শনিবার ২ জুলাই ২০২২ ১৮ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দেশব্যাপী নন এমপিও ভুক্ত শিক্ষকদের করুণ দশা,মানবেতর জীবন-যাপন !

Copy (2) of 888888সাংবাদিক ও লেখক মোশাররফ হোসেন

প্রতিষ্ঠান বাঁচাও,শিক্ষক বাঁচাও,বেতন দিন অথবা নুন্যতম সম্মানী ভাতা দিয়ে বাঁচিয়ে রাখুন,তাদের আহাজারি কে শুনে,কেইবা আমলে নেয় ?  সম্মানিত শিক্ষকবৃন্দ বলছেন দূর্ভাগ্যের অপর নাম,নন এমপিও শিক্ষক কুল। শিক্ষক মানুষ গড়ার কারিগর,জাতীর কর্ণধার,সমাজের বিবেক,সুশিক্ষিত সৈনিক,সর্বোচ্চ সম্মানের অধিকারী নানাবিধ বিশেষনে কথায় কথায় মূল্যায়িত করা হলেও বাস্তক্ষেত্রে তার কোন প্রতিফলন ঘটছে না। সচেতন মহলে শতভাগ জানা আছে সারাদেশে নন এমপিও প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকগন দির্ঘ এক যুগের অধিক কাল থেকে অবর্ণনীয় দুঃখ কষ্ট তথা মানবেতর জীবন-যাপন করছে তা জেনে ও দেখে সরকার কোন প্রকার নূন্যতম পদক্ষেপ নিচ্ছে না,ফলে দেশের প্রায় ৪ সহস্রাধীক নন এমপিও প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক কর্মচারীবৃন্দ আমরণ অনশন,ঘেরাও,মিছিল মিটিং,মানববনদ্ধন সহ বিভিন্ন ধরনের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের মাধ্যমে তাদের কে এমপিও ভুক্ত করার দাবী জানিয়ে আসছে,বিগত কয়েক বছর ধরে। কিন্তু সরকার তাদের যৌক্তিক দাবী অগ্রাহ্য করে অন্যান্য খাতে ব্যাপক হারে উন্নয়ন করে চলেছে। অথচ জাতীয় একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ খাতে সরকার বিনিয়োগে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। শত প্রতিকুল পরিবেশেও অতি নিষ্ঠার সাথে হাজার হাজার সম্মানিত শিক্ষকবৃন্দ তাদের উপর অর্পিত মহান দায়িত্ব খেয়ে না খেয়ে,দিনের পর দিন,মাসের পর মাস,বছরের পর বছর পালন করে আসছে। দেশ মাতৃকার উন্নয়ন ও জাতীকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করতে যাদের অক্লান্ত পরিশ্রম সর্বাধিক অগ্রাধিকার পাওয়ার কথা অথচ তারাই আজ রাষ্ট্রীয়ভাবে চরম অবহেলিত,যা বর্ণনা করলেন দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার প্রাণনগর আইডিয়াল নিম্ন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোছাঃ কোহিনূর বেগম এবং অফিস সহকারী মিসেস গোলেছা বেগম ওরফে লিজা। যে দৃশ্য বোধ করি প্রতিটি বিবেকবান মানুষের হৃদয়কে কঠিনভাবে মর্মাহত করছে। এটি একেবারে চিরন্তন সত্য,যে জাতি যত শিক্ষিত,বিশ্ব বাজারে সে জাতি তত উন্নত। জাতি কে শিক্ষিত করতে নন এমপিও শিক্ষকবৃদের অবদান ছোট করে দেখবার কোন অবকাশ নেই। সম্প্রতি সরকার বাহাদূর শিক্ষা বিস্তারে নানাবিধ কর্মসূচি হাতে নিয়ে তা ক্রমান্বয়ে বাস্তবায়ন করে চলেছে যেটি নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবী রাখে এবং সকলে এ কর্মসূচিকে সাধুবাদ জানিয়েছেন। ইতোমধ্যে প্রাথমিক স্তরের ২৬ হাজারের অধিক রেজিঃ স্কুল কে জাতীয় করণ করা হয়েছে,যেটি সরকারের একটি বিশাল অজর্ন এবং বাংলাদেশের ইতিহাসে উন্নয়নের মাইল ফলক হয়ে থাকবে চিরদিন। এতে পুর্নবাসিত হয়েছে অস্বচ্ছল লক্ষাধিক শিক্ষক পরিবার। একইভাবে মাধ্যমিক স্তরেও এমপিও ভুক্তি করা হয়েছে দেড় সহস্রাধীক প্রতিষ্ঠান। আর মাত্র বাকী আছে সাড়ে তিন থেকে চার হাজার প্রতিষ্ঠান। একটি প্রগতিশীল সরকারের পক্ষে এ দাবী পুরণ করা অতি সহজ ব্যাপার,প্রয়োজন কেবলমাত্র রাষ্ট্রের কর্তা ব্যক্তিদের একটু সুদৃষ্টি,সামান্যতম সহানুভুতি এবং উদ্যোগ গ্রহন করা। অভুক্ত বিনা বেতনে কর্মরত অপর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের একই উপজেলার বড় করিমপুর গ্রামের আম্রকানন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বৃন্দাবন শর্মা জানান দীর্ঘদিন থেকে শিক্ষক কর্মচারীসহ সরকারী নীতিমালার আলোকে অতি আন্তরিকতার সাথে বুক ভারা আশা নিয়ে তাদের দায়িত্ব পালন করছে,কিন্তু হচ্ছে হবে এমন অপেক্ষায় দিনান্তর প্রতিক্ষায় আছি। একইভাবে সনকা নিম্ন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মামুনুর রশীদ মর্মাহত ও দুঃখ ভরাক্রান্ত কন্ঠে প্রতিবেদককে বলেন কবির ভাষায় বলতে হয়,ক্ষুধার রাজ্যে পৃথিবীটা গদ্যময়,হ-য-ব-র-ল। যথার্থ এ উক্তিটি বেতনহীন শিক্ষকগনের বর্তমান অবস্থা ক্ষেত্রে শতভাগ প্রতিফলিত বলে মনে করেন সুধীমহল। বাহাবা’র মোড়কে তাদের কে দিয়ে সমাজের কর্তাব্যাক্তিগন,রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ এমন কি রাষ্ট্রের দায়িত্বশীল মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়গন জাতীয় উন্নয়ন কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত করে জাতীয় ক্লান্তিলগ্নে উত্তোরণে যথারীতি কাজ করে নিচ্ছেন। বিনিময়ে তারা কোন কোন ক্ষেত্রে লামছাম পারিশ্রমিক পেলেও,বহুলাংশে উপেক্ষিত,শুধুই বাহবা দিয়ে শান্তনা ছাড়া কিছুই মিলছে না তাদের নিত্যদিনের ভাগ্যে। কর্মরত শিক্ষক মহলের পিঠ দেয়ালে ঠেকে যাওয়ার আর একটুও বাকী নেই,তথাপি তারা থেমে নেই,খেয়ে না খয়ে,কখনো অর্ধাহারে,জীর্ণ-শীর্ণ বসনে শিক্ষকতার মহান পেশা চালিয়ে যাচ্ছে,যা দেখার কেউ নেই। স্বাভাবিক কর্মকান্ড পরিচালনায় ও শিক্ষার পরিবেশ অটুট রাখতে তাদের সহায় সম্বল হারিয়ে অনেকে সর্বশান্ত। কেউ তাদের বর্ণনায় বলেন তারা অনেকে স্কুল চালাতে গিয়ে ভিটে-মাটি জমাজমি এমনকি সহ-ধর্মীনী’র গহনা,স্বর্ণালংকার বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছে। তার পরেও মিলছে না তাদের কাংখিত সাফল্য,দির্ঘদিনেও