রবিবার ৩ মার্চ ২০২৪ ১৯শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দেশের মানুষের প্রতি জাতীয় ঐক্যগড়ে তোলার আহবান ড. কামালের

 গণফোরামের সভাপতি ও সংবিধান বিশেষজ্ঞ ড. কামাল হোসেন সন্ত্রাস ও সহিসংসতার বিরুদ্ধে জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলার জন্য দেশের মানুষের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে সোমবার এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. কামাল হোসেন এ সব কথা বলেন। ২ মার্চ স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন উপলক্ষে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি) এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

রাজনীতিতে রোগ ঢুকে গেছে। সংবিধানকে কার্যকর করতে অসুস্থ রাজনীতির দলীয় প্রভাবই প্রধান বাধা। কোনো সন্ত্রাস এবং পুলিশের ভয় ছাড়া আমরা নিরাপদে চলাচল করতে চাই। এটাই সংবিধান শাসনের মাপকাঠি। আর এ জন্য সরকারের মানসিকতার পরিবর্তন জরুরী।

ড. কামাল বলেন, ‘দেশটাকে আমরা ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিতে পারি না। দেশের সকলের প্রতি আমার শেষ আবেদন, সবাই উঠে দাঁড়ান। সামনে আমাদের সুন্দর ভবিষ্যৎ অপেক্ষা করছে। আমরা অস্থিতিশীলতা ও অনিশ্চয়তা আর চাই না। তাই আমাদের সকলে মিলে একটা ঐক্য গড়ে তুলতে হবে।’

ড. কামাল বলেন, অনেকে বলছে আমি নাকি বোমা মারা, বাস পোড়ানোর কথা বলি না। এ কথা আমি শত শত বার বলেছি। হাসপাতালেও পোড়া মানুষদের দেখতে গিয়েছি। পাশাপাশি সরকারি বাহিনীর গুম হত্যার প্রতিবাদও করেছি।

আব্দুর রব বলেন, ‘আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ২৫ মার্চ থেকেই মানুষ জানে। এর আগে থেকে মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতের কথাটাও নতুন প্রজন্মকে জানাতে হবে। যারা নিউক্লিয়াস, ২ মার্চ, ৩ মার্চ ও বিএলএফ নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন তারাও প্রকৃত ইতিহাসকে আড়াল করার অপচেষ্টা করছেন।’

সরকারের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘দেশটা জ্বলে-পুড়ে যাচ্ছে, ক্রসফায়ার বন্ধ হচ্ছে না। এ সব বন্ধ করতে হবে। ভিন্ন মত ও পথ দমন না করে নির্বাচন কমিশনকে পুনর্গঠন করে নির্বাচন দিন। জনগণ চাইলে আপনি আজীবন ক্ষমতায় থাকবেন।’

আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে নাগরিক ঐক্যের উপদেষ্টা ও সাবেক সংসদ সদস্য এস এম আকরাম, ডাকসুর সাবেক ভিপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরউল্লাহ চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

Spread the love