রবিবার ২৬ জুন ২০২২ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দেশের স্বার্থ বজায় রেখে সবার সাথে সম্পর্ক রাখতে চাই : প্রধানমন্ত্রী

pmপ্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, তার সরকার দেশের স্বার্থ বজায় রেখে যে কোন দেশের সাথেই সর্ম্পক রাখতে চায়। তিনি বলেন, সব দেশের সাথেই আমরা সর্ম্পক রাখতে চাই, তবে দেশের স্বার্থ বাদ দিয়ে নয়। প্রতিবেশী দেশগুলোর সাথে সমস্যা থাকবে আমরা সেগুলো সমাধান করবো। সমুদ্রসীমা মামলায় বিজয়ী হলেও প্রতিবেশী দেশগুলোর সাথে সর্ম্পক অটুট থাকবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সমুদ্রসীমা মামলায় আমরা জয়ী হয়েছি। বিশাল এলাকা হাতছাড়া হয়ে যাচ্ছিল। ৯৬ সালে সরকার গঠনের পর সমুদ্রসীমা নিয়ে কিছু কাজ করা হয়েছিল। বিষয়টি কেবিনেটে পাস হয়। কিন্তু ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় এসে এব্যাপারে কোন কাজ করেনি। বুধবার লন্ডনের হিল্টন হোটেলে যুক্তরাজ্যে বসবাসরত বাংলাদেশী সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি একথা বলেন। অনুষ্ঠানে অন্যানের মধ্যে বিশিষ্ট সাংবাদিক সাহিত্যিক এবং কলাম লেখক আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী, প্রধানমন্ত্রীর ছোটবোন শেখ রেহানাসহ গণমাধ্যমকমীরা উপস্থিত ছিলেন।
শেখ হাসিনা বলেন, ভাগ্য ভালো ২০০৮ সালে আমরা বিজয়ী হয়েছিলাম। না হলে আমাদের সমুদ্র বিজয় হতোনা। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার ছাড়া দেশে যে সরকারগুলো ছিল কেউ কি সমুদ্র সীমা দাবি করতে পেরেছিল? মামলা করতে সাহস করতে পেরেছিল। তার সরকারই মিয়ানমার এবং ভারতের বিরুদ্ধে মামলা করেছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, পেরেছি এজন্য আমরা বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন করেছি। যারা উড়ে এসে জুড়ে বসে তারা শুধু ভোগই করে। আমাদেরতো এসব দিকে লক্ষ্য নেই। আমাদের যা আছে তা নিয়েই আছি। জঙ্গল থেকে এসে এলিট হয়ে যাইনি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, শুধু দেশের জন্যই তিনি কাজ করে যাচ্ছেন। এই অনুভূতি সবার মধ্যে থাকার নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, যারা এদেশের স্বাধীনতার জন্য কাজ করেছেন শুধু তাদের মধ্যেই আছে। এত কাজ করার প্রেরণা কোথায় পান সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি দেখিয়ে বলেন, সততা, নিষ্ঠা, একাগ্রতা এবং জনগণের প্রতি দায়িত্ব বোধ থাকলে সকল অসম্ভকে সম্ভব করা যায় তার সরকার গত ৫ বছরে বিভিন্ন কর্মকান্ডের মধ্যদিয়ে তা প্রমাণ করেছে।
বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ সম্পর্কিত অপর এক প্রশ্নের জবাবে জতির জনকের কন্যা বলেন, জাতির পিতার এ ভাষণের মত আর কোন ভাষণ দীর্ঘদিন ধরে আবেদন ধরে রাখতে পারেনি। এ ভাষণকে আর কেউ যাতে বিকৃত করতে না পারে তার জন্য এ ভাষণকে ডিজিটিলাইজেসন করার পদক্ষেপ নেয়া হবে বলেও জানান তিনি। প্রবাসীদের ভোটার হওয়া প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইংল্যান্ডে ডুয়েল ভোটার ক্ষেত্রে কোন বাধানেই। যে যখন বাংলাদেশে যাবেন তখন ভোটার হতে পারবেন। তবে ভোটটা বাংলাদেশে অনুষ্ঠান নিয়ে নির্বাচন কমিশনের কিছু অসুবিধা আছে। তিনি বলেন, প্রবাসীরা ভোট দিক তা তিনি চান।
নারী শ্রমিকদের বিশেষ করে নারী শিশু শ্রমিক এবং বাল্য বিবাহ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী সবকিছুর জন্য দারিদ্র্যকে দায়ী করে তার সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগ তুলে ধরে বলেন, বাল্যবিয়ে আমাদের সকলের বিশেষ করে বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশগুলোর জন্য একটি বড় ধরনের উদ্বেগ। নারী শিক্ষা নিয়ে তিনি বলেন, মেয়ে শিক্ষার্থীদের জন্য স্নাতক পর্যায় পর্যন্ত উপবৃত্তি চালু করা হয়েছে। দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত মেয়েদের শিক্ষা অবৈতনিক করা হয়েছে। শিক্ষাক্ষেত্রে নারী-পুরুষ সমতা নিশ্চিত করা হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোতে নারীর স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও পরিবার পরিকল্পনা সেবা প্রদান করা হচ্ছে। জেলা ও উপজেলা হাসপাতলে মোবাইল ফোন স্বাস্থ্য সেবা চালু করা হয়েছে। এখান থেকে নারী ও শিশু রোগীরাই বেশি উপকৃত হচ্ছে। নারী ও শিশুর প্রতি বৈষম্য হ্রাসে জনসচেতনতা সৃষ্টি করা হচ্ছে।
শেখ হাসিনা বাংলাদেশে পোশাক শ্রমিকদের বেতন বৃদ্ধির কথা জানিয়ে বলেন পৃথিবীর কোন দেশে এভাবে বেতন বৃদ্ধি করা হয়নি। মহাজোট নেতা বলেন, বিদ্যুত, শিক্ষা, খাদ্য, কৃষিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে তার সরকারের সাফল্য তুলে ধরে প্রবাসী সাংবাদিকদের বলেন, ২০২১ সালের আগেই বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশ হিসাবে গড়ে তুলে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা করা হবে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের আমন্ত্রণে বাল্যবিবাহ ও নারীর প্রতি বৈষম্য দূরীকরণে বাংলাদেশের গৃহিত বিভিন্ন কার্যকর পদক্ষেপসমূহ আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে তুলে ধরার জন্য যুক্তরাজ্যে অনুষ্ঠিত গার্ল সামিট’ অংশগ্রহণ করেন। বিশ্বে বাল্য বিবাহ রোধে ব্যাপক জনমত সৃষ্টি করতে যুক্তরাজ্য সরকার এই প্রথমবারের মতো গার্ল শীর্ষ সম্মেলনের আয়োজন করেছে। ব্রিটেনের রাজধানী লন্ডনে মঙ্গলবার এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email