সোমবার ২২ এপ্রিল ২০২৪ ৯ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দিল্লী জয়ে কেজরিওয়াল

ভারতের দিল্লী বিধানসভা নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে বিজয় লাভ করেছে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের আম আদমি পার্টি। প্রাক্তন কর পরিদর্শক অরবিন্দ কেজরিওয়ালের এ বিজয়ের মধ্য দিয়ে আবার নতুন ভাবে রাজনীতির মাঠে ফিরে এলেন বলে মনে করা হচ্ছে।
জয়ের পর আম আদমি পার্টির প্রধান অরবিন্দ তার দলের সমর্থকদের উদ্দেশে বলেন, আমি একা কিছু করতে পারব না। আমি ক্ষুদ্র মানুষ, সবার সহযোগিতা চাই। দিল্লীকে এমন শহরে পরিণত করব, যেখানে ধনী, গরীব সবাই গর্ব করবে। কেজরিওয়াল তার বিজয়ের জন্য দিল্লরি জনগণকে অভিনন্দন জানান।

তিনি এ বিজয়কে জনগণের বিজয় অভিহিত করে দুর্নীতি ও ভিআইপি সংস্কৃতি অবসানকে অগ্রাধিকার দেয়ার অঙ্গীকার করেন। এছাড়া তিনি নিজেকে একজন সাধারণ মানুষ উল্লেখ করে জনতার মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার অঙ্গীকারও করেন।

এদিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নির্বাচনে আম আদমি পার্টির নেতা অরবিন্দ কেজরিওয়াল বিপুল ভোটে এগিয়ে থাকায় পরাজয় মেনে নিয়ে তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। সেই সাথে কেজরিওয়ালকে সম্পূর্ণ সমর্থন দিয়ে যাওয়ারও প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন মোদি। মোদির দল বিজেপির পক্ষ থেকে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে প্রার্থী ছিলেন সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা কিরণ বেদী।

তিনিও কেজরিওয়ালকে আভিনন্দন জানিয়ে দিল্লীকে বিশ্বমানের নগরে পরিণত করার আহ্বান জানান। অপরদিকে কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী ও সহ-সভাপতি রাহুল গান্ধীও কেজরিওয়ালকে তার বিজয়ে আভিনন্দন জানান। রাহুল গান্ধী বলেন, দিল্লীর জনগণ আম আদমি পার্টিকে বেছে নিয়েছে এবং কংগ্রেস জনরায়কে শ্রদ্ধা করে।

পক্ষান্তরে বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী কিরণ বেদী প্রায় আড়াই হাজার ভোটে হেরে গেছেন। খোদ রাজধানী দিল্লীতে এমনিতেই লজ্জাজনকভাবে পরাজিত হয়েছে বিজেপি। তার ওপর যাকে সামনে নিয়ে বিজেপি ভোট যুদ্ধে গিয়েছিল, সেই ‘আয়রন লেডি’ নামে পরিচিত কিরণ বেদীর পরাজয় নিঃসন্দেহে আরো লজ্জাজনক বিষয়। কৃষ্ণনগর কেন্দ্র্রে আপ প্রার্থীর কাছে হেরে গেছেন তিনি। হেরে যাওয়ার পরে কিরণ বেদি বলেছেন, অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে মোবারকবাদ দিচ্ছি। ধন্যবাদ।

এর আগে স্থানীয় সময় সকাল ৮টা থেকে দিল্লীর ১৪টি কেন্দ্রে ভোট গণনা শুরু হয়। গণনার সব প্রক্রিয়া ভিডিওতে ধারণ করা হচ্ছে।

সরকারের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, নগরীর ১৪টি স্থানের ৭০টি কক্ষে ইলেক্ট্র্রনিক ভোটিং মেশিনগুলো রাখা হয়েছে। এসব কক্ষ ঘিরে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। প্রতিটি কক্ষের পাহারায় আছে কেন্দ্রীয় শিল্প নিরাপত্তা বাহিনী, সশস্ত্র পুলিশ ও স্থানীয় পুলিশ।

প্রসঙ্গত দিল্লী বিধানসভায় মোট আসন ৭০টি।আজ মঙ্গলবার দুপুর সোয়া একটা পর্যন্ত আম আদমি পার্টি ৬৭টি, বিজেপি ৩টি আসনে এগিয়ে রয়েছে। কংগ্রেস এবং অন্যান্য দল কোনো আসনেই এগিয়ে নেই। সরকারিভাবে এখনো ফল ঘোষণা করা হয়নি। দিল্লীর বিধানসভা নির্বাচনে এএপি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে যাচ্ছে বলে আগেই কেন্দ্র ফেরত একাধিক জরিপে আভাস দেয়া হয়েছিল।

অভ্যন্তরীণ খবরের ভিত্তিতে এএপি ধারণা করছিল, তারা ৫০ আসনের কম পাবে না। জয়ের আগাম আভাসে দলটির স্বেচ্ছাসেবক ও সমর্থকেরা উল্লাসে মেতে ওঠেন।
কেন্দ্রফেরত জরিপে বলা হয়েছিল, বিজেপি ২৬ আসন পেতে পারে। জরিপের ওই অনুমান প্রত্যাখ্যান করে বিজেপি। বিজেপির ধারণা ছিল, তারা ৩৪ থেকে ৩৮টি আসন পাবে। আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি দিল্লীর মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে ফের শপথ নেবেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল। দিল্লীর রামলীলা ময়দানে তিনি শপথ গ্রহণ করবেন।

উল্লেখ্য গত শনিবার দিল্লীতে বিধানসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে ৭০টি আসনে মোট ভোটারের ৬৭ দশমিক ১৪ শতাংশ ভোট দিয়েছেন। নির্বাচনের পর প্রায় সব জরিপে আম আদমি পার্টি (এএপি) এগিয়ে থাকলেও তা মানতে নারাজ ছিল ক্ষমতাসীন দল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)। ২০১৩ সালের ২৮ ডিসেম্বর দিল্লীর সপ্তম মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন কেজরিওয়াল। সে সময় আম আদমি পার্টি ২৮টি বিজেপি ৩১টি ও কংগ্রেস ৮টি আসনে জিতেছিল। কেজরিওয়াল মাত্র ৪৯ দিন ক্ষমতায় থেকে ২০১৪ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি পদত্যাগ করেন। এ সময় তিনি নাগরিকদের উন্নয়নে কিছু ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। কিন্তু তার আকস্মিক পদত্যাগে লোকজন ক্ষুব্ধ হয়েছিল।

Spread the love