রবিবার ২৬ জুন ২০২২ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের উপনির্বাচনে সেলিম ওসমান নির্বাচিত

Salim Osmanনারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের উপনির্বাচনে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী সেলিম ওসমান বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। ১৪১টি কেন্দ্রের মধ্যে ১৪০টির ফল পাওয়া গেছে। সেলিম ওসমান (লাঙ্গল) ৮২ হাজার ৮৫৬ ভোট এবং তার নিকটতম প্রতিন্দ্বন্দ্বি প্রার্থী এসএম আকরাম হোসেন (আনারস) পেয়েছেন ৬৪ হাজার ১১৪ ভোট। একটি কেন্দ্রের ফল স্থগিত করা হয়েছে।
এর আগে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে চলে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। প্রায় সাড়ে তিন লাখ ভোটার তাদের প্রতিনিধি বাছাইয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। এ আসনে মোট ভোটার তিন লাখ ৪২ হাজার ৪০৫ জন। এর মধ্যে পুরুষ এক লাখ ৭৪ হাজার ৩১১ এবং মহিলা এক লাখ ৬৮ হাজার ৯৪ জন। মোট ভোটকেন্দ্রের মধ্যে বন্দর উপজেলায় ৮৯টি এবং নারায়ণগঞ্জ সদরে ৫২টি। এ উপনির্বাচনে ৪ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন, জাতীয় পার্টির সেলিম ওসমান, স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য এসএম আকরাম, মোহাম্মদ মামুন সিরাজুল মজিদ ও কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের প্রার্থী শফিকুল ইসলাম।
বার একাডেমী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রিজাইডিং অফিসার নারায়ণ চন্দ্র মন্ডল জানান, বৃষ্টির করনে ভোটারদের উপস্থিতি কম। সন্ত্রাস অবসানের প্রত্যাশা নিয়ে নারায়ণগঞ্জ-৫ (শহর-বন্দর) আসনের উপনির্বাচনে ভোট দিয়েছেন ভোটাররা। শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত অপ্রীতিকর কোনো ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। কিন্তু সকাল থেকেই গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি থাকায় ভোটারের উপস্থিতি কম। তবে বেলা বাড়লে ভোটার উপস্থিতিও বেড়েছিল। সকালে শহরের নারায়ণগঞ্জ ক্লাব লিমিটেডে, সরকারি মহিলা কলেজ, গণবিদ্যা নিকেতন, নারায়ণগঞ্জ বার একাডেমী উচ্চ বিদ্যালয়, বিবি মরিয়ম উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় ও বন্দরের কয়েকটি কেন্দ্রে দেখা গেছে ভোটার উপস্থিতি কম।
সেলিম ওসমান সাংবাদিকদের বলেন, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি সন্তোষজনক। যে ধরনের উদ্বেগ উৎকণ্ঠা ছিল সেটা নেই। প্রশাসনও বেশ তৎপর। ফলাফল যাই হোক আমি মেনে নেবো।
প্রসঙ্গত সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জে সাত খুনের ঘটনা এবং এর আগে মেধাবী ছাত্র ত্বকী হত্যার কারণে এ নির্বাচনে সন্ত্রাস প্রধান ইস্যু হয়ে দাঁড়িয়েছে। নারায়ণগঞ্জে সন্ত্রাসের এসব ঘটনার সঙ্গে ওসমান পরিবারের সদস্যদের নাম ঘুরেফিরে আলোচনায় এসেছে। নারায়ণগঞ্জে প্রভাবশালী হিসেবে পরিচিত ওসমান পরিবারের প্রার্থীকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়া আকরাম বিগত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে সেলিনা হায়াৎ আইভীর পক্ষে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের অবস্থান না নেয়ার প্রতিবাদে দল ছেড়েছিলেন। ওই নির্বাচনে আইভীর কাছে হেরে যাওয়া আওয়ামী লীগ নেতা শামীম ওসমান এখন নারায়ণগঞ্জের আরেকটি আসনের সংসদ সদস্য।
জাতীয় পার্টির সাংসদ নাসিম ওসমানের মৃত্যুতে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনটি শূণ্য হয়। এ আসনে উপনির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ থেকে কোনো প্রার্থী দেয়া হয়নি। জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে লাঙল প্রতীকে লড়ছেন প্রয়াত সাংসদের ভাই সেলিম ওসামান। তার বিপরীতে আনারস প্রতীক নিয়ে এ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন সাবেক আওয়ামী লীগ নেতা এস এম আকরাম, যিনি ২০০১ সালে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হিসেবে এই আসনে জয়ী হয়েছিলেন। এছাড়া কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ সমর্থিত শফিকুল ইসলাম দেলোয়ার গামছা প্রতীক নিয়ে এবং চিংড়ি মাছ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী মামুন সিরাজুল মজিদ ।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email