছেন তা পুরোপুরি মিথ্যা। গুটিকয়েক ছাত্রনেতা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট করছেন। তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ভর্তি, শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিকট থেকে জোর করে চাঁদা আদায় করে। চাঁদা না দিলে মারধর, সব ধরনের উন্নয়নকাজে দখলদারি ও চাঁদা আদায় করতে চান। বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে কর্তৃপক্ষ আইনানুযায়ী ব্যবস্থা নেয়ায় এসব ছাত্র হাবিপ্রবি’র ভাইস-চ্যান্সেলরের বিরুদ্ধে বিষোদাগারে নেমেছেন বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। হাবিপ্রবি’র ভিসি প্রফেসর মো. রুহুল আমিন একজন ন্যায় নিষ্ঠাবান প্রগতিশীল সিনিয়র শিক্ষক। তার বিরুদ্ধে জামাত-শিবিরের সাথে সংশি­ষ্টতার যে মিথ্যা অভিযোগ আনা হয়েছে তা সম্পূর্ণ ভিক্তিহীন ও কাল্পনিক। এসব অভিযোগের সত্যতার লেশমাত্র নেই।

প্রগতিশীল কর্মকর্তা পরিষদঃ একই ভাবে হাবিপ্রবির প্রগতিশীল কর্মকর্তা পরিষদের সভাপতি কৃষিবিদ মো. ফেরদৌস আলম ও সাধারন সম্পাদক আ নম ইমতিয়াজ হোসেন কর্তৃক প্রেরিত অপর এক বিবৃতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর মো. রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের প্রতিবাদ জানিয়েছেন। বিবৃতিতে তারা বলেন, যখন ভিসি প্রফেসর মো. রুহুল আমিনের বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়টি দেশের অন্যতম শিক্ষাপীঠে পরিণত হতে চলেছে ঠিক তখনই শুধুমাত্র ব্যক্তিগত আক্রোশের বশীভূত হয়ে কতিপয় ছাত্র এ ধরনের সংবাদ সম্মেলন করে নিজেদের অপকর্মের সাফাই দেয়ার চেষ্টা করছে মাত্র। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলরকে জড়িয়ে এ ধরনের বক্তব্য অত্যন্ত অশালীন এবং মানহানিকর। তারা বলেন, বর্তমান ভিসি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শের একজন পরিক্ষীত সৈনিক। তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে আদর্শবান একজন মানুষ। বর্তমানে তিনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন এবং বঙ্গবন্ধু পরিষদ, দিনাজপুর জেলা শাখার সম্মানিত উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করছেন। তাছাড়াও বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ও গরেষনা পরিষদ, দিনাজপুর জেলা শাখার সম্মানিত সভাপতি ও বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদের সম্মানিত সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। তারা আশা প্রকাশ করে বলেন, ভবিষ্যতে এ ধরনের মিথ্যা বক্তব্য প্রদান থেকে বিরত থাকবে এবং শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করবে।

Spread the love