পুরন হচ্ছেনা লালিত স্বপ্ন। তাদের মানবেতর জীবন যাত্রার অবর্ণনীয় আহাজারি থেকে জানা যায় কর্মক্ষেত্রে এই শিক্ষকতাকে মহান পেশা ভেবে এবং সম্মান সূচক সর্বোচ্চ ডিগ্রি নিয়ে আজ কেবলই নিজেকে ধিক্কার ছাড়া কিছুই মিলছে না তাদের ভাগ্যে। একই পেশায় মূল্যবান অর্থ,সময়,জীবন-যৌবন হারিয়ে তাদের পরিবারে থাকা বৃদ্ধ মাতা পিতার চিকিৎসা সেবার জন্যে সামান্য ব্যয়ভার বহন করার উপায় নেই, এমন পরিস্থিতিতে সীমাহীন ক্ষোভ লালন করছে অনেকে। প্রতিনিয়ত মিছেই শান্তনা দিয়ে চলছে স্ত্রী-পূত্র-কন্যাদের কাছে,যত দারিদ্রতা তাদের গ্রাস করুক না কেন,তারা তো সমাজের প্রথম সারির মানুষ। তাই সাধারণ অস্বচ্ছল নিম্ন আয়ের মানুষের জীবন যাত্রার সাথে তাদের তুলনা করা চলে না,এ বিশ্বাস থেকেই তারা না খেয়ে জীবন ধারন করলেও সেটি অপরের বোঝা দুরহ ব্যাপার। কেননা শিক্ষিত মানেই ঘরের কথা পরকে জানতে দেয়া হয় না। নিজের শত গ­ানী থাকলেও সেটি প্রকাশ পায় না,সমাজের বুকে এটিই হচ্ছে নন এমপিও শিক্ষক কুলের আবাহমান জীবনযাত্রা। জাতি বিনির্মানে এভাবেই তারা অবিরাম সাফল্যের প্রতিক্ষায় প্রহর গুনছে,ভাগ্যের কি নির্মম পরিহাস,শিক্ষকদের সংস্পর্শে জাতির চাহিদা অনেকাংশে পুরণ হলেও,তাদের ভাগ্যে কিছুই মিলছে না,তথাপি তাদের একবিন্দু পিছুটান নেই। হতাশাগ্রস্থ্য শিক্ষকগন নিজেদের জীবন বিসর্জন দিয়ে চলেছে,বিলিন করে দিচ্ছে জাতি গঠনে নিজেদেরকে,তারা ভেবে পাচ্ছে না,তাদের সন্তানদের ভবিষ্যত কি হবে ? শিক্ষকগন বলছেন তারা পারিবারিক,সামাজিক এমনকি রাষ্ট্রীয়ভাবে সম্পুর্ণরূপে কোনঠাসা। কোথাও তাদের দাঁড়াবার ঠাঁই নেই। বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠান যেমন বিবাহ,আকিকা,জম্মদিন সহ নানান উৎসবে একজন সমাজ সচেতন মানুষ হিসেবে সামান্যতম উপঢৌকন নিয়ে সেখানে উপস্থিত হবে এমন সংগতি থাকে না। তাছাড়া ঈদ-পুজায় প্রতিবেশীদের সাথে তাল মিলিয়ে চলাও কঠিন বলে ব্যাখ্যা করেছেন অনেকে। ফলে পরিবারের সদস্যদের মাঝে পেতে হয় স্মরণকালের লাঞ্চনা,একজন শিক্ষক তার বর্ণনায় বলেন সে সময় মৃত্যু কামনা ছাড়া আর ভাববার কিছুই থাকে না। সন্তানদের কে শান্তনা দেবার কোন ভাষা সে সময় মুখ থেকে বেড়িয়ে আসে না,নিজেকে মনে হয় আমি যেন সমাজের একটা বোঝা মাত্র। এত সীমাহীন প্রতিকুল পরিবেশে জীবন-যাপন করেও ঐ সকল শিক্ষকেরা ছাত্র/ছাত্রীদের ভালভাবে লেখাপড়া শিখিয়ে কৃতিত্বের সাথে উপরের সিঁড়িতে উঠতে সহায়ক ভুমিকা পালন করে এবং তাদের অবহেলিত শিক্ষা নিকেতন হতে যখন অসংখ্য ছাত্র/ছাত্রী মেধা তালিকায় উর্ত্তীর্ণ হয়,শিক্ষকবৃন্দ তখন অতীতের সকল দুঃখ-কষ্ট-বেদনা ভুলে গিয়ে দৃঢ় মনোবল নিয়ে সামনের দিকেই এগিয়ে চলে। কখনো তারা পিছু হটে না। উলে­াসিত