রবিবার ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দেশপ্রেম জাগ্রত করার একমাত্র উপায় হচ্ছে মানসম্মত শিক্ষা

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের নবম সমাবর্তনে রাষ্ট্রপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, আজকের এই সমাবর্তন একদিকে যেমন তোমাদের অর্জনকে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি দিচ্ছে, তেমনি দায়িত্বও অর্পণ করছে। সে দায়িত্ব নিজের পরিবারের প্রতি, সমাজের প্রতি, সর্বোপরি দেশ ও জাতির প্রতি। মনে রাখবে, তোমাদের এ পর্যায়ে নিয়ে আসতে সমাজের মেহনতি মানুষের অবদান রয়েছে। তাদের কাছে তোমরা ঋণী।

বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টেডিয়াম মাঠে রবিবার দুপুরে নবম সমাবর্তনে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ সব কথা বলেন। এ সময় তিনি বলেন, শিক্ষার সঙ্গে গবেষণা ওতপ্রোতভাবে জড়িত। কারণ গবেষণার মাধ্যমে সৃষ্টি হয় নতুন জ্ঞানের, যা সমাজের চাহিদা পূরণে ভূমিকা রাখে।

তিনি আরও বলেন, মনে রাখবে সাফল্যের শিখরে পৌঁছতে অধ্যবসায়, পরিশ্রম ও কাজের প্রতি ভালবাসার বিকল্প নেই। থাকতে হবে সততা ও নিষ্ঠা। তাহলেই তোমরা জীবনে সাফল্য অর্জন করতে পারবে। উচ্চশিক্ষার মান নিয়ে যাতে কেউ প্রশ্ন তুলতে না পারে তা নিশ্চিত করতে হবে। সম্মিলিত প্রচেষ্টা, নিরন্তর শিক্ষা ও গবেষণাসহ জ্ঞানের আদান-প্রদানের মাধ্যমে দেশের প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় হয়ে উঠুক জ্ঞান চর্চা ও বিকাশের শ্রেষ্ঠ পাদপীঠ— এ প্রত্যাশা করেন তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের নবম সমাবর্তন বক্তা হিসেবে দিল্লীর জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়ার উপাচার্য অধ্যাপক তালাত আহমেদ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে অন্য সবকিছুর চেয়ে শিক্ষার্থীরাই প্রধান। বড় বড় দালান-কোঠার চেয়ে শিক্ষার্থীদের উৎকর্ষতার মাধ্যমেই বিশ্ববিদ্যালয়গুলো পরিচিত হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক এন্তাজুল হকের সঞ্চালনায় সমাবর্তনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন উপাচার্য অধ্যাপক মুহম্মদ মিজানউদ্দিন। এরপর বিভিন্ন অনুষদের ডিন, পিএইচডি, এমফিল এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রিপ্রাপ্তদের আচার্যের নিকট উপস্থাপন করেন। আচার্যের ডিগ্রি প্রদানের পর বক্তব্য দেন সমাবর্তন বক্তা অধ্যাপক তালাত আহমেদ। এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে বক্তব্য রাখেন।

এবারের সমাবর্তনে ২০০৬ সাল থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ৯টি অনুষদ ও ৫টি ইনস্টিটিউট থেকে পিএইচডি, এমফিল, স্নাতকোত্তর এবং এমবিবিএস, বিডিএস ও ডিভিএম ডিগ্রি অর্জনকারী ৪ হাজার ৭৭১ জন গ্র্যাজুয়েটকে ডিগ্রি প্রদান করা হয়।

Spread the love