মঙ্গলবার ১৬ অগাস্ট ২০২২ ১লা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নবাবগঞ্জে চাচাকে ফাঁসাতে ধর্ষণের চেষ্টা মামলা

নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর) থেকে এম.রুহুল আমিন প্রধানঃ দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে আপনন চাচাকে ফাঁসাতে ভাতিজী দায়ের করেছে ধর্ষণের চেষ্টা মামলা। উপজেলার ৭নং দাউদপুর ইউনিয়নের দোমাইল গ্রামের মোখলেছুর রহমান জানান- গত ১১ ই সেপ্টেম্বর ১৫ ইং তারিখে দুপুর ১২.৪৫ মিনিটের সময় তার জাকিয়া নার্সারীতে থাকা অবস্থায় জমি সংক্রান্ত পূর্ব শত্রুতার জের ধরে একই গ্রামের সাইফুল ইসলাম, শাহিদা খাতুন, শহিদুল ইসলাম ও আমেনা বেগম পারম্নল অতর্কিতভাবে আমার উপর হামলা করে। হাসুয়া দ্বারা তার বাম হাতের কব্জিতে চোট মেরে গুরুত্বর রক্তাক্ত জখম ঘটায় এবং শ্বাসরুদ্ধ করিয়া হত্যার চেষ্টা করে। এ ঘটনায় উলে্লখিত আসামীদের বিরুদ্ধে নবাবগঞ্জ থানায় ১৪৩/৪৪৭/৩২৩/৩২৬/৩০৭ ও ৫০৬ দন্ডবিধি আপরাধে একটি মামলা রম্নজু করে। এ মামলায় তারা জেল হাজতবাস সহ আদালত থেকে জামিনে এসে একই ঘটনার দিন তারিখ ও সময় উলে্লক করে মামলার বাদী আপন চাচা মোখলেছুর রহমানকে ফাঁসাতে আদালতে ধর্ষণের চেষ্টা মামলা দায়ের করে। মামলায় ভাতিজী শাহিদা ১৯/১০/১৫ ইং তারিখে বাদীকে আদালতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯/৪(খ)/৩০ ধারা তৎসহ দন্ডবিধি আইনে ৩২৩/৩২৪ ও ৫০৬ ধারায় মামলা রুজু করে। এ ঘটনায় সরেজমিনে গেলে দোমাইল গ্রামের সমাজ সচেতন ব্যক্তি মোঃ আঃ সালাম জানান- ঘটনার দিন তার ভাতিজী সহ তার অনুসারীরা চাচা মোখলেছুর রহমানকে নার্সারীতে গিয়ে মারপিট করে আহত করে। সেখানে ধর্ষণের চেষ্টার কোন ঘটনা ঘটেনি। থানায় দায়ের হওয়া মামলা থেকে রক্ষা পেতেই শাহিদা আদালতে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে। এদিকে ওই বাগানে পরিচর্যার কাজে রত থাকা তাহাজুল ইসলাম, হেলাল মিয়া তারা জানান- এখানে মোকলেছুরকেই মারপিট করা হয়েছে। কিভাবে আপন ভাতিজী হয়ে চাচার বিরম্নদ্ধে ধর্ষণের চেষ্টা মামলা দায়ের করে তা ভাবতেও অবাক লাগে। এ বিষয়ে এ প্রতিনিধি মামলার বাদিনী শাহিদা’র সাথে কথা বলার চেষ্টা করা হলে সে জানায়- মামলা বিষয়ে কিছুই বলব না। মোখলেছুর রহমান অভিযোগ করে জানান- শুধু আমাকেই নয় আমার নিরাপরাধ জামাই মফিজুল ইসলামকেও এ মামলায় বিবাদী করে হয়রানী করছে। অথচ ঘটনার দিন মফিজুল ইসলাম সেখানে উপস্থিত ছিলই না।

 

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email