রবিবার ১৪ এপ্রিল ২০২৪ ১লা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নিখোঁজ বিমানের সন্ধান : ৪০ লাশ উদ্ধার

ইন্দোনেশিয়ার উদ্ধারকারী দল জাভা সাগর থেকে নিখোঁজ এয়ারএশিয়া বিমানের অন্তত ৪০টি লাশের সন্ধান পাওয়ার খবর জানা গেছে। তবে এ ব্যাপারে সরকারিভাবে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়নি।

মঙ্গলবার সকালে ১০টি লাশ পাওয়া যায়। ইন্দোনেশিয়ান নৌবাহিনীর উদ্ধৃতি দিয়ে গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, তাদের একটি রণতরী ৪০টিরও বেশি লাশ খুঁজে পেয়েছে। লাশগুলো বিমানের ধ্বংসাবশেষের কাছাকাছি ছিল।

এদিকে ইন্দোনেশিয়ার জাতীয় সম্প্রচারের খবরে বলা হয়, অনুসন্ধানকারীরা সাগরের নিচে বিমানের ছায়া দেখতে পাওয়ার দাবি করেছেন।
এর আগে ইন্দোনেশিয়ার কর্মকর্তারা জানান, তারা জাভা সাগরের ক্যালিমানতান উপকূলে কিছু ধ্বংসাবশেষের সন্ধান পেয়েছেন। তবে ধারণা করা হচ্ছে, এগুলো নিখোঁজ বিমানটির অংশবিশেষ। বর্তমানে অন্তত ৩০টি জাহাজ, ১৫টি বিমান, ৭টি হেলিকপ্টার অনুসন্ধান অভিযানে নিয়োজিত রয়েছে।
ইন্দোনেশিয়ার পরিবহন মন্ত্রণালয়ের বিমান পরিবহনবিষয়ক ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক জোকো মুরজাতমোজো বলেন, ধ্বংসাবশেষটি লাল ও সাদা। তবে এটা নিখোঁজ বিমানের কি না তা আমরা যাচাই করছি। সম্ভবত এটা বিমানের নির্গমন দরজার অংশবিশেষ।
রবিবার ভোরে ইন্দোনেশিয়া থেকে সিঙ্গাপুর যাওয়ার পথে পূর্ব জাভা থেকে উড্ডয়নের ৪৫ মিনিট পর বিমানটি কন্ট্রোল টাওয়ারের সাথে যোগাযোগ হারিয়ে ফেলে। ধারণা করা হচ্ছে, ঝড়ো বাতাসের কারণে বিমানটি বিধ্বস্ত হয়েছে। বিধ্বস্ত হওয়ার সময় বিমানটিতে ১৬২ জন আরোহী ছিল। আরোহীদের বেশির ভাগই ইন্দোনেশিয়ার। মালয়েশিয়াভিত্তিক বিমান সংস্থা এয়ারএশিয়ার এ বিমানটি পরিচালনা করত এয়ারএশিয়া ইন্দোনেশিয়া। নিখোঁজ হওয়ার পর থেকেই বিমানটির ব্যাপারে ব্যাপক অনুসন্ধান চালানো হচ্ছিল।

বিমানটিতে সাতজন ক্রু ও ১৫৫ জন যাত্রী ছিলেন। যাত্রীদের মধ্যে ১৩৮ জন প্রাপ্তবয়স্ক ও ১৬ শিশু রয়েছে।
নিখোঁজ যাত্রীদের মধ্যে ১৪৯ জন ইন্দোনেশিয়ার নাগরিক। নিখোঁজ বাকি ছয় যাত্রীর মধ্যে তিনজন কোরিয়ার নাগরিক। এ ছাড়া মালয়েশিয়া, ব্রিটেন ও সিঙ্গাপুরের একজন করে নাগরিক ছিল। নিখোঁজ বিমানটির অনুসন্ধানে আজ মঙ্গলবার তৃতীয় দিনের মত তল্লাশি অভিযান চলছে। স্থল ও সমুদ্রের মোট ১৩ টি অঞ্চলে অনুসন্ধান অভিযান বিস্তৃত করা হয়েছে।

Spread the love