শিক্ষার্থীদের আনন্দে তারাও সাময়ীক পুলোকিত হলেও হৃদয়ে চাপা ক্ষোভ সর্বদা নাড়া দিতে থাকে। আবেগ জনিত বক্তব্যে শিক্ষকবৃন্দ আরো বলেন আমাদের দেশে বিভিন্ন সেক্টরে সরকার উদার নীতি অবলম্বন করলেও নন এমপিও প্রতিষ্ঠান এবং শিক্ষক কর্মচারীদের সাথে বৈষম্যমূলক আচরণ করছেন,একজন শিক্ষক বিষয়টি এমন ভাবে তুলে ধরেন যে দেশে ক্রিড়াঙ্গনে ক্রিকেটারদের উইকেটের জন্য সেঞ্চুরী,ম্যান অব দ্যা ম্যাচ,ইত্যাদি  বিজয়ের জন্য তাদের কে সরকার ও বেসরকারীভাবে পুরষ্কার স্বরূপ কল্পনাতীত লাখ লাখ টাকা ও দামী দামী সামগ্রী,গাড়ী-বাড়ী দেয়া হয় কিন্তু শিক্ষকদের সাফল্যে তেমন কোন সহযোগিতা তো দুরের কথা, মৌলিক চাহিদা পুরণে সবাই নিজেকে লুকিয়ে রাখে এবং এগিয়ে আসতে নারাজ। একজন প্রধান শিক্ষক আরো উলে­খ করে বেলেন আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস,স্বাধীনতা দিবস,বিজয় দিবস সহ বিশেষ বিশেষ দিনে আমাদের দেশে হাসপাতালে সকল রোগী এবং জেলখানায় বন্দী হাজতি-কয়েদিদের তথা অপরাধীদেরকেও উন্নত মানের খাবার রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে সরবরাহ করা হয়ে থাকে কিন্তু ঐ সব দিনেও বিনা বেতনে কর্মরত শিক্ষকেরা পরিবার পরিজন নিয়ে ডাল ভাত খেয়ে দিনাতিপাত করে থাকে। তাই ক্ষোভের যাতনায় পৃষ্ঠ সহিদুল ইসলাম স্বাধীন জানালেন এ দেশে জ্ঞানীজনেরা জীবদ্দশায় তাদের মুল্যায়ন পায়না,কেবলই মরার পরে সংবর্ধিত হয়ে থাকে এবং তার গুনের কারণে করা হয় স্মরনসভা। নন এমপিও শিক্ষক কর্মচারী ঐক্য জোটের এক শীর্ষ নেতা মন্তব্য করেন যে দেশে সত্যিকার গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত না হওয়ায়,সমাজের অশিক্ষিত,স্বল্প শিক্ষিত,পেশীশক্তি সম্পন্ন বিত্তবানরা এখন অধিকাংশ ক্ষেত্রে সমাজপতি বনে গেছেন,ফলে গণদাবী এবং অগ্রধীকার ভিত্তিতে কোন কাজ হচ্ছে না। যে ব্যাপারটি তৃর্ণমূল মাঠ পর্যায় থেকে রাষ্ট্রীয় পর্যন্ত গিলে ফেলেছে। চলমান চর্চার কারণে রাষ্ট্রে দুষ্টের উত্থান এবং শিষ্টের যবনিকা পাত ঘটতে শুরু করেছে। কিন্তু উন্নয়ন কামীদের মতে দুষ্টের দমন,শিষ্টের প্রসার প্রয়োজন। দেশে হাজারো উন্নয়ন কর্মসূচিতে নন এমপিও শিক্ষক কর্মচারীরাও একদিন না একদিন সরকার বাহাদূরের নজরে আসবে,এমন আশায় শত কষ্ট উপেক্ষা করে তারা প্রহর গুনতেই থাকবে,যতদিন না তাদের স্বপ্ন পুরন না হয়।

অপর এক শিক্ষক নেতা সকলের পক্ষ থেকে আশাবাদ ব্যাক্ত করে বলেন তাদের দাবী অতি সম্প্রতি সময় ব্যবধানে সরকার বাহাদূর আমলে নিবেন,তারা অবশ্য অবশ্যই অল্প দিনের মধ্যে আলোর মুখ দেখতে পাবে। সংশি­ষ্ট মহলকে তিনি এতদ্ব বিষয়ে সদয় ও আন্তরিক হতে সুষ্টিকর্তার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email