রবিবার ১৪ অগাস্ট ২০২২ ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নবাবগঞ্জে সাবেক ইউ.পি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবীর অভিযোগ

নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর) থেকে এম.রুহুল আমিন প্রধানঃ

দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার ৬নং ভাদুরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান (সাবেক) মোঃ মোকছেদ আলী ও তার দুই সহযোগীর বিরুদ্ধে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবী সহ হাট ইজারাদার’কে হুমকি দেয়ার বিরুদ্ধে থানায় এজাহার দাখিল হয়েছে। এজাহারে হাট ইজারাদার জগন্নাথপুর গ্রামের মৃত ফরমান আলীর পুত্র গোলাম রব্বানী উল্লেখ করেছে সরকারী বিধি মোতাবেক টেন্ডারের মাধ্যমে ১ম দর দাতা হিসেবে ভ্যাট ও আয়কর সহ মোট ৪২ লাখ ৩৮ হাজার ৬’শ ২৫ টাকা সরকারী কোষাগারে জমা প্রদান করে বাংলা ১৪২২ সালের জন্য ভাদুরিয়া হাট-বাজার ইজারা গ্রহণ করে। ইজারাপ্রাপ্ত হওয়ার পর থেকেই মৃত আঃ লতিফের পুত্র ভাদুরিয়া ইউ.পি’র সাবেক চেয়ারম্যান মোকছেদ আলী মন্ডল(৫০), তার সহযোগী হবিবর রহমানের পুত্র মাসুদ রানা(৪২), মৃত আঃ রশিদের পুত্র লাবু মিয়া(৩৫)। এরা বিভিন্ন সময় হুমকি সহ হাট পরিচালনা করতে দিবে না মর্মে স্বেচ্ছায় ওই হাটটি তাদের নামে দেয়ার জন্য চাঁপ সৃষ্টি করে। এক পর্যায়ে ১নং বিবাদী ইজারাদার গোলাম রব্বানীর নিকট থেকে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করে। এ টাকা দিতে না পারায় মোকছেদ আলী বাংলা গত ৩০/১২/১৪২১ তারিখে মাইক প্রচারের মাধ্যমে ব্যবসায়ী ও জনসাধারনকে টোল দিতে নিষেধ করে। এছাড়াও গত ২৭/০৯/২০১৫ ইং তারিখ বৈকাল ৪টায় হাট-বাজারের অফিস কক্ষে থাকা অবস্থায় ১ নং বিবাদীর নেতৃত্বে ও হুকুমে তার অনুসারীরা অফিস কক্ষে প্রবেশ করে সাদা ষ্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেওয়া সহ পুনরায় চাঁদার দাবী করে। অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান জানান- আমি চাঁদা দাবী করেছি, এমন তথ্য প্রমাণ করতে পারবে না। চাঁদা দাবীর অভিযোগ সম্পূর্ণ বানোয়াট। এ বিষয়ে অভিযোগের তদন্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক মোঃ সোহেল রানা জানান- মোকছেদ চেয়ারম্যান’এর চাঁদা দাবীর বিষয়ে কয়েক বার ঘটনাস্থল তদন্ত করেও সত্যতা পাইনি। তবে, হাট ইজারাদার অভিযোগ করেন- বর্তমানে তিনি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। থানা মামলা না নিলে তিনি আদালতে গিয়ে মামলা করবেন বলে সাংবাদিকদের জানান।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email